বিতর্কে মহানগর আওয়ামী লীগ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪০ পিএম, ২ ডিসেম্বর ২০১৯ সোমবার

বিতর্কে মহানগর আওয়ামী লীগ

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের তিনটি ওয়ার্ডের সম্মেলন তারিখ নির্ধারণ ও পরিবর্তনের সংবাদে হতাশা প্রকাশ করেছেন নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে মহানগরের ২৭টি ওয়ার্ডের নেতাদের মধ্যে সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। কোন সভায় ছাড়াই মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা ও যুগ্ম সম্পাদক এস এম আহসান হাবিব তিনটি ওয়ার্ডের নেতাদের তারিখ ঘোষণা করেন।

তিনটি ওয়ার্ডের নেতারাই তাৎক্ষনিক অনিহা ও দ্রুত তারিখের হতাশা প্রকাশ করেছিলেন বলে জানা গেছে। খোকন সাহা ও আহসান হাবিব এমন সিদ্ধান্তে মহানগর আওয়ামীলীগের সম্মেলন শুরু আগেই হোঁচট খাওয়ায় দলের সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে ছিলেন ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর দুলাল প্রধান। এ নিয়ে মাত্র একটি প্রতিবাদ করে ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ। পরে অদৃশ্য শক্তি দলের সভাপতি বিরুদ্ধে এই নেতা ব্যাপারে চুপ হয়ে যায় সকলে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ১৮ নভেম্বর ওমরাহ হজের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। এর ফাঁকে মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা ও যুগ্ম সম্পাদক এস এম আহসান হাবিব ২নং রেলগেইটস্থ দলীয় কার্যালয়ে ১১, ১৪, ১৬নং ওয়ার্ডের বর্তমান নেতাদের ডেকে এনে একে একজন তারিখ ধরিয়ে দেন। এ সময় মহানগরের অধিনস্থ শহরের প্রাণকেন্দ্র ১৪নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির উপস্থিত দুইজনকে এই তারিখে সম্মেলনে অনিহা প্রকাশ করেন। পরে উপস্থিত নেতারা বলেন, চেষ্টা কর আমরা আছি।

এ ব্যাপারে ১৪নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির বলেন, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের অনুপস্থিতিতে দলের সাধারণ সম্পাদক ও একজন যুগ্ম সম্পাদক এমনভাবে সম্মেলনে তারিখ বলে দিবে, তা কি হয়? এই ওয়ার্ডটি হলো ভিআইপি ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডের অনেক সিনিয়র নেতা রয়েছে, তাদের মতামত আমাদের প্রয়োজন। তখন উপস্থিত নেতারা আমাকে তারিখ বলেছিল, তখনই আমি না করে, নতুন তারিখ দেয়া কথা জানিয়ে ছিলাম।

হঠাৎ সম্মেলনে তারিখ নিয়ে ১৬নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক এবং মহানগর আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, দলের সভাপতি ছিলেন ওমরাহ। এর মধ্যে দলের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা আমাকে ডেকে নিয়ে ১০ নভেম্বর ১৬ন ওয়ার্ডের সম্মেলনে প্রস্তুতি নেয়ার কথা জানান। তখন আমি বলে ছিলাম, হঠাৎ তারিখ! আমার এই ওয়ার্ড সম্মেলনে প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শেষ দিকে। বর্তমানে এই ওয়ার্ডের সম্মেলন করার ব্যবস্থা করা সম্ভব। কিন্তু এ ব্যাপারে হঠাৎ তারিখ তুলে দেয়া অর্থ বুঝতে পারেনি। উপস্থিত তারা হলেন আমাদের নেতা, তারা যাহা বলবেন আমরা তাহা করতে প্রস্তুত।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ১৮ নভেম্বর সৌদি আরবে ওমরাহ পালনে দেশত্যাগ করে। তখন থেকে দলের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা মহানগর আওয়ামীলীগের বন্দরের ৯টি ওয়ার্ডে চষে বেড়িয়েছিলেন। তখন তার সাথে দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়া বিতর্কিত কাউন্সিলর দুলাল প্রধান ছিলেন বলে দলের একাধিক নেতা জানিয়েছে। মহানগরের কোন শীর্ষ নেতা প্রশ্রয়ে দলের সভাপতি বিরুদ্ধে এভাবে চ্যালেঞ্জ করে ছিলেন দুলাল প্রধান। অবশ্য পরে তিনি এই কথা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন। কিন্তু দলের সভাপতি ২৮ নভেম্বর দেশে আসা পরও এ ব্যাপারে আলোচনা না আসায় আনোয়ার পন্থী নেতাকর্মীদের চাপা ক্ষোভ রয়েছে বলে একটি সূত্রে জানা গেছে।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরাফাত বলেন, সম্মেলন তারিখ নিয়ে দলে অনেক জানতেন না। ঘোষণা পর থেকে অনেকে জেনেছেন, তারপর অনেক পর পত্রিকা আসায় সবাই জেনেছে। তিনটি ওয়ার্ডের সম্মেলনে নেতাদের তারিখ দেয়া সময় আমি ছিলাম না, তাই ওখানে কে কি বলেছে, আমার জানা নেই। তারিখ দেয়া বিষয়ে সভাপতি জানেন কি না উত্তরে আরাফাত বলেন, এ ব্যাপারে আমি জানি না। কিন্তু সভাপতি সাহেব ওমরাহ যাবার আগে আমাকে এ ব্যাপারে কিছু বলে যায়নি।

বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জ ওয়ার্ড রেখে শহরের তিনটি ওয়ার্ড সম্মেলনে পরিকল্পনায় জি এম আরাফাত বলেন, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জ ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কমিটির কোন হদিস নেই। সেখানে প্রায় ওয়ার্ড সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের শাখা ছিলো। সেই কারণে হয়তো দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক শহরের ওয়ার্ড থেকে সম্মেলন শুরু করার পরিকল্পনা করেছে।

উল্লেখ্য, দলীয় নেতাদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা ছাড়াই নারায়াণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের অধীনে ১১, ১৪ এবং ১৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন এ তারিখ নির্ধারণ করেছেন। তারিখ নির্ধারণের পর তিনি ওমরাহ হজ পালনের জন্য সৌদি আরব চলে যান। এর মধ্যে তারিখ ঘোষণার খবর গণমাধ্যমে আসলে নেতারা সেই তারিখের বিরুদ্ধে আলোচনার জন্ম দেন এবং সভাপতি সম্পাদকের কাছে বিষয়টি উপস্থাপনের জন্য ঠিক করেন। পরে আনোয়ার হোসেন ২৮ নভেম্বর দেশে ফিরে আসলে শনিবার বিষয়টি দলের অঘোষিত সভায় উপস্থাপন করা হয়। দলীয় কোন সিদ্ধান্ত না হলেও পরবর্তীতে সম্মেলনের তারিখগুলো পরিবর্তন হতে পারে বলে সভায় উপস্থিত নেতাকর্মীদের সূত্রে জানা গেছে।

নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী ডিসেম্বরের ৮ তারিখ ১১ নং ওয়ার্ডে, ৭ তারিখ ১৪ নং ওয়ার্ডে এবং ১০ তারিখ ১৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এস এম আহসান হাবীব এ তথ্য নিশ্চিত করেছিলেন। তিন ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে লিখিতভাবে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছিল মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে।

অঘোষিত সভায় উপস্থিত নেতাদের সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতাদের পছন্দমত সম্মেলনের তারিখ দিতে মৌখিকভাবে তারা সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারন সম্পাদক খোকন সাহাকে জানিয়েছেন। তারাও তাদের দাবিগুলো শুনেছেন এবং সে অনুযায়ী দলের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

দলের যুগ্ম সম্পাদক জিএম আরমান জানান, দলীয় কাউন্সিলের তারিখ পরিবর্তন হতে পারে তিনটি ওয়ার্ডের। নেতারা তাদের বক্তব্য তুলে ধরেছেন আর সভাপতি সাধারন সম্পাদকও তা শুনেছেন। তবে তারা তাৎক্ষনিক কোন সিদ্ধান্ত দেননি।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও