৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ৮:০১ পূর্বাহ্ণ

UMo

তারেক জিয়ার রায়কে ঘিরে ঘরকুনো বিএনপির শীর্ষ নেতারা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:২৮ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার


তারেক জিয়ার রায়কে ঘিরে ঘরকুনো বিএনপির শীর্ষ নেতারা

দিন যতই যাচ্ছে রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে ততই পিছিয়ে পড়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। এবারও তারই প্রমাণ দিলেন বিএনপির ভারপ্রাাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অন্যান্য নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে রায়কে ঘিরে। এদিন তারা শুধুমাত্র মিছিলের নামে ফটোশেসনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলেন। বিপরীতে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ সবসময় বিএনপির নেতাকর্মীদের হুংকারের মধ্যে রেখে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগকেও সমর্থন দিয়ে আসছেন।

সূত্রমতে, ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই টানা দুই মেয়াদ ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছে বিএনপি। ২০০৮ সালে প্রথম দফা এরপর ২০১৪ সালের দশম জতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতার বাইরে থেকে যায় বিএনপি।

এই দুই দফা ক্ষমতায় বাইরে থেকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি একেবারেই নাজুক অবস্থায় পড়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর একের পর এক হামলা-মামলায় নেতাকর্মীরা হয়ে পড়েছেন ঘরছাড়া। দলীয় কোন আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে কর্মসূচি পালন করা তো দূরের কথা এমনকি এর ধারে কাছেও ঘেষতে পারেন না। গ্রেফতারের ভয়ে শীর্ষ নেতাকর্মীদের থাকতে হয় কর্মসূচির বাইরে। কর্মসূচি পালনকালে তাদের নেতাকর্মীর সংখ্যাও কম থাকে। ফলে তাদের আন্দোলন সংগ্রামও তেমন জোরদার হয় না।

এরই মধ্যে গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এই রায়কে ঘিরেও নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা তেমন কোন জোড়ালো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেননি। শুধুমাত্র নামকাওয়াস্তেই কর্মসূচি পালন করে গেছেন। তাদের দলীয় প্রধান মাসের পর মাস কারাভোগ করলেও আন্দোলন সংগ্রামে নিস্ক্রীয়ই থেকে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি।

এদিকে ১০ অক্টোবর বুধবার ২১ আগস্ট চালানো গ্রেনেড হামলা মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত। এই মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, হারিছ চৌধুরী, সাবেক সাংসদ কায়কোবাদসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের মতে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ক্ষমতাসীনদের প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য এ রায় দেয়া হয়েছে। বিএনপি মনে করে এ রায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার রায়। এটি ক্ষমতাসীনদের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার নোংরা প্রকাশ।

কিন্তু এই রায়েও তাৎক্ষণিকভাবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা আন্দোলন সংগ্রামে জোড়ালো ভূমিকা রাখতে পারেনি। গুটি কয়েক নেতাকর্মীদের নিয়ে নামমাত্র কর্মসূচিতেই সীমাবদ্ধ রয়েছেন তারা। জেলা ও মহানগর পর্যায়ের শীর্ষ নেতাকর্মীদেরকেও রাজপথে দেখা মিলেনি। যদিও ইতোমধ্যে কেন্দ্রীয় বিএনপি কর্মসূচি দিয়েছে। সেই কর্মসূচিতে তারা কি অবদান রাখতে পারেন সেটাই এখন দেখার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে তাদের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দেখে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা এই আন্দোলনেও তারা ব্যর্থ হবে।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা বিএনপিকে একের পর এক চ্যালেঞ্জ ছুড়ছেন। আন্দোলন সংগ্রামে তাদের কোন শক্তি নেই অভিহিত করছেন। সর্বশেষ গত ৪ অক্টোবর দুপুরে ইসদাইর বাংলা ভবনে নেতাকর্মীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় শামীম ওসমান বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য হুংকার দিয়ে বলেছেন, সামনে অনেক খেলা হবে। নারায়ণগঞ্জে খেলার চেষ্টা কইরেন না। ষড়যন্ত্র করলে শান্তিতে থাকতে পারবেন না। কাটা গায়ে নুনের চিটা দিয়েন না। আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে লাখো লাখো মানুষ আওয়ামীলীগের নেতত্বে প্রস্তুত আছি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা রাজপথে থাকবো। আমরা নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মীরাই ঢাকার রাজপথ দখলের জন্য যথেষ্ট।

এসকল দিক বিবেচনায় রাজনৈতিক বিশ্লেষকদে মত হচ্ছে, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের চেয়ে অনেক পিছিয়ে রয়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের এসব ওপেন চ্যালেঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের জন্য খুবই লজ্জাজনক বিষয়। এর মাধ্যমে তাদের রাজনৈতিক নিস্ক্রীয়তাকেই প্রমাণ করে।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ