তৈমূর পন্থীদের রুদ্ধদ্বার বৈঠক

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০১:৩৭ পিএম, ২৫ আগস্ট ২০১৯ রবিবার

তৈমূর পন্থীদের রুদ্ধদ্বার বৈঠক

নারায়ণগঞ্জের আদালতের রাজনীতিতে বিএনপি ইতোমধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ন স্থানে আবির্ভূত হয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ পন্থী আইনজীবীরা আদালতের রাজনীতিতে নানা ধরনের ভূমিকা পালন করলেও বিএনপি থেমে নেই। আড়ালে আবডালে কিংবা প্রকাশ্যে রাজনীতিতে ভূমিকা রাখছেন তারা। তবে সেই রাজনীতি দলের অভ্যন্তরেই সীমাবদ্ধ রেখেছেন শুধুমাত্র নিজেদের কর্তৃত্ব বজায় রাখার স্বার্থে।

এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। তার পর থেকেই সারাদেশের মত নারায়ণগঞ্জেও নতুন নেতৃত্ব পাবার আশায় আদালতে বিএনপির ৩টি বলয়ের নেতাকর্মীরা উঠে পড়ে লাগে। এরই মাঝে সাখাওয়াত পন্থীদের হটাতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে তৈমূর ও কালামপন্থীরা। আইনজীবীদের একত্রিত করে একাধিক বৈঠক করে কর্মীদের নিজেদের পক্ষে রাখার চেষ্টা করেছেন নেতার।

জানা যায়, বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের এমন রুদ্ধদ্বার বৈঠক বেশ কয়েকবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ ট্যাক্সেস বার থেকে শুরু করে আইনজীবীদের ব্যাক্তিগত চেম্বার কিংবা কোন রেস্টুরেন্টে আলাপ আলোচনা করে থাকেন। পরবর্তী নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী ফোরামের নেতৃত্ব যে তৈমূর-কালাম পন্থীদের হাতেই থাকার সম্ভাবনা প্রবল এমনটাই চাউর হচ্ছে আদালত জুড়ে।

সবশেষ ২২ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় আদালত পাড়া সংলগ্ন নীট হাউজের ২য় তালায় একত্রিত হয় তৈমূর ও কালামপন্থী আইনজীবীরা। রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকের নেতৃত্ব দেন মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপু। আইনজীবীদের একত্রিত করে আসন্ন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নারায়ণগঞ্জ কমিটি কিভাবে পূর্ণাঙ্গ নিয়ন্ত্রণ নেয়া যায় কিংবা সিনিয়র জুনিয়র সমন্বয়ে শক্তিশালী কমিটি কিভাবে গঠিত হবে এই এজেন্ডাকে সামনে নিয়ে চলে এই বৈঠক।

এছাড়া রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকটি এতটাই গোপনীয়তার সাথে পরিচালিত হয় যে নিজস্ব বলয়ের বাইরের কোন আইনজীবীকে আহ্বানও জানাননি তৈমূর ও কালামপন্থীরা। এ ব্যাপারে নাম গোপন রাখার শর্তে এক আইনজীবী নেতা বলেন, মূলত আসন্ন আইনজীবী ফোরামের কমিটি গঠন নিয়েই আলোচনা করা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রায় দেড় বছর আগে জাতীয়বাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন এককভাবে নারায়ণগঞ্জের কমিটি ঘোষণা করেন। যেখানে শুধুমাত্র অগ্রাধিকার পায় মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের অনুগামী আইনজীবীরা। কমিটি গঠনের পর দিনই কমিটি বাতিলের দাবি করে বিক্ষোভ মিছিল করেন অপর পক্ষের আইনজীবীরা। কমিটি গঠনের পর সাংবাদিক সম্মেলন করে কমিটিতে প্রত্যাখান করেন আইনজীবীদের একটি অংশ। এমনকি ১৪৪ জন পদত্যাগ পত্রে স্বাক্ষর করেন।

তারই জের ধরে এবারের কমিটিতে নিজেদের আধিপত্য পুনরায় বজায় রাখতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তৈমূর ও কালামপন্থীরা। তবে এখন পর্যন্ত সারাদেশে কোন কমিটিই ঘোষণা না হওয়ায় দুইটি বলয়ের কেউই নিশ্চিত হতে পারছেন না যে কারা পাচ্ছেন কেন্দ্রীয় কমিটির কাংখিত আশীর্বাদ।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও