মহানগর আওয়ামী লীগের সভায় দুলাল প্রধানের বহিষ্কার দাবি

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৪ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার

মহানগর আওয়ামী লীগের সভায় দুলাল প্রধানের বহিষ্কার দাবি

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি শেখ হায়দার আলী পুতুল বলেছেন, ‘২৩ নং ওয়ার্ডে যারা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত এবং যাদের বিরুদ্ধে বর্তমানে মামলা রয়েছে তাদের কথা পত্রিকায় এসেছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। সদস্য ফরম দেয়ার মালিক কে, সদস্য ফরম পদ কে পাবে এই নীতিমালা কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ ঠিক করে দেয়। আওয়ামীলীগ থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হবে আমাদেরকে সে অনুযায়ী চলতে হবে। কেন্দ্রে থেকে নির্দেশনা আছে যারা মাদক ব্যবসায়ী, চাঁদাবাজ, ভূমিদস্যু, সন্ত্রাসী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের বাদ দিয়ে সদস্য ফরম বিতরণের কাজ করতে হবে।’

১৯ নভেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে শহরের ২ নং রেলগেট সংলগ্ন আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের জরুরী সভায় তিনি এ কথা বলেন।

২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সেক্রেটারী দুলাল প্রদানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা কেউ আনোয়ার হোসেনকে কখনো কটূক্তি করেছেন। কিন্তু সে (দুলাল) অনুপ্রবেশকারী তাই সে জানেনা আনোয়ার হোসেন কি জিনিস তার অবদান কি। তাই সভাপতিকে নিয়ে বিরুপ মন্তব্যকারী দুলাল প্রধানের বহিষ্কারের দাবি জানাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, আজকে শুদ্ধি অভিযানে আওয়ামীলীগের অনেক রাঘববোয়ালরা ধরা পড়ছে। এসব লুটেরারা দলের চুনকালি মাখাচ্ছে। তাদের জন্য আওয়ামীলীগের আজকে বদনাম হচ্ছে। দলের ভেতরে থাকা মাদক ব্যবসায়ী, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী সহ বিতর্কিতদের যে কোন মূল্যে দল থেকে বহিষ্কার করতে হবে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরাফাত বলেন, দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেনে বিরুদ্ধে এরুপ মন্তব্য কিছুতেই মেনে নেয়া হবেনা। প্রয়োজনে মন্তব্যকারীকে শায়েস্তা করা হবে। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকতে চাই নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বীতা থাকতেই পারে কিন্তু কেউ ডার্টি পলিটিক্সে (নোংরা রাজনীতি) যাবেন না।

তিনি আরো বলেন, আমরা যারা দল করি এমপি মন্ত্রীদের সাথে ভাল সম্পর্ক কিংবা যোগাযোগ থাকতে পারে। কিন্তু দলে থাকতে হলে দলের সভাপতি সেক্রেটারীর নির্দেশনা মেনে চলতে হবে। দল করবেন অথচ সভাপতি সেক্রেটারীকে মানবেন না তা হবেনা। আমরা সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। এর মানে তা নয় কেউ দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে মন্তব্য করবেন আমরা চুপ করে বসে থাকবো, তেমনটা চিন্তা করার সুযোগ নেই।

এছাড়া প্রতিবাদ সভায় অনেক নেতৃবৃন্দ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দুলাল প্রধানের বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছেন। মৌখিক বক্তব্য ছাড়াও লিখিত প্রতিবাদেও তার বহিষ্কারে দাবি জানানো হয়।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম সম্পাদক আহসান হাবিব, জি এম আরমান, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রশিদ, ২৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য ফরম বিতরণ কমিটির সদস্য ও আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ুন কবির মৃধা, মো. সামছুজ্জামান সহ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত বন্দরে ২৩ নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের ফরম বিতরণ নিয়ে আনোয়ার হোসেন সম্পর্কে তির্যক মন্তব্যও করেন দুলাল প্রধান।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীদের কোন প্রকার মতামত না নিয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন নিজের মনগড়া মত সদস্য ফরম বিতরণ করছেন। জাতির জনক শেখ মজিবুর রহমানের আদর্শের সংগঠন আওয়ামীলীগ। এটা কারো পৈত্রিক সম্পত্তি না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে ‘অসুস্থতার অভিনয়’ করে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছে বিনাভোটে। ভোট যুদ্ধে বিজয়ী হলে তিনি বুঝতে পারতেন আওয়ামী লীগ একটি বৃহত্তম সংগঠন পৈত্রিক না। দেশে সদস্য সংগ্রহ চলছে। আনোয়ার হোসেন দলের গঠনতন্ত্র না মেনে ফরম দিচ্ছে নিজের মত করে। মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়ে তিনি যেগুলো করছে তা আর মানা হবে না। নিয়মের মধ্য থেকে সকল কিছু করতে হবে।’

এখানে উল্লেখ্য পুলিশের জালে আটকা পড়েন ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফ উদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান যিনি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় নেতা ছিলেন। যার ফলস্বরূপ তিনি মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হয়েছিলেন। কিন্তু তাকেও মাদক মামলায় গ্রেফতার হতে হলো। গত ১ আগস্ট শহরের নবীগঞ্জ খেয়াঘাট এলাকা থেকে ফেনসিডিল সহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তিনি কারাভোগও করেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও