বিএনপির রাজনীতিতে আর সক্রিয় হচ্ছেন না সভাপতি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৮ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ সোমবার

বিএনপির রাজনীতিতে আর সক্রিয় হচ্ছেন না সভাপতি

অনেকদিন ধরেই রাজপথের দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামানের দেখা মিলছে না। সবশেষ ১৮ নভেম্বর সোমবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের গলিতে পেঁয়াজ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশেও তিনি অনুপস্থিত ছিলেন।

নেতাকর্মীদের ভাষ্যমতে, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে আর সক্রিয় হচ্ছেন না। ঘরোয়া কর্মসূচি ছাড়া রাজপথের কোন কর্মসূচিতে তার দেখা মিলবে না। আর এভাবেই তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি থেকে বিদায় নিয়ে যাবেন।

দলীয় সূত্র জানায়, পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি প্রতিবাদে ও কৃষকদের পণ্যের ন্যায্য মূল্যের দাবিতে ১৮ নভেম্বর সোমবার ঢাকা সহ সারা দেশে প্রতিবাদ সমাবেশ করার ঘোষণা দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি।

আর বিএনপির এই কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অংশ হিসেবে নারায়য়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ১৮ নভেম্বর সোমবার বিকেল ৩টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব সংলগ্ন প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদের পক্ষ থেকে সমাবেশ সফল করার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠন, সকল থানা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন এর সর্বস্তরের নেতাকর্মীকে অবশ্যই উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

যার সূত্র ধরে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা সময়মতো উপস্থিত হলেও সেখানে অনুপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির অভিভাবক কাজী মনিরুজ্জামান। প্রতিবারের মতো এবারেও নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ কর্মসূচির নেতৃত্ব দেন। যদিও পুলিশের বাধায় তাদেরকে কর্মসূচি পালন না করেই ফিরে যেতে হয়েছে।

তবে নেতাকর্মীদের মতে, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান উপস্থিত থাকলে কর্মসূচি আরও জোড়দার হতে পারতো।

এর আগে অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ভারতের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সরকারের চুক্তিকে দেশের `স্বার্থবিরোধী` উল্লেখ করে তা বাতিল দাবি এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। কর্মসূচি অনুযায়ী গত ১২ অক্টোবর ঢাকাসহ দেশের সব মহানগর এবং ১৩ অক্টোবর দেশের সব জেলা সদরে জনসমাবেশ করার ঘোষণা দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ১৩ অক্টোবর সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের গলিতে সমবেত হয়েছিলেন। যেখানে প্রতিবারের মতোই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান অনুপস্থিত ছিলেন। তবে নেতাকর্মীদের নিয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ উপস্থিত হয়েছিলেন। কিন্ত পুলিশ তাদেরকে দাঁড়াতেই দেয়নি। নেতাকর্মীদের বাঁচাতে গিয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে পুলিশের হেনেস্তার শিকার হতে হয়।

একইভাবে গত ১২ সেপ্টেম্বর বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের গলিতে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সু-চিকিৎসার দাবীতে জেলা বিএনপির উদ্যোগে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। পুলিশের বাধা না থাকা সত্ত্বেও এদিনের মানববন্ধন কর্মসূচিতে পূর্বের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান উপস্থিত হননি। সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ সভাপতির দায়িত্ব পালন করে কর্মসূচির সমাপ্তি করেন।

এদিকে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় বিএনপি গত ২ জুলাই ঢাকা বাদে সারা দেশে প্রতিবাদ কর্মসূচি এবং ঢাকা মহানগরীর থানায় থানায় মিছিল কর্মসূচির ঘোষণা দেয়। যার ধারাবাহিকতায় এদিন বিকেলে শহরের বালুরমাঠ এলাকার তিতাস গ্যাস অফিসের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি। সেই কর্মসূচিতেও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান অনুপস্থিত ছিলেন।

এভাবে একের পর এক দলীয় কর্মসূচিতে কাজী মনিরুজ্জামানের অনুপস্থিতি তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে। তবে নেতাকর্মীরা ধরে নিচ্ছেন, আগামীতে জেলা বিএনপির কমিটিতে কাজী মনিরুজ্জামান আর থাকছেন না। এ জন্যই সাম্প্রতিক সময়ের কর্মসূচিগুলোতে তার দেখা মিলছে না। কাজী মনিরুজ্জামান নিজেও বলে দিয়েছেন, রাজপথের কোন কর্মসূচিতে তিনি আর থাকবেন না। ঘরোয়া কর্মসূচি হলেই তিনি উপস্থিত থাকবেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও