গ্যাস ইস্যুতে কঠোর হলেন বামপন্থীরা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৫৯ পিএম, ৯ জুলাই ২০১৯ মঙ্গলবার

গ্যাস ইস্যুতে কঠোর হলেন বামপন্থীরা

শান্তিপূর্ন রাজনৈতিক কর্মসূচী পালনে বামপন্থী নেতাকর্মীদের ব্যাপক নাম রয়েছে দেশব্যাপী। যেকোন ইস্যুকে কেন্দ্র করে লাগাতার কর্মসূচী পালন করলেও সহিংসতার দিকে পা বাড়াতে দেখা যায়নি তাদের। এমনকি শান্তিপূর্ন কর্মসূচীতে পুলিশ লাঠিচার্জ কিংবা টিয়ারশেল নিক্ষেপ করলেও পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেখা যায়না সচরাচর। তবে এবার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ডাকা হরতালে বেশ খানিকটা কঠোর মনোভাব লক্ষ করা গেছে।

৭ জুলাই পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী আধাবেলা হরতাল পালনের লক্ষ্যে সকাল ৬টা থেকে মিছিল নিয়ে বের হয় বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দরা। সকাল ৬টা থেকে ৮টা পর্যান্ত শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে হরতালের সমর্থনে পিকেটিং করতে দেখা যায়। শান্তিপূর্নভাবে পুলিশের উপস্থিতিতেই মিছিল করে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে থাকেন তারা। বেলা গড়াতেই গাড়ি চলাচল বৃদ্ধি পেলে পুলিশ মিছিল থামাতে শহরের ২নং রেলগেইট এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। মিছিলকারীরা এগিয়ে এলে পুলিশ বাধা প্রদান করার পরপরেই উত্তপ্ত হয়ে উঠে পরিবেশ।

এসময় পিকেটাররা পুলিশি বাধা ডিঙ্গিয়ে মিছিল চালিয়ে যেতে থাকে এবং সড়কের সামনে থাকা বেশ কিছু অটো রিক্সার হেডলাইট এবং ২টি প্রাইভেটকারের জানালার কাচ ভাঙচুর করতে দেখা যায়। মলত পিকেটারদের বাধা প্রদান স্বত্বেও গাড়ি নিয়ে এগিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে এই ভাঙচুরের সূত্রপাত ঘটে।

এ ব্যাপারে জোটের এক নেতা জানান, অতি উৎসাহী কিছু তরুন পুলিশি বাধা ও গাড়ি চালকদের বেপরোয়া আচরণে উত্তেজিত হয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে। তবে আমরা সবসময় শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচী পালনের নির্দেশ প্রদান করে থাকি। যানবাহন অবশ্যই দেশের এবং দেশের মানুষের সম্পদ। আমরা আন্দোলনের নামে সম্পদ বিনষ্ট করার পক্ষে নই। বরং দেশের সম্পদ রক্ষা ও সুনিপুণ ব্যাবহারের লক্ষে আমাদের আন্দোলন সংগ্রাম অব্যাহত রাখি।

তবে হরতাল চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মীরা আশেপাশের উৎসুক জনতাকে হরতালের ইস্যু ও কর্মসূচী প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অধিকাংশেরই মৌন সমর্থন পাওয়া যায়। শহরবাসীর মতে, নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত করার পর নতুন করে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি তাদের উপর জুলুম হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। নির্দিষ্ট আয়ের মানুষদের সংসার চালিয়ে নিতে স্বাভাবিক ভাবেই নতুন করে গুনতে হবে অতিরিক্ত অর্থ। শুধু তাই নয়, এর সাথে সাথে বিদ্যুৎ, পরিবহন সহ নিত্যপন্য দ্রবের মূল্যবৃদ্ধি মরার উপর খড়ার ঘা হয়ে দাঁড়াবে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, হুট করে সরকারী এ সিদ্ধান্ত মেনে নিতে খোদ আওয়ামীলীগ সমর্থকদেরই বেগ পোহাতে হচ্ছে। একের পর এক দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে বামপন্থীরা। অপর দিকে সরকারের প্রধান বিরোধী দল হিসেবে পরিচিত বিএনপির নিস্ক্রিয়তার চাইতে বাম জোটের হরতাল বিএনপির কর্মীদের মাঝ থেকে ব্যাপক সমর্থন আদায়ে সক্ষমতা লাভ করেছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও