১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ , ৩:০৪ অপরাহ্ণ

UMo

আইভীকে অনুরোধে সরলো জয়নালের ব্যানার!


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৪৭ পিএম, ৭ নভেম্বর ২০১৮ বুধবার


আইভীকে অনুরোধে সরলো জয়নালের ব্যানার!

জাতীয় পার্টির নেতা আল জয়নাল ইস্যুতে সেলিম ওসমানের দেয়া ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম নীরবে পালন করা হয়েছে। শহরের যে সকল স্থানে মেয়র আইভীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে আল জয়নালের ব্যানারগুলো সাঁটানো ছিলো সে স্থানগুলো সরেজমিনে ঘুরে এসে এমনটাই চিত্র নজরে পড়েছে নিউজ নারায়ণগঞ্জের প্রতিবেদকের। কিন্তু সেই ব্যানারগুলো খুলে ফেলার কাজ হয়েছে রাতের আঁধারে ফলে ব্যানারগুলো নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন পক্ষ থেকেই অপসারণ করা হয়েছে কীনা সে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে নাসিকের বহুদিনের চেষ্টার পর ৯ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রাণের দাবি কদমরসুল সেতুর প্রকল্প পাশ হয়। যার পরবর্তীতে এই বিষয়টিকে ইস্যু করে ১৬ অক্টোবর জাতীয় পার্টির নেতা আল-জয়নাল শহরের গুরুত্বপূর্ণ কিছু স্থানে মেয়র আইভীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে কিছু ব্যানার সাঁটিয়ে দেন। সে ব্যানারগুলো নিয়েই পরবর্তীতে প্রশ্ন তুলেন নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান।

৫ নভেম্বর সদর উপজেলায় অবস্থিত সৈয়দপুর বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের নব নির্মিত বহুতল ভবন উদ্বোধনকালে মেয়রকে উদ্দেশ্য করে বলেন, তার পাশে আওয়ামীলীগের কোনো নেতাকর্মী দাঁড়াতে চান না। কারণ নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের একজন নেত্রী সেটা সহ্য করেন না। কিন্তু তিনি ভালোবাসার রাজনীতি করেন প্রতিহিংসার রাজনীতি করেন না।

এর পরপরই আল জয়নালের দিকে ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি চাষাঢ়া থেকে আসার সময়ে ১৮টি ব্যানার দেখেছি একজনের যিনি জমি দখলকারী। তিনি লাঙল প্রতীক নিয়ে জাতীয় পার্টি হতে নির্বাচন করতে চান। তাকে আমরা জাতীয় পার্টির কোন সমর্থকও পরিচয় দেই নাই। আপনার ছবি দিয়ে সে ছবি লাগিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। পোস্টার ছাপিয়েছে। কিন্তু আমার কোন ব্যানার থাকে না। আমার নামে পোস্টার লাগালে আমি মামলা করেছি। আমার অনুমতি ছাড়া কোন ব্যানার পোস্টার লাগানো যাবে না। কিন্তু তার পরেও আমার ব্যানার পোস্টার লাগানোর সাথে সাথেই সিটি কর্পোরেশন ঠাস করে খুলে নামিয়ে ফেলে। সেখানে সিটি করপোরেশনের একজন কন্ট্রাকদারের পোস্টার সাঁটিয়ে দেয়। আমি মেয়র মহোদয়কে অনুরোধ করলাম আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যেন কোন পোস্টার না থাকে।’

সূত্র বলছে, স্বাভাবিক নিয়মে প্রতি সোমবার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা কিছু কিছু ডিজিটাল ফেস্টুন বা ব্যানার বাদ রেখে শহরে লাগানো ব্যানার ও ডিজিটাল ফ্যাস্টুন খুলে ফেলেন। মূলত যেগুলো খোলা হয় না তা শহরের কোথায় কোথায় লাগানো হবে সেই অনুমতি ব্যানারগুলো লাগানোর পূর্বেই সিটি কর্পোরেশন থেকে নিয়ে রাখতে হয়।

কিন্তু সিটি কর্পোরেশনে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে আল জয়নালের ব্যানার শহরে লাগানোর জন্য সিটি কর্পোরেশনের কোনো অনুমতি নেয়া হয়নি। তাই সচেতন ভাবেই ব্যানারগুলো ১৬ অক্টোবর লাগানো হয়। যে দিনটি মঙ্গলবার ছিলো। অর্থাৎ নাসিক পুনরায় একল ব্যানার উচ্ছেদের অভিযান চালানোর কথা ছিলো তারও ৭ দিন পর।  অর্থাৎ ২২অক্টোবর। কিন্তু ২২ অক্টোবরের পরেও ব্যানারগুলো যথাস্থানেই দেখা যায়। যার পরবর্তীতে ৫ আসনের সংসদ সদস্য বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেন।

এদিকে সংশ্লিষ্টদের মতে, আওয়ামী লীগের পৃষ্ঠপোশকতায় বেড়ে উছেন জয়নাল। তাঁর বিরুদ্ধে আছে ভূমিদস্যুতার একাধিক অভিযোগ। আছে জামায়াত ও শিবিরকে পৃষ্ঠপোশকতার অভিযোগও। সদর উপজেলার ফতুল্লায় কাতার প্রবাসীর স্ত্রীর জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগে আল জয়নালের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দখলকৃত জমি থেকে কাতার প্রবাসীর স্ত্রী সুরাইয়া বেগমকে উচ্ছেদ করতে নানা ধরনের হুমকি দেয়ার কারণে থানায় সাধারন ডায়েরী দায়ের করেছে। ১০ অক্টোবর দুপুরে ফতুল্লার হরিহরপাড়া গুলশান রোড এলাকার আব্দুল ওহাবের স্ত্রী সুরাইয়া বেগম বাদী হয়ে আল জয়নালের বিরুদ্ধে সাধারন ডায়েরী দায়ের করে।

ফতুল্লায় জীবিত ব্যক্তিকে মৃত দেখিয়ে আম মোক্তার নামা দলিল করে  জমি দখলের অভিযোগে জামায়াতে ইসলামের পৃষ্ঠপোশকতাকারী আল জয়নাল সহ তার অনুগামী ৬ জনের বিরুদ্ধে প্রতারনা মামলায় ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। উপেন্দ্র চন্ত্র সাহা বাদী হয়ে মামলা করলে গত ৪ এপ্রিল জেলা চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বিবাদী আল জয়নাল সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করা হয়।

এছাড়াও সর্বশেষ ৪ নভেম্বর সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় আল জয়নালের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা হয়।

অন্যদিকে আল জয়নাল সম্পর্কে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আব্দুুল কাদিরের বেয়াই। আর কাদির হলেন আইভীর বোন জামাতা। ফলে জয়নালের লাগানো ব্যানার নিয়ে সাংসদ সেলিম ওসমান প্রশ্ন তোলার পর থেকেই সেই হিসেব নিকেশগুলো পরিষ্কার হয়ে উঠে। আবার সাংসদের অভিযোগ তার ব্যানার খুলে সেখানে সিটি কর্পোরেশনের কন্টাকদারের ব্যানার লাগানো হয়। এ বিষয়গুলো প্রকাশ্যে আসতে শুরু করলে বিপাকে পরেন মেয়র। যার পরবর্তীতে জয়নালের সে ব্যানারগুলো সরিয়ে ফেলা হয়।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ