কৌশলে এগিয়ে আওয়ামীলীগ, এখনও পিছিয়ে বিএনপি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৫ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ রবিবার



কৌশলে এগিয়ে আওয়ামীলীগ, এখনও পিছিয়ে বিএনপি

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফিসল ঘোষণার পর থেকেই সরব হয়ে উঠেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ও মামলায় আত্মগোপনে থাকা বিএনপি। তফসিল ঘোষণার পর থেকে কেন্দ্রীয় কার্যালয়মুখী রয়েছেন নেতাকর্মীরা। দুই দলেরই অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনের জন্য সংগ্রহ করেছেন দলের মনোনয়ন ফরম। এর মধ্যে সেইসব ফরম জমাও দিয়েছেন।

তফসিল ঘোষণার পর আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত দুই দলের কেউ নির্বাচনী কর্মকান্ড না করতে পারলেও নিজ নিজ কৌশলে ঠিকই কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। তবে এ ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছি বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। এখনও পর্যন্ত তারা নিজ নির্বাচনী এলাকায় যেতে পারছেন না অনেকেই। তাছাড়া জামিনা পেয়েও একাধিক মামলা থাকায় এখন কারাভোগ করছেন আরো কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৩০ ডিসেম্বর সারাদেশে একদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচনের দুইদিন আগে বন্ধ হয়ে যাবে সকল দলের প্রচার প্রচারণাও। এ হিসেবে তফসিল ঘোষণার আগে থেকেই নির্বাচনকে টার্গেট করে মাঠে নামে আওয়ামীলীগ। বছরের শুরু থেকে প্রচার প্রচারণা ও উন্নয়ন কর্মকা- নিয়ে নেতাকর্মীরা সাধারণ মানুষের কাছে যেতে শুরু করেন। এছাড়াও সংসদীয় আসনে উন্নয়ন তালিকা নিয়ে পোস্টার ব্যানার সাইনবোর্ড সহ একাধিক কৌশলে বার্তা প্রদান করা। শুধু তাই নয় নির্বাচনের বছরেই নারায়ণগঞ্জের ৫টি সংসদীয় আসনে একাধিক উন্নয়ন প্রকল্পেরও উদ্বোধন করা হয়েছে। এছাড়াও রয়েছেন নগরিক চাহিদা অনুযায়ী উন্নয়নের আশ্বাসও।

সেই তুলনায় বিএনপির কোন চিহ্ন বা ভোটার কাছে যাওয়ার তৎপরতাও দেখা যায় না। দুইএকজন বিএনপির সিনিয়র নেতা সেই প্রক্রিয়া শুরু করলেও তাদের নামে মামলা ও পুলিশের গ্রেফতার অভিযানে তাও বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া বছরের শুরু থেকে নাশকতা ও বিস্ফোরক মামলায় নারায়ণগঞ্জের প্রতিটি থানায় শতাধিক নেতাকর্মী আসামী ও গ্রেফতার হয়ে কারাগারে থাকতে হয়েছে।

তবে সেসব মামলাগুলো ‘গায়েবী’ মামলা বলেও দাবি করেন বিএনপির নেতারা। কিন্তু এসব গায়েবী মামলা বিএনপির জেলার পর্যায়ে সিনিয়র নেতা থেকে তৃণমূলের কর্মী পর্যন্ত সর্বনি¤œ ৩টি সর্বোচ্চ অর্ধশতাধিক মামলা রয়েছে। ফলে বিএনপির অনেক নেতাই এলাকা ছাড়া। অনেকেই গোপন স্থান থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তবে হঠাৎ করে দলীয় ঘোষণা আসার পর থেকেই বিএনপির নেতাকর্মীরা মামলাগুলোর বিষয়ে উচ্চ আদালত থেকে ৮ সপ্তাহের জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরতে শুরু করেছেন। তবে তাও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বের হতে পারছেন না। 

এদিকে তফসিল ঘোষণার পর আওয়ামীলীগের দলীয় ফরম বিক্রি পর থেকেই আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত। নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে শতাধিক আওয়ামীলীগ নেতা ফরম গ্রহণ করেছেন। আর প্রত্যেকেই নিজ নিজ অবস্থান থেকে নৌকার পক্ষে মিছিল ও ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন। যা অনেক ক্ষেত্রে গণমাধ্যমেও আসছে না। এদের মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান গত কয়েকদিন ধরে টানা কর্মসূচি পালন করে আসছেন। যেখানে কয়েকশতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। তাদের গণসংযোগে নৌকা সাজিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। কৌশলে কারছেন সভা ও পথ সভাও। এছাড়াও আওয়ামীলীগের নৌকার পক্ষে কাউন্সিলররাও রয়েছেন মিছিল ও সংযোগের তালিকায়। বিএনপির নেতাকর্মী গণসংযোগ করার আগেই শেষ করতে চাইছেন আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। ফলে এখনই কোন ঝুট ঝামেলা ছাড়া নির্দিষ্ট এলাকা বা বিএনপির ভোটার এলাকাগুলোতেও ঘুরতে পারছেন।

অন্যদিকে বিএনপি মামলায় জামিন নিলেও কোন কর্মসূচি দেখা যায়নি। এখন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি তৈমূর আলম খন্দকার বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক ও সভা করেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মিছিল ও র‌্যালী করেন। এছাড়া আর কোন বিএনপির নেতাকর্মীদের দেখা যায় না কোন নির্বাচনী কর্মকান্ডে। সকলই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের পর নিজ নিজ অবস্থানে নিরব পর্যবেক্ষক হিসেবে রয়েছে। ফরম সংগ্রহ করতে হাজারো নেতাকর্মী নিয়ে গেলেও একটিও কর্মসূচি দেখা যায়নি।

বিএনপির নেতাকর্মীদের দাবি, তাদের লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড দেওয়া হচ্ছে না। মূলত রাস্তা বের হলেই পুলিশ কোন ঘটনা ছাড়াই গ্রেফতার করে মামলা দিচ্ছে। এজন্য নেই নির্বাচন কমিশনের কোন ঘোষণাও। ফলে তারা নির্বাচনী কর্মকান্ড থেকে বঞ্চিত হ”েচ্ছ। অন্য দিকে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা ঠিকই তাদের প্রচারণা ও ভোটারদের সঙ্গে সংযোগ রেখে যাচ্ছেন। সেই অনুযায়ী বিএনপি ভোট চেয়ে কোন ব্যানার ঝুলাতে পারছেন না।

বিএনপির নেতাকর্মীরা আরো জানায়, বছরের শুরু থেকেই নির্বাচন নিয়ে বিএনপির তেমন কোন আয়োজনই ছিল না। আর কেন্দ্র থেকেও সে ধরনের কোন নির্দেশনা ছিল না। এমনকি নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে সেটাও কেউ বলতে পারেনি। তফসিল ঘোষণার কিছুদিন আগে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে কথা বলা শুরু করেন। পরে হঠাৎ করে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেন বিএনপি। সেই থেকে বিএনপি নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু করে। ফলে আওয়ামীলীগ কিংবা অন্যান্য দলের চেয়ে বিএনপি পিছিয়ে রয়েছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও