৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮ , ৬:২১ অপরাহ্ণ

rabbhaban

ডিবিতে গ্রেফতার থাকাবস্থায় ককটেল মারলো সাখাওয়াত!


সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৫১ পিএম, ৬ নভেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার


ডিবিতে গ্রেফতার থাকাবস্থায় ককটেল মারলো সাখাওয়াত!

পুলিশের দায়ের করা মামলার এজাহারে লেখা রাত ৭টা ৪৫ মিনিটে তাদের একটি টিম ফতুল্লা থানার কাশীপুরে অভিযানের সময়ে বিএনপির নাশকতাকারীরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। ওই পলাতক আসামীদের অগ্রভাগে ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান। অথচ পুলিশের ভাষ্যমতে ঘটনার পৌনে ২ঘণ্টা আগেই তাকে গ্রেফতার করেছে নারায়ণগঞ্জ গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। প্রশ্ন উঠেছে ডিবি হেফাজতে থাকা অবস্থায় কিভাবে সাখাওয়াত কাশীপুরে পুলিশ দেখে পালানোর সময়ে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটালো।

মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) সকালে ফতুল্লা মডেল থানার এসআই আবু হানিফ বাদী হয়ে ওই মামলা দায়ের করে। মামলায় অভিযোগ করা হয় ৫ নভেম্বর রাত পৌনে ৮টায় খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্বাচন তফসিল ঘোষণার পেছানোর দাবিতে ফতুুল্লার কাশিপুর ভোলাইলের শেষ মাথায় নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ সড়কে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ১৭৪ জন নেতাকর্মী বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র সস্ত্রে ও বিস্ফোরক দ্রব্যে সজ্জিত হয়েছে নাশকতার পরিকল্পনা উদ্দেশে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাইয়া আতঙ্ক সৃষ্টি করে রাস্তায় কয়েকটি যানবাহন ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় খবর পেয়ে ফতুল্লা মডেল থানার এস আই মো. আব্দুস শাফীউল আলম ও তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ওই স্থানে সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে উপস্থিত হয়ে বিএনপি দলের নেতাকর্মীদের নাশকতার চিত্র দেখতে পায়। এসময় অভিযান পরিচালনা করে তাদের মধ্য ১-১০ নং আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। অপর আসামীরা পালিয়ে যায়। তাদের মধ্যে সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিন, মহানগর বিএনপির সহসভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান, মহানগর যুবদলের সভাপতি ও কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, ফতুল্লা থানা বিএনপির সেক্রেটারী আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, মহানগর বিএনপি নেতা মো: হাসান, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, জেলা বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার, বিএনপি নেতা নাদিম হাসান মিঠু, সাইদুর রহমান রিপন, সিরাজ, বাবলা, আবু কাশেম, সালাউদ্দিন, মেজবা উদ্দিন দুলাল, বোরহান বেপারী, একরামুল কবির মামুন, সেলিম চৌধুরী কমল, আরিফুর রহমান, সুমন আকবর, আল আমিন সিদ্দিকী, দিদার হোসেন, আবুল কালাম আজাদ, মনির হোসেন, আমির হোসেন, কায়েস আহম্মদ পল্লব, মনির, জনি, পরান, জুয়েল, নুর উদ্দিন, আইয়ুব আলী মুন্সি, বাবু, হিরা, আমজাদ।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের মামলা দায়েরের বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এম এ আকবরকে নাশকতারকারী আসামী করা হলেও তাদেরকে বিকেলেই গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু মামলার অভিযোগে বলা হচ্ছে, ‘রাত ৭ টা ৫৫ মিনিটে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা ফতুল্লা কাশিপুর এলাকায় যানবাহন সহ বিভিন্ন স্থাপনায় ভাংচুর চালায়। এতে করে বিএনপি দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ফের গায়েবী মামলার বিষয়টি আরো জোড়ালো হচ্ছে।

জানা গেছে, ৫ নভেম্বর সোমবার বিকেল সোয়া ৫টায় শহরের চাষাঢ়া এলাকা থেকে মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এম এ আকবরকে গ্রেফতার করা হয় শিবু মার্কেট এলাকা থেকে। সেটাও বিকেল ৫টায়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ