একাদশ নির্বাচন ‘যুদ্ধ’ ঐক্যবদ্ধ ভাবে নামতে তারেক রহমানের নির্দেশ

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০১:১৯ এএম, ২২ নভেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার



একাদশ নির্বাচন ‘যুদ্ধ’ ঐক্যবদ্ধ ভাবে নামতে তারেক রহমানের নির্দেশ

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে `দ্বিতীয় যুদ্ধ` হিসেবে আখ্যায়িত করে তা সফল করতে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ ভাবে যুদ্ধে নামার নির্দেশ দিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান (সিনিয়র ভাইস) তারেক রহমান। তবে যুদ্ধকে সহিংসতা নয় বরং শান্তিপূর্ণ ভাবে গণমানুষের সমন্বয় ঘটিয়ে জয় লাভ করার জন্য আহবান করেন। একই সঙ্গে দল থেকে যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে তার জন্য অতিতের সকল বিভেদ ও রাগ অভিমান ভুলে কাজ করার জন্য নির্দেশ দেন তিনি।

বুধবার ২১ নভেম্বর রাতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় ভিডিও কনফারেন্সে নারায়ণগঞ্জ জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতাদের সঙ্গে এসব কথা বলেন তিনি। সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণকারী নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনের বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা  মোবাইলে নিউজ নারায়ণগঞ্জ প্রতিবেদককে এসব কথা জানান।

বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডে রয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরুদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

আগামী নির্বাচনের জন্য বুধবার শেষদিন ছিল নারায়ণগঞ্জ জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে তারেক রহমান ও মনোনয়ন বোর্ডের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠান।  জেলার ৫টি আসনে ৪৪ জন দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহকারী নেতা ওই সাক্ষাৎকার গ্রহণে দুপুর থেকে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ের সামনে অপেক্ষা করেন। ঢাকা বিভাগের অন্যান্য জেলার সাক্ষাৎকার শেষে রাত ১০টা ৫মিনিটে নারায়ণগঞ্জের ৪টি (নারায়ণগঞ্জ-১,২,৪ ও ৫) আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা রুমে প্রবেশ করেন। প্রায় ২০মিনিট পর তারা বের হয়ে আসলে পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের মনোনয়ন প্রত্যার্শীরা ভিতরে প্রবেশ করেন। রাত ১০টা ৫৫মিনিটে তারেক রহমান ও মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎকার শেষে বের হয়ে আসেন।

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা জানান, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দুই ভাবে নারায়ণগঞ্জের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলেন তারেক রহমান। ওইসময় নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা তৈমূর আলম খন্দকার ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল জেলার নেতাকর্মীদের পক্ষে এক মিনিটের বক্তব্য রাখেন। তারা সারাদেশের মতো নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের বর্তমান অবস্থান, মামলা, নির্যাতন ও কারাগার জীবন সম্পর্কে তুলে ধরেন। পরে তাদের কথায় তারেক রহমান আবেগে আপ্লুত হয়ে পরেন। এবং দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ ভাবে দ্বিতীয় যুদ্ধ সফল করার নির্দেশ দেন।

তারা জানান, তারেক রহমান বলেছেন, আগামী নির্বাচন দ্বিতীয় যুদ্ধ। এ যুদ্ধে দেশের গণতন্ত্র, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, মানুষের ভোটের অধিকার সহ দেশকে রক্ষায় সকল বিভেদ ভুলে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। তবে সেটা হবে শান্তিপূর্ন কর্মসূচির মাধ্যমে। এতে দেশের মানুষকে মাঠে নামাতে হবে। শান্তিপূর্ণ ভাবে এ কর্মসূচি সফল করতে হবে।

কথার এ পর্যায়ে তারেক রহমান বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূঁইয়া দিপুর রূপগঞ্জের বাড়িতে বিএনপির ঈদপূর্ণমিলনী ও ৩০ হাজার লোকের জন্য আয়োজিত মেজবানী অনুষ্ঠান পুলিশ বন্ধ করে দেওয়ার দুঃখ প্রকাশ করেন।  তখন তিনি দিপু ভূঁইয়াকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, আপনার বাস ভবনে ঈদপুণর্মিলনীর আয়োজন পুলিশ বন্ধ করে দিয়েছে। এটা দুঃখজনক। এজন্য তিনি নিন্দা জানান।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, তারেক রহমান আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন এখন দেশের অবস্থা কি, আপনারা কি চান, কেন নির্বাচন করতে চান? এর প্রেক্ষিতে অনেকেই কথা বলেছেন। তবে আমি বলি, আমরা একটি গণতান্ত্রিক যুদ্ধের ময়দানে আছি। যুদ্ধে জয় করার জন্য যেসব পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন তা করা দরকার।  তখন তিনি (তারেক রহমান) আমার কথার সঙ্গে একমত পোষন করেন।  তিনি (তারেক রহমান) বলেন, আমরা একটা গণতান্ত্রিক যুদ্ধে লিপ্ত হয়ে পরেছি। গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হবে। গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হবে। এ পরিকল্পনা মতো আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। জনগনকে সাথে নিয়ে, জনগনকে পাশে রেখে, জনগনকে সম্পৃক্ত করে আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে। ভয় পেলে চলবে না।

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, আমি বলেছি এটা আমাদের জন্য নির্বাচন না। এটা দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ। প্রথম মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়ার রহমান স্বাধীনতার ঘোষণার মাধ্যমে তখন আমরা প্রথম মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম। এখন দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ হবে দেশ মাতা বেগম খালেদা জিয়া এবং আপনার নেতৃত্বে। আমাদের দেশের মানুষের ভোটাধিকার নাই, তাদের বাকস্বাধীনতা নাই, দেশ মাতা কারাগারে, আপনি আজ দেশে নাই, আজকে দেশে হাজার হাজার মানুষ বাড়িঘর ছাড়া, রাষ্ট্রের সকল স্তম্ভকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। আজকে দেশে সকল কিছু বিপন্ন, দেশে আজ মৌলিক অধিকার নেই। সেখানে এটা আমাদের জন্য দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ। আর এ দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধে আমাদের বাবা, মা, সন্তান সহ সবাইকে নিয়ে ঝাপিয়ে পড়তে হবে। এদেশ ও দেশের সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্রকে সুসংহত করতে হবে।

তিনি বলেন, আমার বক্তব্যের সূত্র ধরে তারেক রহমান আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন, এখন আমাদের সকলকে সকল মত পার্থক্য ও বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এ দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধে একেকজনকে যোদ্ধা হিসেবে কাজ করতে হবে। কি যুদ্ধ? সেটা হলো শান্তিপূর্ণ ও এ দেশের সকল মানুষকে রাজপথে নামানো। এ হচ্ছে অপশক্তির বিরুদ্ধে ও অপশক্তির বিরুদ্ধে শুভ শক্তির বিস্ফোরণ ঘটাতে হবে।

তারেক রহমান আমাদের আরো বলেন, আগামী দুই মাস আমাদের মধ্যে যত ভুল বুঝাবুঝি আছে সব কিছু বলে যেতে হবে। দেশকে রক্ষা করার জন্য, দেশ মাতাকে মুক্ত করার জন্য, মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য, দেশের সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্রকে সুসংহত করার জন্য আমাদেরকে কাধে কাধ মিলিয়ে মাঠে নামতে হবে। আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, তারেক রহমান আমাদের বলেছেন, যেহেতু নির্বাচন আমাদের জন্য দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ সেহেতু প্রতিটি আসনে একজন কমান্ডার নিধার্রণ করে দিবেন। তার নির্দেশে আমাদের আগামী যুদ্ধ সফল করতে হবে। এবং দল থেকে যাদের মনোনয়ন দেয়া হবে তার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। এসময় দল সকল নেতকর্মীদের মান অভিমান, বিভেদ ও ভুল বুঝাবুঝি ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। আগামী যুদ্ধ সফল হতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম সজল বলেন, দলের নেতাকর্মীদের সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনী যুদ্ধে ঝাপিঁয়ে পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তবে তিনি নির্দিষ্ট কোন প্রার্থীর নাম বলেননি।

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসন থেকে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ৪৪ জন নেতাকর্মী। যার মধ্যে নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনে ৭জন, নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে ৪জন, নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনে ২০জন, নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে ৬জন ও নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর ও বন্দর) আসনে ৭জন।

নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসন হলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু, রূপগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহফুজ্রু রহমান হুমায়ন, বিএনপি নেতা নাসিরউদ্দিন, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ সভাপতি দুলাল আহমেদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আনোয়ার সাদাত সায়েম।

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে হলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম আজাদ, মাহমুদুর রহমান সুমন, সাবেক এমপি আতাউর রহমান আঙ্গুর, জেলা ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহমুদউল্লাহ।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনে হলেন, সাবেক এমপি অধ্যাপক রেজাউল করিম, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, সোনারগাঁও থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফর, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সোনারগাঁও থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম মান্নান, কেন্দ্রীয় নেতা অলিউর রহমান আপেল, সোনারগাঁও বিএনপির সহ সভাপতি রিয়াজ উদ্দীন আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম টিটু, কাঁচপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী সেলিম হক, ছাত্রদলের সাবেক নেতা আজিজুল হক আজিজ, নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান স্বপনসহ ২০ জন।

নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে হলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি শিল্পপতি শাহ আলম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ (বর্তমানে নাশকতা মামলায় কারাগারে), জেলা বিএনপির সহ সভাপতি পারভেজ আহমেদ, জেলা বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার, ফতুল্লা থানা বিএনপির সহসভাপতি ও কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম সেন্টু।

নারায়ণগঞ্জ ৫ (সদর ও বন্দর) আসনে হলেন, মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আবুল কালাম, মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, মহানগর যুবদলের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, মহানগর বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম সজল, সাবেক ছাত্রদল নেতা এম এইচ মামুন, আইনজীবী নেতা সুলতান মাহমুদ, মহাগর ছাত্রদলের সহ সভাপতি রাফিউদ্দিন রিয়াদ।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও