যুবদল নেতা পরিচয় দিতে লজ্জা লাগে : খোরশেদ

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪০ পিএম, ৭ মার্চ ২০১৯ বৃহস্পতিবার

যুবদল নেতা পরিচয় দিতে লজ্জা লাগে : খোরশেদ

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেছেন, লজ্জা লাগে যখন নিজেকে যুবদলের নেতা পরিচয় দেই। যার জন্য এই মান ইজ্জত পাইলাম, যার জন্য শহরের লোকজন চিনে সেই বেগম খালেদা জিয়া আজ জেলে সাধারণ কয়েদির মত জীবন কাটাচ্ছে। দলের কোন নেতার এ নিয়ে মাথা ব্যাথা নাই। তারা শুধু কমিটি আর মনোনয়ন কিভাবে বিক্রি করতে পারবে সেই চিন্তা সারাক্ষণ। এমন চলতে চলতে বিএনপি আজ ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত হয়েছে। তা না হলে বেগম খালেদা জিয়া জেলে থাকার পরে আমরা কিভাবে বিএনপির পরিচয় দেই।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে নজরুল ইসলাম ও ইব্রাহিম সরদারের স্মরণসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, নেতাকর্মীদের রাজনীতি করতে দেন আর এমপি যাদের বানাতে মনে চায় তাদের আলাদা রাখেন। তখন যাকে খুশি তাকেই মনোনয়ন দিয়েন আমাদের তাতে আপত্তি নাই। কিন্তু শুধুমাত্র এমপি কেন্দ্রীক দল করতে গিয়ে দলের আজকে ১২টা বেজে গেছে। মনে রাখবেন রাজপথ ছাড়া কোন মুক্তির আন্দোলন সফল হয় নাই। আজকে সেই রাজপথের নেতাদের নিস্ক্রিয় রেখে ফুটপাতের নেতাদের নেতৃত্ব দেয়া হয়েছে। কয়েকদিন পর পর মানববন্ধন, অনশন, কালো ব্যাজ ধারণ এসব কোন রাজপথের কর্মসূচীন না। আজকে স্পষ্ট করে বলতে চাই আজ সারাদেশে বিএনপি ব্যার্থ কেন্দ্রীয় বিএনপিও ব্যার্থ। আমরা শুধু মুখে মুখেই মা বলি, নেত্রীর প্রতি বিন্দুমাত্র দায়বদ্ধতা নেই আমাদের। এই কথা বলার জন্য যদি অবাঞ্ছিত হতে হয় তাতেও আমার কোন আপত্তি নাই।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের উদ্দেশ্যে খোরশেদ বলেন, আমরা আপনার কাছে একটা সমাধান চাই। আমরা বছরের পর বছর মামলা জেল জুলুমের শিকার হই আর আরেক গ্রুপ আরাম আয়েশে থাকে। তারা জাতীয় পার্টি আওয়ামীলীগের সাথে নির্বাচন করে আবার বিএনপি নেতারও পরিচয় দেয়। দুই দল করে বিধায় পুলিশের হয়রানী থেকে বেঁচে যায়। তারাও বিএনপি আমরাও বিএনপি। যেই বাজারে তেল আর ঘি এর দাম এক হয় সেই বাজারে বিচার থাকেনা। আর বিচারহীনতার কারণে আজকে দলের এই অবস্থা। আমাদেরও অনুমতি দিয়ে দেন আমরাও দুই দলে যোগ দেই। অন্যথায় এমন চলতে থাকলে দলে নতুন নেতৃত্ব জন্মহবে না, জন্মহবে চাটুকারের। সুতরাং দলের প্রয়োজনে নতুন নেতৃত্ব আনার চেষ্টা করেন।

সভায় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা তৈমূর আলম খন্দকার, মহানগর বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম, শ্রমিকদল নেতা সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিম, মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, যুগ্ম আহ্বায়ক নাদিম চৌধুরী, জেলা শ্রমিক দল নেতা মন্টু মেম্বার প্রমুখ।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও