জাম্বু কমিটিগুলোর নেতাকর্মীরা মাঠে নাই

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩৯ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৯ শুক্রবার

জাম্বু কমিটিগুলোর নেতাকর্মীরা মাঠে নাই

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির সহযোগি সংগঠনের মধ্যে কয়েকটি পূর্ণাঙ্গ জাম্বু কমিটি ঘোষণা করা হলেও মাঠের রাজনীতিতে তারা একেবারে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে আসছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দলটিকে চাঙ্গা করতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কিন্তু নেতাকর্মীদের নিষ্ক্রিয়তা কিছুতেই তাদের পিছু ছাড়ছেনা। এমনকি দলীয় শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতেও তাদের অনীহা প্রকাশ করতে দেখা যায়। যেকারণে বিএনপি কিছুতেই ঘুরে দাঁড়াতে পারছেনা। এতে করে দলের জাম্বু কমিটিগুলো ঘোষণা দিলেও দলের স্বার্থে কোন কাজেই আসছেনা।

জানা গেছে, টানা তিন মেয়াদে বিএনপি ক্ষমতার বাইরে থাকা সহ সদ্য অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির চিত্র দেখা যায়। এই অবস্থায় দলকে সাংগঠনিক দিক দিয়ে শক্তিশালী করে তুলতে সারা দেশের মত নারায়ণগঞ্জেও বিএনপি ও তার সহযোগি সংগঠনগুলোর পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়। এর মধ্যে কয়েকটি জাম্বু কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। তবে কেন্দ্রের সেই লক্ষ্য কিছুতেই পূরণ হচ্ছেনা। কারণ সেসব জাম্বু কমিটি সহ কোন কমিটি মাঠের রাজনীতিতে নেই। তারা ঘরকুনো রাজনীতিতে দলকে লজ্জা দিয়ে যাচ্ছে। আর নিষ্ক্রিয়তার মধ্য দিয়ে বিএনপির এসব কমিটিগুলো ধারাবাহিকবাবে ব্যর্থতার চিত্র দেখিয়ে যাচ্ছে।

২৭ সেপ্টেম্বর অতিত সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ২৩৫ জনের এ জাম্বু কমিটির অনুমোদন করেছেন ছাত্রদলের কেন্দ্রী সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরাম উল হাসান মিন্টু।

সভাপতি শাহেদ আহমেদ জানান, ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের নিয়েই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। অতীতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন নিয়ে বেশ জটিলতা ছিল। এবার আমরা সমন্বয় করেই কমিটি গঠন করেছি। আশা করছি আগামীতে এ কমিটি ভালো কিছু করতে পারবে।

২৪ মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। আগের দিন ২৩ মার্চ যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন সাক্ষরে কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

যুবদলের নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি শহীদুল ইসলাম টিটু জানান, দীর্ঘ দুই যুগ পর জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা সম্ভব হয়েছে। অচিরেই জেলা যুবদল কেন্দ্র ঘোষিত যে কোন কর্মসূচী বাস্তবায়নে মাঠে নামবে।

যদিও কমিটি গঠনের পর থেকে জেলা যুবদলকে কোন ধরনের আন্দোলনে দেখা যায়নি। তাছাড়া সভাপতি শহীদুল ইসলাম টিটু মূলত বিএনপির বহিস্কৃত নেতা আওয়ামী লীগ ঘেঁষা চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুর অনুগামী হিসেবে পরিচিত। এর আগে গত বছরের ১৯ অক্টোবর জেলা যুবদেলর আংশিক কমিটি ঘোষণা করে। জেলা যুবদলে সভাপতি করা হয়েছে শহীদুল ইসলাম টিটুকে যিনি বর্তমানে ফতুল্লা থানা কমিটির সভাপতি। আর সেক্রেটারী করা হয়েছে গোলাম ফারুক খোকনকে যিনি এখন রূপগঞ্জ উপজেলা যুবদলের সভাপতি।

৮ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের ১৬১ বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। এর আগে ৭ আগস্ট কমিটির অনুমোদন করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল।

কমিটিতে সভাপতি করা হয়েছে আবুল কাউসার আশা, সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে সাখাওয়াত হোসেন রানাকে ও সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে অহিদুল ইসলাম ছক্কু। কমিটিতে ১৬ জন সহ সভাপতি, ৭ জন যুগ্ম সম্পাদক, ১৪ জন সহ সম্পাদক, ৮ জন সহ সাংগঠনিক সম্পাদক, ৭৫ জন বিভিন্ন সম্পাদক ও সহ সম্পাদক এবং বাকি ৩৬ জনকে সদস্য করা হয়েছে।

সভাপতি আবুল কাউসার আশা জানান, যারা যোগ্য ও ত্যাগী তাদেরকে কমিটিতে মূল্যায়ন করা হয়েছে। সকলেই তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করবেন বলে প্রত্যাশা করি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সহযোগি সংগঠনের জাম্বু কমিটির নেতাকর্মীরা পদ পদবী হাসিল করলেও দায়িত্ব পালন করতে পারছেনা। দল থেকে পূর্ণাঙ্গ ও জাম্বু কমিটির অনুমোদন দেয়া হলেও সেই লক্ষ্য পূরণ হচ্ছেনা। দলের নেতাকর্মীরা সেই প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হচ্ছেন। যদিও ক্ষমতাসীন দলের চোখ রাঙানি একেবারে কমে গেছে। তবুও বিএনপি দলীয় নেতাকর্মীরা কিছুতেই মাঠের রাজনীতিতে সক্রিয় হতে পারছেনা। যেকারণে তাদের ব্যর্থতার পাল্লা ক্রমশ ভারী হয়ে উঠছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও