৪ কার্তিক ১৪২৫, শনিবার ২০ অক্টোবর ২০১৮ , ২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

UMo

রূপগঞ্জে তরুণ ও স্থানীয় প্রার্থীতেই আস্থা বড় দুই দলে


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৪:২৪ পিএম, ৫ অক্টোবর ২০১৮ শুক্রবার


রূপগঞ্জে তরুণ ও স্থানীয় প্রার্থীতেই আস্থা বড় দুই দলে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী আমেজ। দলের ত্যাগী ও তরুন নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করায় বড় দুই দলের তরুণ ও সেই সঙ্গে স্থানীয় নেতাদের প্রতিই আস্থা রাখতে চাইছেন কর্মী সমর্থকেরা। এজন্য তরুণ প্রার্থীরাও তৃণমূলের সাথে যোগাযোগ ও কর্মী মূল্যায়ন বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ জন্য বড় দুই দলের নেতাকর্মীদেরও আস্থা এখন তরুণ প্রার্থীদের ওপর।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, রাজনীতিকে পরিবার কেন্দ্রিক করায় তৃণমূল আওয়ামী লীগ আস্থা হারিয়েছে গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতিকের প্রতি। তিনি নিজে সংসদ সদস্য। তাঁর স্ত্রী হাসিনা গাজী তারাব পৌরসভার মেয়র। আর বড় ছেলে গোলাম মর্তুজা পাপ্পা স্থানীয় যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতৃত্ব দেন। এ জন্য তৃণমূল নেতাকর্মীরা নতুন নেতৃত্বের খুঁজতে থাকেন। আর্বিভাব ঘটে নতুন মুখের। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এবার রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর সংখ্যা এক ডজন।

রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতিক, ক্লিনম্যান খ্যাত সাবেক সংসদ সদস্য ও মেজর জেনারেল (অব.) কেএম সফিউল্লাহ বীর উত্তম, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভুঁইয়া, রংধনু গ্রুপ ও কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, এমজি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য মোশারফ হাসান বাবু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হারেজ, আওয়ামী লীগ নেতা মেজর (অব.) মসিহুর বাবুল, ডা. খালেদা আক্তার, ব্যারিষ্টার শামীম আজিজ, সায়েম ছোবহান আনভীর ও আবুল ফজল রাজু। তবে প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন শাহজাহান ভুঁইয়া, রফিকুল ইসলাম রফিক, আলহাজ্ব আব্দুল হাই, কেএম সফিউল্লাহ বীর উত্তম ও মোশারফ হাসান বাবু। তরুণ ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের পছন্দের প্রার্থী রফিকুল ইসলাম। তাছাড়া একেবারে স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবেও যথেষ্ট খ্যাতি আছে আবদুল হাইয়ের। তিনি মূলত রূপগঞ্জের বাসিন্দা। তাঁর আছে বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার।

এলাকায় আলোচনায় ওঠেছে গোলাম দস্তগীর গাজী একক প্রার্থী। আর অপর ১১জন প্রার্থী একই সাথে সভা সমাবেশ ও গণসংযোগ করছেন। তাদের মধ্য থেকে যাকে মনোনয়ন দেয়া হবে তারপক্ষেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে নৌকাকে বিজয়ী করার ঘোষণা দেন। তবে প্রচারণায় পিছিয়ে নেই গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতিকও। তিনিও প্রতিদিন কোনো না কোনো এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন।

এদিকে বিএনপির তৃণমূল ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, তাদের এবার পছন্দের প্রার্থী বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু। তিনি প্রার্থী হলে বিএনপির প্রতিক ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিত। এমনটাই জানালেন সাধারণ জনগণ।

কারণ হিসেবে জানান, দিপু ভুঁইয়ার জনপ্রিয়তা রূপগঞ্জের সর্বত্রই। ভুলতা, গোলাকান্দাইল, মুড়াপাড়া, কাঞ্চন ও ভোলাব ইউনিয়নে মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপুর ভোট ব্যাংক রয়েছে। এমনটা কোনো দলের নেতার নেই। ক্লিনম্যান হিসেবে তাঁর পরিচিতি রূপগঞ্জের সর্বত্র। তবে দিপু ভুঁইয়া এখন আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের মাথা ব্যথা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতিমধ্যে পুলিশ বাদি হয়ে মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁইয়া দিপুর নামে রূপগঞ্জ ও সোনারগাঁও থানায় ৮টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে মামলার পর এই নেতার জনপ্রিয়তা আরো বেড়েছে বলে তৃণমূল বিএনপির দাবি। মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁইয়া দিপুর প্রতিই আস্থা স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনসহ সাধারণ মানুষের।

এছাড়াও এখানে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছে। কাজী মনিরুজ্জামান রূপগঞ্জ উপজেলা বিএনপিকে আত্মীয় করণ ও বন্ধুবান্ধব কেন্দ্রিক করায় দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা তাঁর কাছ থেকে দূরে সরে গেছেন। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন তৃণমূল বিএনপি ও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে। গত দুইমাস ধরে কাজী মনিরুজ্জামান স্থানীয় নেতাকর্মীদের কাছ থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। তবে দলের নেতাকর্মীদের দাবি বিএনপির হারানো আসন পুনরুদ্ধারে মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁইয়া দিপুর বিকল্প নেই। রূপগঞ্জের সাধারণ মানুষ এবার নির্বাচনে আওয়ামী লীগে আবদুল হাই, রফিকুল ইসলাম ও বিএনপিতে মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপুতেই আস্থা রাখতে চাইছেন।

রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরে কায়েতপাড়া ইউনিয়নবাসীর সেবা দিয়ে আসছি। এবার সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে মনোনয়ন দেয়া হলে এ আসনটি শেখ হাসিনাকে উপহার দিবো।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু বলেন, গত দেড় মাসে রূপগঞ্জ থানায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নামে ১০টি ভৌতিক মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় নেতাকর্মীদের আসামি করায় বিএনপি আরো শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে তিনি শতভাগ আশাবাদী। 

নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের যুগ্ম সম্পাদক সালাহউদ্দিন দেওয়ান ও জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ইসমাইল মামুন জানান, মোস্তাফিজুর রহমান রহমান ভূইয়া দিপু মনোনয়ন পেলে ধানের শীষের বিজয় শতভাগ। তাছাড়া রূপগঞ্জের সর্বশ্রেণীর মানুষের পছন্দের প্রার্থী দিপু ভূইয়া।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ