মনোনয়ন যুদ্ধে অনিশ্চয়তা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩১ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার



মনোনয়ন যুদ্ধে অনিশ্চয়তা

নারায়ণগঞ্জ-১ (রুপগঞ্জ) আসনে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন ইস্যুতে আওয়ামীলীগ দলে বেশ গোলমেলে পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। অন্য সবগুলো আসনের চেয়ে এই আসনে দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চিত্র। এই আসনটিতে আওয়ামীলীগের রেকর্ড পরিমাণ মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করা হয়েছে। তার মধ্যে উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালন করা অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছে। আর কেন্দ্রীয় সূত্র অনুযায়ী এসব প্রার্থীদের মনোনয়ন দেয়া হবেনা। এছাড়াও আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে কে মনোনয়নের হাসি হাসবে তা একেবারে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কাউন্টডাউন শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে তফসিল ও পুণরায় তফসিল ঘোষণার মধ্য দিয়ে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় আগামী ৩০ ডিসেম্বর ধার্য করা হয়েছে। প্রথম তফসিলের পর থেকেই আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ ও জমাদানের কাজ সম্পন্ন করেছেন। এদিকে কে পেতে যাচ্ছে মনোনয়ন তা নিয়ে আলোচনা গুঞ্জনের অন্ত নেই।

এদিকে ১৪ নভেম্বর দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শরীক দলের সাথে আসন ভাগাভাগি সহ দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ব্যাপারে কথা বলেন। আওয়ামীলীগের কোন ধরণের নেতারা মনোনয়ন পাবেনা তা স্পষ্ট করে দেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি কপোর্রেশনের পদে থেকে যারা আবেদন করেছেন তারা মনোনয়ন পাবেন না। বিশেষ কোনো প্রয়োজন ছাড়া দল তাদের মনোনয়ন দেবে না।

আসন ভাগাভাগির বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মহাজোটের শরিকদের ৭৫টি আসন ছেড়ে দেয়া হবে। জাতীয় পার্টিসহ মহাজোটের শরিকদের তালিকা অনেক আগেই পেয়েছি। আমাদের দলের তালিকা চূড়ান্ত করছি। এরপর শরিকদের সঙ্গে বসবো।

এই আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহকারী নেতাদের মধ্যে অনেকে বাদ পড়ে যাবে তার দলের সাধারণ সম্পাদকের কথা অনুযায়ী। আর সেই শর্ত অনুযায়ী এই আসনের হেভিওয়েট অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশী বাদ পড়ে যাবে। ৩২ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রমের মধ্যে ৬ জন এই মনোনয়ন থেকে ছিটকে পড়বে। তারা হল, কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও রংধনু গ্রুপের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রফিক, সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাজাহান ভূইয়া, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাবিবুর রহমান হারেজ, দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও দাউদপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভূইয়া রানু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলা।

এছাড়া এই আসনে মূলত সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজী ও রংধনুর চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রফিকের মধ্যে চরম দ্বন্দ্ব কোন্দল দেখা গেছে। আর সেই কোন্দাল অনেক সময় প্রকাশ্যে সংঘর্ষে রুপ নেয়। যেকারণে এই আসনের আওয়ামীলীগের রাজনীতি দুভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে তফসিল ঘোষণার কয়েকমাস আগে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আরো কয়েকজন আওয়ামীলীগে নেতাদের একটি বলয় জেগে উঠে। তারাও নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা চালায়। এতে করে এই আসনের আওয়ামীলীগ তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। কিন্তু কারো মনোনয়ন কোনভাবে নিশ্চিতের কোন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছেনা। আর দলের মধ্যে এতো দ্বন্দ্ব কোন্দলের চিত্র এই আসনের মনোনয়ন প্রার্থী চূড়ান্ত করতে নানা বাধা সৃষ্টি করছে।

এদিকে এই আসনটিতে বর্তমানে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীর তালিকায় নাম রয়েছে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। যা সমগ্র নারায়ণগঞ্জ জুড়েই চমক সৃষ্টি করেছে। এছাড়াও স্থানীয় জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতা সাইফুল ইসলামও দলের মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। পাশাপাশি ইসলামী মহাজোট থেকে আসা আবু হানিফ হৃদয়, কাউসার আহমেদ অপুও রয়েছেন প্রার্থীতার তালিকায়।

যে কারণে অত্র আসনে তফসিল ঘোষণার আগে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বেশ সরব থাকলেও বর্তমানে মহাজোটের সমীকরণ ইস্যুতে অনেকটাই নিস্ক্রিয় বলা চলে। তাই এই আসনে মনোনয়ন সমীকরণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এতে করে মনোনয়ন ইসুতে কোন কুল কিনারা দেখা যাচ্ছেনা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘এই আসনে আওয়ামীলীগ আওয়ামীলীগের বিরোধী হয়ে উঠেছে। মনোনয়ন ইস্যু সহ সব সময় এই আসনে বেশ দ্বন্দ্ব কোন্দলের চিত্র দেখা গেছে। পাশাপাশি রয়েছে মহাজোটের সমীকরণ। যেকারণে এই আসনের কোন নেতা চূড়ান্ত মনোনয়ন তালিকায় জায়গা করে নিতে পারেনি। এর ফলে এই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বেশ অনিশ্চয়তার দিকে এগোচ্ছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও