হাকডাক করেও মিইয়ে যেতে হচ্ছে ইকবাল পারভেজকে

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৯ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ সোমবার



হাকডাক করেও মিইয়ে যেতে হচ্ছে ইকবাল পারভেজকে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচার প্রচারণার শুরু থেকেই নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আলোচনায় ছিলেন ইকবাল পারভেজ। দলীয় প্রার্থী হিসেবে বর্তমান সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুকে কোনভাবেই ছাড় দিতে রাজী ছিলেন না তিনি। কিন্তু নির্বাচনের কাছাকাছি সময়ে এসে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নজরুল ইসলাম বাবুর নাম আসায় হাকাডাক করেও মিইয়ে যেতে হচ্ছে ইকবাল পারভেজকে।

সূত্র বলছে, ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন বিএনপি নেতা আতাউর রহমান আঙ্গুর। পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনটি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আওয়ামীলীগের দখলে নেয়। একই সাথে ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি।

এরই মধ্যে ঘনিয়ে আসে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই সংসদ নির্বাচনেও নারায়ণগঞ্জ-২ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে প্রচারণা চালাতে থাকেন। কিন্তু তার দলীয় মনোনয়ন ঠেকাতে তৎপর ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের তথ্য ও যোগাযোগ বিষয়ক সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পদক ইকবাল পারভেজসহ আরো কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী।

তবে সকল মনোনয়ন প্রত্যাশীর তুলনায় সংসদীয় এলাকায় ইকবাল পারভেজের তৎপরতা ছিল সবচেয়ে বেশি। প্রায় বছর দুয়েক আগে থেকেই তিনি প্রচার প্রচারণা চালাতে থাকেন। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো দলীয় শোডাউন কিংবা নির্বাচনী সভা সমাবেশ বেরিয়েছেন। বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে তার সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছিল। সংসদীয় এলাকায় ব্যানার ফেস্টুন সাঁটিয়ে নিজেকে নতুনভাবে পরিচিত করার চেষ্টা চালিয়েছেন। একই সাথে দলীয় এমপিকেও বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত করেছিলেন।

এরই মধ্যে গত ৮ নভেম্বর জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছেন। সেই তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৩ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা বললেও পরবর্তীতে নির্বাচন কমিশন সেই সময় পিছিয়ে আগামী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করেছেন। একই সাথে মনোনয়পত্র দাখিলের শেষ সময় নির্ধারণ করেছেন ২৮ নভেম্বর।

সেই তফসিল ঘোষণার পরদিন থেকেই আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রয় করা শুরু করে। তার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বর্তমান সংসদ সদস্য এমপি নজরুল ইসলাম বাবু, সাবেক রাষ্ট্রদূত মমতাজ হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল পারভেজ ও মোজাহিদুল ইসলাম হেলো সরকার।

এসকল মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সূত্র ধরে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী বাছাই শুরু করে। বাছাইপর্বে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার সাথে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।  যেখানে নেত্রী বলে দিয়েছেন মূলত দলের ত্যাগী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে যার যোগাযোগ বেশি সেই হবেন আগামী নির্বাচনে নৌকার মাঝি। দল যাকে ঘোষণা দিবে তার পক্ষেই কাজ করতে হবে। বিরুদ্ধে গেলে আজীবন দল থেকে বাদ। তাই সবাইকে দলের পক্ষে কাজ করতে হবে।

এদিকে দেশের একটি প্রভাবশালী জাতীয় দৈনিকে বিভিন্ন আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করেছে, যেখানে নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে নজরুল ইসলাম বাবুর নাম রয়েছে। ফলে বাবুর শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী ইকবাল পারভেজকে হাকডাক করেও মিইয়ে যেতে হচ্ছে। এমপি বাবুর বিরুদ্ধে একের পর এক সভা সমাবেশ করেও সবশেষে তাকে বাবুর পক্ষেই কাজ করতে হচ্ছে। অন্যথায় দলীয় শৃঙ্খলাবোধের দায়ে তাকে বহিস্কারের পথ বেছে নিতে হবে।

এছাড়া ইকবাল পারভেজের বিরুদ্ধে রয়েছে বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ। দুর্নীতি কমিশন সূত্রে জানা যায়, গুলশান, বনানী ও মতিঝিল এলাকায় সরকারের পরিত্যক্ত সম্পত্তি বিভিন্ন সিন্ডিকেটের যোগসাজশে ভুয়া মালিক সাজিয়ে বিক্রি করে দেন তিনি। পাঁচ বছরে রাজধানী ও আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় তিনি বিপুল পরিমাণ জমি কিনেছেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও