গিয়াসউদ্দিনের গেমওভার করছে শাহআলম

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৩ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৯ বৃহস্পতিবার

গিয়াসউদ্দিনের গেমওভার করছে শাহআলম

নারায়ণগঞ্জ জেলায় বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি ও প্রভাবশালী নেতা গিয়াসউদ্দিনের রাজনীতিতে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে সম্প্রতি পদত্যাগ করা জেলা বিএনপির সহ সভাপতি শাহআলম। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন ইস্যু থেকে শুরু করে উপজেলা কমিটিতে ধারাবাহিকভাবে গিয়সাউদ্দিন মাইনাসের গেম খেলা হয়েছে। আর সেই গেমের বেড়াজালে পড়ে গিয়াসউদ্দিন বারবার ব্যর্থ হচ্ছে।

সদ্য অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিন মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন। তবে সেই আসনে মনোনয়নের প্রাথমিক তালিকায় তাকে বাদ দিয়ে জেলা বিএনপির সহ সভাপতি শাহআলম ও সেক্রেটারী মামুন মাহমুদকে রাখা হয়। যদি শেষ দিকে অনেকটা নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে বিএনপির সবাইকে বাদ দিয়ে ২০দলীয় জোটের শরীক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের জেলার সভাপতি কাসেমীকে প্রার্থী করা হয়।

সূত্র বলছে, ‘এই আসনের হেভিওয়েট নেতা হিসেবে পরিচিত সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিনের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই বেশি ছিল। কারণ ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে তিনি সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। তবে এবার কোন এক অদৃশ্য কারণে এই হেভিওয়েট নেতা গিয়াসউদ্দিনকে বাদ দিয়ে শাহআলম ও মামুন মাহমুদকে মনোনয়নের প্রাথমিক তালিকায় রাখা হয়। যেকারণে গিয়াসউদ্দিনকে মাইনাসের ব্যাপারে শাহআলমের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।’

এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনের মনোনয়ন ইস্যুতে গেম ম্যাকার খ্যাত শাহআলমও জোটের সমীকরণ হিসেবে চূড়ান্ত মনোনয়ন থেকে ছিটকে পড়ে। যেকারণে তিনি মনক্ষুন্ন হয়ে নির্বাচন শেষে পদত্যাগ করেছেন। তবে পদত্যাগের পরপরই ফতুল্লা উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। সেখানে গিয়াসউদ্দিনের মত হেভিওয়েট নেতা ও তার অনুগামীদের বাদ দিয়ে সুবিধাবাদী শাহআলমের অনুগামীদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়।

২৬ ফেব্রুয়ারী ফতুল্লা থানা বিএনপির ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনকে বঞ্চিত করা হয়েছে। আর এখানে স্থান দেয়া হয়েছে বিতর্কিত নেতাকর্মীদের। গিয়াসউদ্দিন বিগত বিএনপি সরকারের আমলে জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ছিলেন।

জানা যায়, নিজেকে আড়ালে রাখতে ২৫ ফেব্রুয়ারী দলীয় পদবী থেকে পদত্যাগ করেছেন ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি ও জেলা বিএনপির সহ সভাপতি শাহ আলম। তবে তিনি পদত্যাগ করলেও তার অনুসারীদেরকে ফতুল্লা থানা বিএনপিতে ছায়া হিসেবে রেখে যাচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় শাহ আলমের পদত্যাগের একদিন পরই ফতুল্লা থানা বিএনপির ৭১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিতে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাসকে আহ্বায়ক ও নজরুল ইসলাম পান্নাকে সদস্য সচিব ঘোষণা করা হয়েছে।

এরা দুইজনেই পদত্যাগকারী শাহ আলমের অনুসারী। একই সাথে বাকী সদস্যরাও শাহ আলমের অনুসারী বলে জানা গেছে। আর তাদেরকে অনুমোদন দিয়েছেন শাহ আলমের আনুগত্য স্বীকারকারী জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ।

জানা যায়, নবনগঠিত ফতুল্লা থানা বিএনপির আহবায়ক পদে আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য অভিযোগ। বিগত দিনে দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ না করলেও তিনি সরকারী দলের কর্মসূচিতে ঠিকহ হাজির হয়ে থাকেন। আজাদ বিশ্বাস নিজ এলাকার সরকারী দলের সংসদ সদস্যকে নেতা হিসেবে মানেন বলে বেশ কয়েকবার ঘোষণা দিয়েছেন। নিজের উপজেলার চেয়ারম্যান পদ টিকিয়ে রাখার জন্য ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে আতাত করে চলেন তিনি। তার সামনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতাকে গালি দেয়া আর তিনি এটা নিরবেই হজম করেন। তার এসকল কর্মকান্ডের কারণে বিগত দিনগুলোতে দলীয় নেতাকর্মীরা বহুবার আজাদ বিশ্বাসকে বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। আর তাকেই ফতুল্লা থানা বিএনপির আহবায়ক হয়েছে।

একই সাথে সদস্য সচিব পদে দায়িত্ব পাওয়া নজরুল ইসলাম পান্নার বিরুদ্ধে রয়েছে অস্ত্রবাজের অভিযোগ। তিনি বিভন্ন সময় অস্ত্রবাজীর কারণে সংবাদের শিরোনাম হয়েছেন অনেকবার। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি এসকল বিষয়ক প্রাধান্য দিয়ে নিজেদের সুবিধা আদায়ে নজরুল ইসলাম পান্নাক পদে বসিয়েছেন।

অন্যদিকে ফতুল্লা থানা বিএনপির অনেক পোড় খাওয়া নেতাদেরকে কমিটি থেকে বঞ্চিত করেছেন। যারা দলের দু:সময়ে কান্ডারীর ভূমিকা পালন করেছিলেন তাদের মূল্যায়ন করা হয়নি। তাছাড়া সাবেক সাংসদ ও হেভিওয়েট নেতা গিয়াসউদ্দিনকেও এই কমিটিতে রাখা হয়নি। যেকারণে সমালোচনার ঝড় চারদিকে বইছে। ফলে জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের এই বিতর্কিত কমিটিকে মেনে নিতে পারছেন না তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘শাহআলম গেম মেকিং করে গিয়সাউদ্দিনের মত হেভিওয়েট নেতাদের মাইনাস করে আসছে। এর পাশাপাশি দলের ত্যাগী ও হেভিওয়েট নেতাদেরও মাইনাস করছে। তবে এই রহস্যজনক গেম মেকিংয়ের ক্ষেত্রে শাহআলম সম্প্রতি পদত্যাগ করেও অদৃশ্যভাবে দলের কলকাঠি নাড়ছে।’


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও