ছাত্রদলের কমিটি আরও আগেই ভাঙা উচিত ছিল : রাজীব ও রনি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৯ পিএম, ১২ জুন ২০১৯ বুধবার

ছাত্রদলের কমিটি আরও আগেই ভাঙা উচিত ছিল : রাজীব ও রনি

সারাদেশে আন্দোলন সংগ্রাম বেগবান করতে ও সাংগঠনিক কার্যক্রম ঢেলে সাজানোর অংশ হিসেবে ছাত্রদলকে পুনর্গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বিএনপি। লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ভেঙে দেওয়া হয়েছে পুরনো কেন্দ্রীয় কমিটি। নতুন করে ছাত্রদলের কমিটি গঠনের লক্ষ্যে বিএনপি নেতাদের সমন্বয় করে তৈরী করে হয়েছে তিনটি বিশেষ কমিটি। ২০০০ সালের পূর্বে যারা এসএসসি পাশ করেছেন তারা আর থাকতে পারছেন না ছাত্রদলের নতুন কমিটিতে।

তবে নতুন এ সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছেনা ছাত্রদলের পদ হারানো সাবেক নেতারা। তাদের দাবী নতুন এ সিদ্ধান্তে ছাত্রদলের সাংগঠনিক কার্যক্রমে যেমন ক্ষতি হবে তেমনি ত্যাগী নেতারা বঞ্চিত হবে যোগ্য মূল্যায়ন থেকে। আর এইসকল বিবেচনায় দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা ঝোলানো এবং আন্দোলন শুরু করেছেন তারা। যার প্রভাব এসে ঠেকেছে কেন্দ্রীয় কমিটির নজরে থাকা নারায়ণগঞ্জের ছাত্রদলের নেতারা। নতুন কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে কতটুকু মূল্যায়ন পেতে পারেন কিংবা দলের এই সিদ্ধান্ত কতটা মেনে নিতে পেরেছেন তারা সেটি অজানা ছিল সাধারণ কর্মীদের কাছে।

ছাত্রদলকে সক্রিয় করার নতুন এই সিদ্ধান্ত কিভাবে বিশ্লেষন করছেন বর্তমান ও সাবেক নেতারা সেটিই জানতে চাওয়া হয়েছিলো সাবেক জেলা সভাপতি মাশুকুল ইসলাম রাজীব ও বর্তমান জেলা সভাপতি মশিউর রহমান রনির কাছে।

দলের পূর্বগঠন প্রক্রিয়া সম্পর্কে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙ্গে দেয়া অবশ্যই তারেক রহমানের গুরুত্বপূর্ন একটি সিদ্ধান্ত। নির্ধারিত সময়েই এটি ভাঙ্গা উচিত ছিল। তিনি যেভাবে ক্রমান্বয়ে ছাত্রদের হাতে দায়িত্ব তুলে দেয়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন তা অবশ্যই যুক্তি সংগত। এবার ২০০০, পরবর্তীতে ২০০৪ সালে এসএসসি এভাবেই হয়তো ছাত্রদলের নেতৃত্বে বয়স কমিয়ে ছাত্রদের হাতে দায়িত্ব দেয়া হবে।

তবে আন্দোলনকারীদের বিষয়ে যৌক্তিকতা জানতে চাইলে বলেন, ‘‘তাদের দিক থেকে হয়তো সেটি যৌক্তিক। আবার তরুনদের কাছে তারেক রহমানের সিদ্ধান্তটা যৌক্তিক। মূলত দৃষ্টি ভঙ্গিটাই আসল। তাছাড়া ছাত্রদলকে যেহেতু তারেক রহমান নিজ হাতে পূর্নগঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেহেতু সেটির সন্মানার্থে সিনিয়রদের মন খারাপ হলেও তারা আশাকরি দলের স্বার্থে সেই সিদ্ধান্ত মেনে নিবেন।’’

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও তোলারাম কলেজের সাবেক ভিপি মাসুকুল ইসলাম রাজীব বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙ্গে দেয়া অবশ্যই একটি ভালো সিদ্ধান্ত। এর মেয়াদ ছিলো ২ বছরের সেটি ৫ বছর রানিং করা হয়েছে। তাদের উচিৎ ছিলো ৩ বছর পূর্বেই এই কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন করে কাউন্সিলের ঘোষণা দেয়া। তবে দেরীতে হলেও কমিটি ভেঙ্গে দেয়াটাকে স্বাগত জানাই।

তবে নতুন করে ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দের বয়স নির্ধারন করার বিষয়টি নিয়ে উভয় দিকের যুক্তিকতাকেই সমর্থন জানিয়ে বলেন, সকল সিদ্ধান্তেরই ২টি দিক থাকে। আমরা যদি চিন্তা করি ছাত্রদল ছাত্রদের হাতেই ফিরিয়ে দিব তবে সেটি অবশ্যই ভালো সিদ্ধান্ত। কিন্তু একটি অনিয়মের সমাধান না করে নতুন সিদ্ধান্ত কখনই ভালো ফল বয়ে আনতে পারে না। ২০০০ সালে যারা এসএসসি পাশ করেছে তাদেরও ছাত্রত্ব নেই। কারণ এসএসসির দেয়ার ১৯ বছর পরে ছাত্রত্ব থাকার কথা না। সুতরাং যারা অল্পকিছুদিনের জন্য বাদ পড়ে যাচ্ছে তাদের বিক্ষুব্ধ হওয়াটা স্বাভাবিক।

তিনি আরও বলেন, একজন ছাত্রের কেন্দ্রীয় নেতা হতে বহু পথ পাড়ি দিতে হয়। তাছাড়া কর্মীদের কাছে জনপ্রিয় হবারও একটি ব্যাপার আছে যে কর্মীরা মেনে নিবে সহজেই নেতার মতামতকে। তারা যদি ২ বছর পূর্বেই কমিটি ভেঙ্গে কাউন্সিল দিত তবে এই চাপ কমে আসতো। আমার ব্যাক্তিগত মত হচ্ছে যারা এই কমিটিতে আছে তাদের থেকেই ১০/১২ জনকে মূল নেতৃত্বে কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত করে বাকি সকলকে নতুন নিয়মে যুক্ত করা এবং ক্রমান্বয়ে তা ছাত্রদের মাঝেই নেতৃত্বের দায়িত্ব পৌছে দেয়া হোক।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও