বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় তৈমূরের তিন শর্ত, ফিরবে স্বর্ণযুগ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৩৯ পিএম, ২২ মার্চ ২০১৯ শুক্রবার

বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় তৈমূরের তিন শর্ত, ফিরবে স্বর্ণযুগ

দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার বাইরে থেকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি রাজপথের নিস্ক্রিয় সংগঠনে পরিণত হয়েছে। দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে এখন আর আগের মতো ভূমিকা রাখতে পারে না। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি নবায়ন করেও দলে গতি ফিরানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই এবার কেন্দ্রীয় বিএনপি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপিকে পুনর্গঠনের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে। এই পুনর্গঠন নিয়ে কয়েক দিন ধরেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতিতে চলছে নানা আলাপ আলোচনা।

তবে এই পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার তিনটি শর্ত দিয়েছেন। আর এই তিনটি শর্ত হল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যারা মাঠে ময়দানে বিএনপির প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করছে তাদের একটি তালিকা, এই নির্বাচনে যারা কাজ করে নাই তাদের একটা তালিকা ও আরেকটি তালিকা হলো যারা বিরোধীতা করছে।

এই তিনটি তালিকা করে দলকে পুনর্গঠন করতে হবে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সহ বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আমার এই তিনটি শর্ত রইলো। এই শর্ত পূরণ করে কমিটি গঠন হলে বিএনপি স্বর্ণযুগে প্রবেশ করবে। ওয়ান ইলেভেন থেকে দল কোনো শিক্ষা গ্রহণ করে নাই। এই নির্বাচন থেকেও দল কোনো শিক্ষা গ্রহণ করল না বলে আমরা মনে করি। আমি দলে যে অবস্থায়ই থাকি নেতাকর্মীদের পাশে আমি আগেও ছিলাম এখনও আছি।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, মহানগর কমিটির মধ্যে বেশিরভাগ লোক যারা বড় বড় পদে আছে তারা জাতীয় পার্টি করে। জাতীয় পার্টির মিছিল মিটিংয়ে দেখা যায়। রাজনীতিতে তো দুইটা দল করা যায় না। দুইটা ক্লাবের সদস্য হওয়া যায়। কিন্তু দুই দল একসাথে করা যায় না। তাদের সাথে আমি রাজনীতি করব না। যাদেরকে জাতীয় পার্টির মিছিল মিটিংয়ে দেখা যায়, আওয়ামীলীগের মিছিল মিটিংয়ে দেখা যায়। তাদের সাথে আমি নাম দিব না। নাম দিতে হলে সিনিয়রদের নাম আগে যাবে। তো আমি কার নামের পাশে আমার নেতাকর্মীদের নাম দিব।

মহানগর বিএনপির নতুন কমিটি দেয়ার দাবী করে তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, অবশ্যই নতুন করে আবার কমিটি করতে হবে। যারা নির্বাচনে ভূমিকা রাখছে, বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে থাকার সময় যারা জীবনের ঝুকি নিয়ে ভূমিকা রাখছে। তাদের হাতে কমিটি দিতে হবে। নতুবা এই কমিটি মানি না মানব না। প্রতিরোধ গড়ে তুলব। কোন সময় প্রতিরোধ করি নাই এবার প্রতিরোধ গড়ে তুলব। সবাই আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। নেতাকর্মীদের জীবন শেষ হয়ে গেছে দল করতে করতে। আমরা ঘরে বসে দল করি নাই। আমরা জীবনের ঝুকি নিয়ে দল করছি, মার খেয়ে জেল খেটে দল করছি। দিনের পর দিন জেল খাটছি। অতএব এভাবে আর ছাড় দিতে রাজী না। যারা নির্বাচনে কাজ করছে তাদেরকে না দেয়া হলে প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে।

সূত্র বলছে, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ২৩ সদস্য ও জেলা বিএনপিতে ২৬ জনের আংশিক কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হয়। এর একদিন আগে ১৩ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক তিনবারের এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালামকে সভাপতি ও বিলুপ্ত নগর বিএনপির সেক্রেটারী এটিএম কামালকে সাধারন সম্পাদক করে মহানগর বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়।

একইসাথে জেলা বিএনপির সাবেক কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মনিরুজ্জামানকে সভাপতি ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে সাধারণ করে জেলা  বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। তবে ওই কমিটি নারায়ণগঞ্জের আন্দোলন সংগ্রামে তেমন একটা প্রভাব ফেলতে পারেনি। কমিটি গঠনের অনেকদিন পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত জেলা ও মহানগর বিএনপির অপূর্ণাঙ্গই থেকে যাচ্ছিল। তবে এবার কেন্দ্র থেকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

যার সূত্র ধরে গত ১৯ মার্চ রাজধানীর পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতাদের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর আগে গত ১৮ মার্চ নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নেতাদের নিয়ে রাজধানীর পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই দুই বৈঠকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাদেরকে কমিটিকে পুনর্গঠন করার তাগিদ দিয়েছেন।

কমিটিকে পুনর্গঠন করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটির খসড়াও প্রণয়ন করা হচ্ছে। এতে সভাপতি পদে বর্তমান সেক্রেটারী এটিএম কামাল ও সেক্রেটারী পদে বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খানের নাম আছে। তবে সাখাওয়াত সেক্রেটারীর পদ নিতে অনীহা জানালে এ পদে আসতে পারেন মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও