৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮ , ৬:২৪ অপরাহ্ণ

rabbhaban

সংসদ নির্বাচন : উৎসবের আমেজ কাটতেই বাড়ছে উদ্বেগ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৫ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৮ শনিবার


ছবিগুলো আসন কেন্দ্রীক

ছবিগুলো আসন কেন্দ্রীক

কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার জন্ম না দিয়েই বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে বিদায় নিলো দূর্গা। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ প্রতিবারের মতোই সাক্ষ্য হয়ে থাকলো ধর্মীয় সম্প্রীতির শহর হিসেবে। কিন্তু উৎসবের আমেজ কাটতেই আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বাড়ছে শহরবাসীর। বাড়ছে শঙ্কা। অক্টোবরকে ঘিরে নানা সময়ে আতঙ্কের বাণী শুনিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান নিজেই। যেখানে তিনি সে ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্য আগে থেকেই দায়ী করে রেখেছেন বিএনপি-জামায়াতকে।

আবার প্রতিত্তরে বিএনপির একাধিক নেতাকর্মীও সুযোগ বুঝেই সরকারকে দোষারোপ করে ছড়িয়েছেন ভীতি। যা এখন পর্যন্ত জনজীবনে খুব বেশি আঁচড় কাটেনি। তবে সামনের দিনগুলোর জন্য তা অশনি সঙ্কেত হিসেবে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকগণ।

একদিকে সাংসদ শামীম ওসমান বলেছেন, ‘নির্বাচনকে সামনে রেখে অক্টোবরে মহাজোট সরকার ক্ষমতা ছাড়বে। সে সময় দেশের পরিস্থিতি হবে ভয়াবহ। এখন অনেকেই মুখোশ পরে আছেন যাদের প্রকৃত চেহারা আমরা তখন দেখতে পাবো।’ এ ধরনের ভীতিকর বক্তব্যে স্বয়ং সাংসদ রাজনৈতিক মাঠ ঘাটে উত্তাপ ছড়িয়েছেন আরও ৬ মাস আগে থেকেই।

কখনও কখনও সরাসরি ঘোষণা দিয়েছেন, সামনে খেলা হবে। দেশ জুড়ে এ সময় বিএনপি জামায়াতের আবার পুরোনো চেহারা দেখা যাবে বলেও সতর্ক করেছেন তিনি। আবারো পেট্রোল বোমায় দেশে পুড়তে পারে এমন আশঙ্কাও বাদ পরেনি তার কথায়। পাশাপাশি যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সদা প্রস্তুত থাকবে বলে ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে বিভিন্ন সময়ে বিএনপির একাধিক নেতৃবৃন্দের কন্ঠে উঠে এসেছে উৎকন্ঠার বাণী। বলেছেন, ‘সরকার টের পেয়ে গেছে তার জনপ্রিয়তা আর নেই। তাই সামনের নির্বাচনে যে করেই হোক টিকে থাকতে চাইবে তারা। আর সে জন্যে যা ইচ্ছে তাই করতেও তারা দ্বিধা করবেন না।’ আবার পাশাপাশি খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্যে কঠোর আন্দোলন সংগ্রাম করবার ঘোষণাও দিয়েছে তারা।

এদিকে বিএনপির এই আন্দোলন করবার ঘোষণাকেও শঙ্কার বিষয় হিসেবে উল্লেখ করেছেন জেলা আওয়ামীলীগের একাধিক নেতৃবৃন্দ। তাদের মতে বিএনপির আন্দোলন মানেই জ্বালাও পোড়াও। এখন মহাজোট সরকারের কঠোর অবস্থানের মধ্যে তারা সেই জ্বালাও পোড়াও করতে পারেনি। তবে সামনেও চুপ করে বসে থাকবে না নিশ্চয়।

গোয়েন্দা বিভাগের একাধিক সূত্র বলছে, ‘পরপর দুই বারে দশ বছর ক্ষমতার বাইরে বিএনপি। যারা ইতোপূর্বে কয়েকবার সরকার গঠন করেছিলো। ফলে এ দীর্ঘ সময় ধরে ক্ষমতার বাইরে থেকে তারা পুনরায় ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য অনেকটাই মরিয়া। সেক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত তারা নীরব আন্দোলনে থাকলেও নির্বাচন সামনে রেখে তাদের সরব আন্দোলনে এগিয়ে আসার সময় আসছে। যা শঙ্কার কারণও হয়ে উঠতে পারে।’

সেক্ষেত্রে বিএনপিকে দমন করার জন্যে আওয়ামীলীগও যে মাঠে নামতে পারে সে সম্ভাবনাও একেবারেই এড়িয়ে দেয়া যায় না।

এদিকে আওয়ামীলীগে একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী, একাধিক নেতা আর সমর্থকদের বিভাজন তো রয়েছেই। যা জন্ম দিতে পারে অভ্যন্তরীন কোন্দল। ফলে জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়া নিয়ে যেমন উদ্বেগ রয়েছে নগরবাসীর তেমনি এসকল কিছুর বিবেচনায় বাড়ছে শঙ্কাও।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ