শ্রমিক লীগের সম্মেলনে দৃষ্টি নারায়ণগঞ্জবাসীর

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৭ পিএম, ৮ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

শ্রমিক লীগের সম্মেলনে দৃষ্টি নারায়ণগঞ্জবাসীর

৯ নভেম্বর শনিবার অনুষ্ঠিত হবে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কাউন্সিল। এ মুহূর্তে সবার দৃষ্টি দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে। নেতৃত্ব নির্ধারণে তিনি চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন। শ্রমিক লীগের বর্তমান সভাপতি হলেন শুক্কুর মাহমুদ। তিনি একই সঙ্গে নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক লীগেরও সভাপতি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দীর্ঘদিন পর সম্মেলন ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগে। নতুন কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। তদবির করছেন নীতিনির্ধারকদের কাছে।

চার বছর আগেই মেয়াদ শেষ হয়েছে শ্রমিক লীগের কমিটির। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই শ্রমিক লীগের সবশেষ সম্মেলন হয়। দুই বছর মেয়াদি এই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে চার বছরের বেশি সময় আগে।

শ্রমিক লীগের আসন্ন কাউন্সিলকে ঘিরে চলছে নানা ধরনের সমীকরণ। আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার শ্রমিক লীগের নেতৃত্ব সৃষ্টি করবেন জানা গেছে। তবে নারায়ণগঞ্জের ৪ জন শ্রমিক নেতার বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে ব্যাপক তদন্ত হয়েছে। এতে উঠে এসেছে বিগত দিনে শ্রমিক ইস্যু, নৌ চাঁদাবাজী, সরকারী জমি দখল সহ সহ বিভিন্ন সেক্টর দখলের বিশদ অভিযোগ উঠে এসেছে। ফলে আগামীতে নারায়ণগঞ্জ সহ কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পাওয়া তাঁদের জন্য দুস্কর হয়ে দাঁড়াবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, নারায়ণগঞ্জে চার শ্রমিক নেতার একটি প্রোফাইল ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে। এখানে একজন শ্রমিক লীগ নেতার বিরুদ্ধে বিগত দিনে গার্মেন্ট কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষ সৃষ্টি, ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক, লোড আনলোড সহ নদীর তীরের বিভিন্ন সেক্টর থেকে মাসে কোটি টাকার চাঁদাবাজীর সুনির্দিষ্ট অভিযোগ হয়েছে। এছাড়া আরেকজন শীর্ষ শ্রমিক লীগ নেতার বিরুদ্ধে সরাসরি তিতাস গ্যাস, সরকারী জমি দখল সহ নানা অভিযোগ পেয়েছে। আরেকজন শ্রমিক লীগ নেতার বিরুদ্ধে নৌ পথে চাঁদাবাজীরও অভিযোগ তুলেছে।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিকলীগও বিভক্ত। জাতীয় শ্রমিকলীগ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার ৭১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটির সভাপতি পদে জাতীয় শ্রমিকলীগের সভাপত্বি শুক্কুর মাহমুদ আবারো নির্বাচিত হন। ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সাধারণ সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতিটি পদে দ্বিতীয় কোন প্রতিদ্বন্দ্বীতা না আসায় ৭১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। শ্রমিকলীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ ও সেক্রেটারী পদে মাঈনউদ্দিন আহমেদ বাবুল পুনরায় নির্বাচিত হন। এছাড়া প্রথম সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সবুজ শিকদার।

এদিকে ওই কমিটি গঠনের ৪১ দিন পরে পাল্টা একটি কমিটি কেন্দ্রে জমা দেয় জেলা শ্রমিকলীগের একাংশের নেতারা। এতে সোনালী ব্যাংকের সিবিএ নেতা আব্দুস সালামকে সভাপতি ও সোনালী ব্যাংকের সিবিএ নেতা আক্তার হোসেনকে সেক্রেটারী প্রস্তাব করা হয়। যদিও এর আগের কমিটিতে সহসভাপতি পদে পাল্টা কমিটির সভাপতি আব্দুস সালাম এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে পাল্টা কমিটির সেক্রেটারী মোঃ আক্তারুজ্জামানের নাম ছিল।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও