যুব লীগের কমিটিতে আলোচনায় ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৪ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ শনিবার

যুব লীগের কমিটিতে আলোচনায় ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা

নভেম্বর মাসের ২৩ তারিখ যুবলীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সে হিসেবে যুবলীগের জাতীয় সম্মেলনের আর বেশিদিন নেই। এরপরই সারাদেশে দীর্ঘদিন ধরে আটকে থাকা যুবলীগের জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণা করা হবে। যার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর যুবলীগেরও কমিটি ঘোষণা করা হবে। আর এবারের যুবলীগের কমিটিতে বয়সও বিবেচনা করার সম্ভবনা রয়েছে এবং নতুন মুখ আসারই সম্ভবনা বেশী। ফলে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর যুবলীগের কমিটিকে ঘিরে ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা আলোচনায় রয়েছেন। সবদিক দিয়েই তারা অগ্রভাগে রয়েছেন।

সূত্র বলছে, আগামী নভেম্বর মাসের ২৩ তারিখ যুবলীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। আর সেই সম্মেলনকে ঘিরে সারাদেশেই যুবলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে বইছে উচ্ছ্বাস। যার সূত্র ধরে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর যুবলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেও সম্মেলনের প্রভাব পড়েছে। কারণ সম্মেলনের পর পরই জেলা ও মহানগর যুবলীগের নবায়ন আসবে। আর এই নবায়নে নতুন মুখ ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতারাই অগ্রভাবে থাকবেন।

এদিকে ১৯ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের মেঘনা ঘাট এলাকায় সড়কের উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন শেষে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নতুন সম্মেলন মানেই নতুন মুখ আর আওয়ামীলীগের সম্মেলনের ব্যাপারে কোন আপোষ নেই। যথাসময়ে সম্মেলন হয় আর এবারো যথাসময়ে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রবীন তরুণ অভিজ্ঞদের সমন্বয় ঘটিয়ে আমরা দলকে সামনে দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব। এখানে পরিবর্তন হবে, নতুন মুখ আসবে।

জানা যায়, ২০০৫ সালে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের কমিটি গঠন করা হয়। সম্মেলনে আবদুল কাদির সভাপতি ও অ্যাডভোকেট আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বৈরি সময়ে ওই সম্মেলনে ছিল আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের অবস্থান। এছাড়াও সম্মেলনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করা জাকিরুল আলম হেলালকে করা হয় সিনিয়র সহ-সভাপতি, আসিফ হোসেন মানুকে সহ-সভাপতি ও শাহ নিজামকে করা হয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এরপর দীর্ঘ প্রায় ১৪ বছর পেরিয়ে গেলেও এরপর আর নতুন কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি জেলা যুবলীগের।

তৎকালীন সময়ে জেলা যুবলীগের কমিটিতে পদে নেতারা অনেকেই মূল দলে ভিড়িয়েছেন। এদের মধ্যে শাহনিজাম মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জাকিরুল আলম হেলালকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। একইভাবে অন্যদিকে আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদলকে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এছাড়াও জেলা যুবলীগ সভাপতি আবদুল কাদির জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি পদে স্থান পেয়েছেন। অথচ এই জেলা যুবলীগের বিএনপির জোট সরকার আমল থেকে শুরু করে ১/১১ এর কঠিন সময়ে আন্দোলন সংগ্রামে বেশ ভূমিকা রেখেছিল। আর ক্ষমতাসীন থাকাবস্থায় সেই যুবলীগ এখন প্রায় অস্তিত্বহীন হয়ে পড়েছে।

ফলে জেলা যুবলীগের নেতৃত্ব দেয়ার মতো চলমান কমিটিতে অবশিষ্ট কেউই নেই। আলোচনায় থাকা প্রত্যেককেই মূল দলে জায়গা করে দেয়া হয়েছে। আর তাই এবার নতুনদের সমন্বয়ে করা হবে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের কমিটি।

নতুনদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হক নিপু, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো: মোহসীন মিয়া, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানী ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজন। এদের মধ্যে থেকেই জেলা যুবলীগের শীর্ষ পদে আসার সম্ভাবনা বেশি। একইসাথে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুুবলীগের কমিটিতেও নতুনরা ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা অগ্রভাগে থাকবেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও