নারী ভাইস চেয়ারম্যানে আনোয়ার খোকন সাহার লড়াই!

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪১ পিএম, ২৪ মে ২০১৯ শুক্রবার

নারী ভাইস চেয়ারম্যানে আনোয়ার খোকন সাহার লড়াই!

আগামী ১৮ জুন ৫ম ধাপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা নির্বাচন। এবারের বন্দর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকলেও অন্যান্য পদে অনেক প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে। যেখানে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুব মহিলা লীগের আহবায়ক নুরুন্নাহার বেগম সন্ধাকে।

সন্ধ্যা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহার সমর্থিত হিসেবে পরিচিত। ফলে নিজেদের ইমেজ রক্ষার্থে এবারের বন্দর উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আনোয়ার হোসেন ও খোকন সাহাকেও লড়াইয়ে অবতীর্ন হতে হচ্ছে। যদিও তারা এ বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণা দেয়নি।

জানা যায়, আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিততব্য বন্দর উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত ৯ মে ৫ম ধাপের উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। সেই তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ২১ মে, যাচাই-বাছাই ছিল ২৩ মে, প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৩০ মে এবং প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে ৩১ মে। ওই দিন থেকেই প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন।

এই নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের যাছাই বাছাইয়ে ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জনে জনের মনোনয়ন পত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মাহমুদা আক্তার, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুব মহিলা লীগের আহবায়ক নুরুন্নাহার বেগম ও ছালিমা আক্তার। এদের মধ্যে নুরুন্নাহার বেগম নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহার সমর্থিত হিসেবে পরিচিত। এই দুই নেতা নুরুন্নাহার বেগমের জন্য নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সাথে বাকযুদ্ধেও লিপ্ত হয়েছিলেন। সেই সাথে নুরুন্নাহার বেগমও মহানগর আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে থাকেন।

দলীয় সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহার সুপারিশে ২০১৭ সালের ৩০ মে নুরুন্নাহার সন্ধাকে আহ্বায়ক করে এবং সালমা আক্তার শারমীন আক্তার ডলি, মায়ানূূর মায়া, চায়না আক্তার ও রুম্পা আক্তারকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ট মহানগর আওয়ামী যুব মহিলা লীগের কমিটির অনুমোদন দেন নাজমা আক্তার ও অপু উকিল।

কিন্তু ওই কমিটি বিলুপ্ত না করেই মহানগর আওয়ামী যুব মহিলা লীগের আরেকটি কমিটির অনুমোদন দেয়া হয় শামীম ওসমানের সুপারিশে। যে কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয় অ্যাডভোকেট সুইটি ইয়াসমিন ও যুগ্ম আহ্বায়ক মুনিরা সুলতানাকে। আর এ নিয়ে শামীম ওসমানের সঙ্গে আনোয়ার হোসেন ও অ্যাডভোকেট খোকন সাহার বিরোধের সূত্রপাত ঘটেছিল।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও