শাহ আলমের ব্যাকফুটে গিয়াস সম্ভাবনায়

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:২৩ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার



শাহ আলমের ব্যাকফুটে গিয়াস সম্ভাবনায়

আর মাত্র তিন মাস পরেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে এখন পর্যন্ত বিএনপির অংশগ্রহণ নিশ্চিত না হলেও মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ভিতরে ভিতরে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। এর ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনেও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। তবে নির্বাচনের কাছাকাছি সময়ে এসে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে শাহ আলম ব্যাকফুটে চলে গেছেন। বিপরীতে বিএনপির অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের সম্ভাবনা উজ্জল হয়ে উঠছে।

জানা যায়, নির্বাচন কমিশন ঘোষণা দিয়েছেন আগামী ডিসেম্বরের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনকে সামনে রেখে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের পাশাপাশি বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও নিজ নিজ সংসদীয় এলাকায় নিজেদেরকে সরব রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দলের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যদিও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সাম্প্রতিক সময়ে ক্ষমতাসীনদের চাপে রয়েছেন। তারপরেও তারা আড়ালে আবডালে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

দলীয় সূত্র মতে, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন একই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি শাহ আলম। এরা দু’জনেই বিএনপির সিনিয়র ব্যক্তিত্ব এবং রাজনীতিতেও বেশ পুরানো। নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতিতেও রয়েছে তাদের প্রভাব। একই সাথে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছেও তাদের ভাল লবিং রয়েছে। ফলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন তাদের যথেষ্ট পরিমাণ সম্ভাবনা ছিল।

তবে নির্বাচনের কাছাকাছি সময়ে অনেকটা ব্যাকফুটে চলে গেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি শাহ আলম। সরকারি দলের নেতাকর্মীদের রোষানল থেকে বাঁচতে অবস্থান করছেন দেশের বাইরে। গত কয়েকদিনের ব্যবধানে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরাসহ অন্যান্য নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১৫টি মামলা হলেও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ আলম রয়েছেন মামলার বেড়াজালমুক্ত।

যেখানে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা রয়েছেন একের অধিক মামলার বেড়াজালে আবদ্ধ যেখানে শাহ আলমের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে কোন মামলায় হয় না। যা নিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে সন্দেহ দেখা দেয়।

তাদের ধারণা, শাহ আলম মামলা থেকে বাঁচতে চাইছেন। আর এজন্যই তিনি ব্যাকফুটে চলে গেছেন। এরই মধ্যে দুইদিন নিখোঁজ থাকার পর গত ১৭ সেপ্টেম্বর শাহ আলমের শিষ্য খ্যাত নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনিকে পিস্তল ও গুলি সহ গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। যিনি শাহআলমের একনিষ্ট কর্মী ছিলেন এবং রাজনৈতিক অনেক কর্মকান্ডই তার মাধ্যমে সম্পন্ন করা হত। কিন্তু তার গ্রেফতারে শাহ আলম অনেকটাই বেকায়দায় পরে গেছেন।

অন্যদিকে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাশী মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন রয়েছেন সুবিধাজনক অবস্থানে। আগামী নির্বাচনী বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় থাকার কারণে সাম্প্রতিক সময়েই একের অধিক মামলার আসামী হয়েছেন। যার কারণে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের সুনজরে রয়েছেন তিনি। নির্বাচনী মাঠেও রয়েছে তার সরব উপস্থিতি। এছাড়া সাবেক সংসদ সদস্য হিসেবেও তার দক্ষতা রয়েছে। এরই মধ্যে অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহ আলমও ব্যাকফুটে চলে গেছেন। সবকিছু মিলিয়ে আগামী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের উজ্জল সম্ভবনা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালের ওয়ান এলেভেনের পর থেকে হঠাৎ করেই আলোচনায় আসার চেষ্টা করেন ফতুল্লার জনপ্রিয় জালালউদ্দিন আহম্মেদ এর ছেলে শাহআলম। ওই বছরের তৃতীয় ধারার কিছু রাজনৈতিক দল গঠন হলে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন শাহআলম। তিনি তখন নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডে একটি ইফতার মাহফিলে মেজর জেনারেল (অব.) ইবরাহিমকে অতিথি করেন। এ অনুষ্ঠানে অতিথিরা দেশের দুই দলের দুই নেত্রীর তীব্র ভর্ৎসনা করেন।

ওই বছরের ৪ ডিসেম্বর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে একটি মিলনায়তনে কিংস পার্টি খ্যাত কল্যাণ পার্টির প্রকাশ ঘটে। এ অনুষ্ঠানে লোকজন নিয়ে শাহআলম উপস্থিত হন। অনুষ্ঠানে তিনি বক্তব্য দিয়ে কল্যাণ পার্টির জন্য কাজ করার অঙ্গীকার করেন। কল্যাণ পার্টির প্রধান মেজর জেনারেল (অব.) ইবরাহিম সেদিন তার বক্তব্যে শাহআলমের উপর দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব প্রদান করেন। শুরু হয় শাহআলমের রাজনীতি। তখন শাহআলম মোটা অঙ্কের টাকা কল্যাণ পার্টিকে অনুদান দেন।

কিন্তু ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে বিএনপির মনোনয়ন পান শাহআলম। এ নির্বাচন নিয়েও অনেক নাটকীয়তা হয়। নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী সারাহ বেগম কবরীর সঙ্গে পরাজিত হয়।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও