শেখ হাসিনার নির্দেশ মানে না খোকা সহ আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যানরাও

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৩ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৯ বৃহস্পতিবার

শেখ হাসিনার নির্দেশ মানে না খোকা সহ আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যানরাও

আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাচন। এই নির্বাচনকে ঘিরে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ তাদের দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছেন। একই সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন কমিশনও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র বাছাই ও প্রতিক নির্ধারণ করেছেন। তবে এবারের সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় নির্দেশনা মানছে না সংশ্লিষ্ট এমপি সহ আওয়ামীলীগের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। তারা সকলে মিলে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন এবং আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিককে ডুবানোর প্রচেষ্টায় রয়েছেন।

সূত্র বলছে, প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে উপজেলা নির্বাচন। তার ধারাবাহিকতায় আগামী ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপের উপজেলার নির্বাচন অনুুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই ধাপে নারায়ণগঞ্জের তিনটি উপজেলার মধ্যে সোনারগাঁ উপজেলা রয়েছে। যার সূত্র ধরে গত ১ মার্চ দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় দলীয় প্রার্থীদের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। এর মধ্যে সোনারগাঁ উপজেলায় আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে মোশারফ হোসেন মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

কিন্তু আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থীকে মেনে নিতে পারছেন না সোনারগাঁও উপজেলার মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম। একই সাথে সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা সহ আওয়ামীলীগের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরাও আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তারা মাহফুজুর রহমান কালামকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন।

যার সূত্র ধরে সোনারগাঁও জনপ্রতিনিধি ফোরাম গঠন করা হয়েছে। আর এই ফোরামের সভাপতি হিসেবে রয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রয়েছেন বারদী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জহিরুল হক।

এছাড়া পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, কাঁচপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবু ওমর, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান, শম্ভুপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল রব ও বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডা: আঃ রউফ সদস্য হিসেবে রয়েছেন।

তারা সকলে মিলে জনপ্রতিনিধি ফোরামের ব্যানারে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাহফুজুর রহমান কালামকে সমর্থন দিয়েছেন। অথচ তারা সকলেই আওয়ামীলীগের দলীয় সমর্থনে জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এদিকে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ছিল ১৩ মার্চ বুধবার। ওইদিন অন্যান্য উপজেলার শক্তিশালী প্রার্থীরা সড়ে গেলেও মাহফুজুর রহমান কালাম নির্বাচনী মাঠে টিকে রয়েছেন এবং শেষ পর্যন্ত লড়ে যাবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করছেন। যার ধারাবাহিকতায় ১৪ মার্চ বৃহস্পতিবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিকও পেয়েছেন। তার প্রতিক হচ্ছে ঘোড়া। আর এই ঘোড়া প্রতিকে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রতিক নৌকাকে ডুবানোর জন্য লড়াই করে যাবেন। তার সাথে সাথে স্থানীয় সংসদ সদস্য সহ সোনারগাঁ উপজেলার অন্যান্য জনপ্রতিনিধিরাও রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা একাদশ জাতীয় সংসদ জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতিকে নির্বাচিত হয়েছেন। কিন্তু তাকে স্থানীয় আওয়ামীলীগের কেউ সমর্থন দিতে রাজী ছিলেন না। শেষ পর্যন্ত আওয়ামীলীগের দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশে স্থানীয় আওয়ামীলীগের সকলেই লিয়াকত হোসেন খোকাকে সমর্থন দেয়। একই সাথে নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ও লাভ করে। কিন্তু এবার সেই সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা আওয়ামীলীগের দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশনাকে অবজ্ঞা করে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন দিচ্ছেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও