গ্রেনেড হামলার মত ১৬ জুন বোমা হামলারও বিচার চায় নারায়ণগঞ্জবাসী

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১০ পিএম, ১১ অক্টোবর ২০১৮ বৃহস্পতিবার



গ্রেনেড হামলার মত ১৬ জুন বোমা হামলারও বিচার চায় নারায়ণগঞ্জবাসী

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে নিক্ষিপ্ত গ্রেনেড হামালার বিচার দীর্ঘ ১৪ বছর পরে পাওয়ায় সারাদেশের মত নারায়ণগঞ্জবাসীও সন্তুষ্ট। কিন্তু ২০০১ সালে নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া আওয়ামীলীগ অফিসে বর্বরোচিত বোমা হামলার বিচার কাজ শেষ না হওয়ায় তাঁরা হতাশা ও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় টার্গেট ছিলেন শেখ হাসিনা তদ্রুপ ১৬ জুন বোমা হামলারও টার্গেট ছিলেন শামীম ওসমান এমপি। উভয় ঘটনায় সৌভাগ্যক্রমে শেখ হাসিনা ও শামীম ওসমান বেঁচে গেলেও একুশে আগস্টে নিহত হয়েছিলেন ২৪ জন ও ১৬ জুনে নিহত হয়েছিলেন ২০ জন।

নারায়ণগঞ্জবাসী মনে করেন উভয় ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা। সেদিন বোমা হামলায় আহত শামীম ওসমান হাসপাতালে বেডে শুয়ে বলেছিলেন, আপনার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বাঁচান। সেই ঘটনার তিন বছর পরেই শেখ হাসিনাকে হত্যার চেস্টা চালানো হয় গ্রেনেড হামলা করে। ১৬ জুন বোমা হামলার ১৭ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও বিচার পাননি নিহত ও আহতদের স্বজনেরা। তাঁদের দাবি অবিলম্বে ১৬ জুন বোমা হামলার বিচার কার্যক্রম শেষ করা হোক।

জানাগেছে, ২০০১ সালে আওয়ামীলীগ সরকারের মেয়াদের শেষদিকে ১৬ জুন চাষাঢ়া আওয়ামীলীগ অফিসে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। রাতে পৌণে আটটার দিকে তখনকার এমপি শামীম ওসমান যখন জনগণের কথা শোনার জন্য সাক্ষাৎ দিচ্ছিলেন ঠিক তখুনি বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলায় আওয়ামীলীগের ২০ জন নেতাকর্মী প্রাণ হারান। গুরুতর আহত হন শামীম ওসমানসহ অর্ধশতাধিক লোক। চিরতরে পঙ্গুত্ববরণ করেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলার সভাপতি চন্দন শীল, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রতন দাস আরো অনেকেই। সে ঘটনায় সেদিনই নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা দুটি মামলা (একটি বিস্ফোরক ও অন্যটি হত্যা) দায়ের করেন। ২০০১ সালে চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চূড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে এ মামলাটি পুনরুজ্জীবিত করা হয়। দুটি মামলায় ১৪ বছরে ৭ বার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন এবং ৮ম বার ১৩ বছর পর ২০১৩ সালের ২মে মামলার তদন্ত সংস্থা সিআইডি ৬ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করে।

আদালত সূত্রে জানাগেছে, মামলাটি বর্তমানে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতে বিচারাধীন আছে এবং তা সাক্ষী পর্যায়ে আছে। মামলার অন্যতম আসামী হুজি নেতা মুফতি হান্নানের একটি মামলায় ফাঁিস কার্যকর হওয়ায় এবং তার প্রতিবেদন আদালতে জমা না দেওয়ায় বার বার মামলার তারিখ পড়ছে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যেমন মুফতি হান্নান ও ক্রসফায়ারে নিহত যুবদল নেতা ডেভিডের ছোট ভাই শাহাদাৎ উল্লাহ জুয়েল আসামী তেমনি ১৬ জুনের বোমা হামলা মামলায়ও এদুজন চার্জশীটভুক্ত আসামী।

এব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন বলেন, ২১ আগস্ট মামলার রায় হওয়াতে আমরা সন্তুষ্ট। মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমানের ফাঁসি হলে আরো খুশী হতাম। কিন্তু ২০০১ সালের ১৬ জুন বোমা হামলার বিচার দীর্ঘ ১৭ বছরেও শেষ হয়নি। মামলাটি বর্তমানে সাক্ষী পর্যায়ে আছে। এবং মামলার বাদীই শুধু সাক্ষ্য প্রদান করেছেন। এই মামলার অন্যতম আসামী মুফতি হান্নানের ফাঁসি কার্যকর হওয়ার প্রতিবেদন কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে না আসায় মামলার তারিখ পড়ছে।

তিনি আরো বলেন, যেহেতু মৃত ব্যক্তির নামে মামলা পরিচালনা করা যায়না তাই সেই রিপোর্ট আসার পর পরই আমরা মামলাটিকে দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করব।

১৬ জুন বোমা হামলার বাদী ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা বলেন, দেশবাসি ১৪ বছর পর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচার পেয়েছে। এই মামলা মাস্টার মাইন্ড তারেক রহমানের ফাঁসি দাবি করে খোকন সাহা বলেন, কিন্তু দীর্ঘ ১৭ বছর পেরিয়ে গেলেও ১৬ জুন বোমা হামলার বিচার আমরা পাইনি। আমরা যারা এই মামলার সাক্ষী তারা প্রস্তুত আছি সাক্ষ্য দিতে। আশা করি দ্রুতই মামলার কার্যক্রম শেষ হবে।

১৬ জুনে বোমা হামলায় দু’পা হারানো ও নারায়ণগঞ্জ জেলা একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি চন্দন শীল ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে কিছুটা হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘এই মামলায় মাস্টার মাইন্ড তারেক রহমানের ফাঁসি হওয়া উচিত ছিল। আশা করি সরকার আপীল করলে সেটা হতেও পারে।’

তিনি ১৬ জুন বোমা হামলার মাস্টার মাইন্ডকে চিহ্নিত করে তাদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচার কাজ শেষ করার দাবি জানান। বিচারের রায়ে আসামীদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে প্রমন প্রত্যাশা করে চন্দন শীল বলেন, ‘এটা হলেই নিহত ও আহতদের স্বজনেরা স্বস্তি ও শান্তি পাবে।’


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও