পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন বড় চ্যালেঞ্জ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৬:৪৩ পিএম, ১৬ আগস্ট ২০১৯ শুক্রবার

পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন বড় চ্যালেঞ্জ

দীর্ঘ ১ যুগের বেশি সময় আটকে থাকার পর নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের অধিনে থানা রূপগঞ্জ আড়াইাজার থানা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। আর এতে শুধুমাত্র সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। বাকী পদগুলো এখনও ঘোষণা করা হয়নি। যদিও কমিটি ঘোষণার পর এখনও বেশি সময় অতিবাহিত হয়নি। তবে তৃণমূল পর্যায়ে সেই শঙ্কা কাটিয়ে উঠতে পারছে না। কারণ কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া পুরোপুরি অনুসরণ করা হয়নি। তারপরেও তৃণমূল নেতৃবৃন্দের চাওয়া হচ্ছে পূর্বের মতো সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে পূর্ণ কমিটিই ঘোষণা করা হোক।

সূত্র বলছে, জেলা আওয়ামী লীগের গতি ফিরাতে নেতাকর্মীদের আলোচনা সমালোচনার মুখে থানা পর্যায়ে নতুন কমিটি করার উদ্যোগ নিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। সেই লক্ষ্যে গত ১৩ জুলাই ২ নং রেলগেইট আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘোষণা করা হয়। কিন্তু ওই তারিখ ঘোষণায় কমিটি গঠন প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়নি।

জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের মতামত ছিল, প্রথমে ওয়ার্ড কমিটি গঠন করতে হবে। আর এই ওয়ার্ড কমিটি গঠন করবে ইউনিয়ন কমিটি। এরপর ইউনিয়ন কমিটি করতে হবে, ইউনিয়ন কমিটি করবে থানা কমিটি। এই দুই স্তরের কমিটি সম্পন্ন হলে জেলা আওয়ামী লীগ থানা কমিটি গঠন করে দিবে। কিন্তু এই মতামতকে পাত্তা না দিয়েই সরাসরি সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করে দেয়া হয়। যা নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা শেষে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

জেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক ঘোষিত সেই তারিখ অনুযায়ী গত ১৬ জুলাই রূপগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আর সেই সম্মেলনে রুপগঞ্জ থানা কমিটিতে সভাপতি পদে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর ও সাধারণ সম্পাদক পদে শাহজাহান ভূঁইয়া নির্বাচিত হয়েছেন। কমিটি বাকী পদগুলো এখনও ঘোষণা করা হয়নি। সেই সাথে থানার কমিটির নিয়ন্ত্রণে থাকা ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটিও আটকে রয়েছে।

এর আগে ১৯৯২ সালে আব্দুল মোতালিবকে সভাপতি ও শাজাহান ভূইয়াকে সাধারন সম্পাদক এবং এনামুল হক ভূইয়াকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে রূপগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের কমিটি হয়েছিল। পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালে পুরানো কমিটির কয়েকজনকে সংযোজন ও বিয়োজন করে আবারো নতুন কমিটির ঘোষণা করা হয়। এরপর ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে দলের বিরুদ্ধে ভূমিকা রাখার অভিযোগ আব্দুল মোতালিবকে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ২০০৪ সালে সিনিয়র সহ-সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন মোল্লাকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করা হয়। এর পরে দীর্ঘ প্রায় ১ যুগেরও বেশি সময় অতিবাহিত হলেও তিনি ভারমুক্ত হতে পারেননি। ফলে রূপগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যেই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছিল।

এদিকে গত ২২ জুলাই আড়াইহাজার থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে সভাপতি হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু নির্বাচিত হয়েছেন। রূপগঞ্জে সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা হলেও আড়াইহাজার সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়নি। ফলে এটা নিয়ে আরও বেশি শঙ্কায় রয়েছেন তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। তাহলে কি পূর্বের মতোই সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদকের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থেকে যাচ্ছেন তারা।

২০০৪ সালের ১১ মার্চে মো. শাহজালাল মিয়াকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট আব্দুর রশিদকে সাধারণ সম্পাদক করে ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি প্রস্তাবিত কমিটি জমা দেয়া হয়েছিল জেলা কমিটির কাছে। কিন্তু বিগত প্রায় ১৫ বছরেও এই কমিটির অনুমোদন মিলেনি। যার সূত্র ধরে ১৫ বছর ধরেই এখানকার আওয়ামী লীগ প্রস্তাবিত কমিটির মাধ্যমেই পরিচালিত হচ্ছে। ফলে এখানকার কমিটির নেতাকর্মীরা স্বঘোষিত সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিলেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও