আইভীর মামলায় নেই বামদল নেতা হকাররা, অভিযুক্ত শামীম অনুগামীরা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২২ পিএম, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

আইভীর মামলায় নেই বামদল নেতা  হকাররা, অভিযুক্ত শামীম অনুগামীরা

হকার ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জে এক কলঙ্কময় অধ্যায় রচিত হয়েছিল ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী। হকার ইস্যুতে সংঘর্ষে মেয়র আইভী বলয়ের সাথে হকারদের তুমুল সংঘর্ষে মেয়র আইভী সহ অর্ধশতাধিক সেদিন আহত হয়। এই সংঘর্ষের ঘটনায় ওসমান বলয়ের অনুগামীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। অথচ হকারদের আন্দোলনে প্রথম থেকে সমর্থন দিয়ে গেছেন তাদেরকে মামলার আসামী করা হয়নি। এমনকি হকার নেতাদেরও এখন পর্যন্ত আসামী করা হয়নি। যেকারণে এই মামলা নিয়ে চারদিকে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘সংঘর্ষের দিন আইভী সমর্থকদের সাথে হকার সমর্থকদের সংঘর্ষে জড়াতে দেখা যায়। হকার নেতাদেরও দেখা যায়। কিন্তু মামলায় একেবারে ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। সেখানে শুধু ওসমান বলয়ের অনুগামীদের বিবাদী করা হয়েছে।’

২০১৮ সালের সেই হকার ইস্যুতে সংঘর্ষের ঘটনায় দীর্ঘ প্রায় ২২ মাস পর ওসমান বলয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছে আইভী বলয়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আইন বিষয়ক কর্মকর্তা জিএম এ সাত্তার বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জর একটি আদালতে মামলার আবেদনে ওই মামলার আবেদন করেন। সেই সংঘর্ষের ঘটনার পেছনে ইন্ধনদাতা ও প্ররোচনায় প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমানকে দোষারোপ করা হয়েছে এই মামলার আবেদনে।

অভিযোগে প্রধান আসামী করা হয়েছে ঘটনার দিন অস্ত্র বের করা নিয়াজুল ইসলামকে। এছাড়া অভিযুক্ত অন্যরা হলের মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, ঘটনাস্থলে থাকা মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী মিজানুর রহমান সুজন, যুবলীগ নেতা জানে আলম বিপ্লব, আওয়ামীলীগ নেতা নাছির উদ্দিন ও চঞ্চল মাহমুদ।

৪ ডিসেম্বর বুধবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ফাহমিদা খাতুনের আদালত ওই মামলার আবেদন গ্রহণ করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন। আবেদনে বলা হয়, বিবাদীরা মামলার সাক্ষীপ্রমাণ বিনষ্ট ও গায়েব করার পরিকল্পনা করছে। বিবাদীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করে গ্রেপ্তার করার আর্জি করা হয়।

আর্জিতে বলা হয়, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী বিকেল ৪টায় মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও অন্যদের সাথে নিয়ে পদযাত্রা শুরু করে। বিকেল সাড়ে ৪টায় পদযাত্রাটি বঙ্গবন্ধু সড়কের চাষাঢ়া সায়েম প্লাজার সামনে আসলে বিবাদীরা অত্যাধুনিক পিস্তল, রিভলবার, শর্টগান ও দেশী অস্ত্র নিয়ে চারদিক থেকে হামলা করে। বৃষ্টির মত ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। মেয়র সহ সঙ্গে থাকা লোকজনদের হত্যার উদ্দেশ্যে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। হামলায় আইভী সহ ৪৩ জন গুরুতর ও শতাধিক আহত হয়। আর্জিতে এও বলা হয়, বিবাদীরা সকলেই এমপি শামীম ওসমানের ইন্ধনে ও প্ররোচনায় উক্ত ঘটনা ঘটায়।

জানা গেছে, বাংলাদেশ কমিনিস্ট পার্টি (সিপিবি) জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম প্রথম থেকে হকারদের পক্ষ নিয়ে বিভিন্ন সময় বক্তব্য দিয়ে আসছেন। এমনকি হকারদের সমর্থন দিয়ে আন্দোলনেও নামিয়েছেন। গত ১৬ জানুয়ারী নারায়ণগঞ্জ শহরে হকার ইস্যুতে সংঘর্ষের ঘটনায় হকারদের সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে দেখা গেছে হকার নেতা আসাদকে। সেদিন তাকে ঢিল ছুড়তেও দেখা যায় যা বিভিন্ন গণমাধ্যমের ছবি আকারে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও তার সাথে আরো অনেক হকারকে দেখা যায়। তবে ২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর থেকে শহরে হকার বসা নিষিদ্ধ করে পুলিশ-প্রশাসন। সেসময় হকারদের পক্ষ নিয়ে বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম সহ গুটি কয়েক বাম নেতা হকারদের পক্ষ নিয়ে মাঠে নামে। এরপর হকারদের পক্ষ নিয়ে এমপি শামীম ওসমান দ্বিতীয় দফায় মাঠে নামে।১৬ জানুয়ারীতে শহরে মেয়র আইভী সমর্থকদের সাথে হকারতের সংঘর্ষ বাধে। এসময় মেয়র আইভী আহত হলে শহর উত্তপ্ত হয়ে উঠে।

নির্দিষ্ট সূত্র বলছে, এটা নিছক রাজনীতিক প্রতিহিংসার মামলা। যেকারণে হকারদের সাথে সংঘর্ষে জড়ালেও ওসমান বলয়ের অনুগামীদের বিরুদ্ধে শুধু মামলা দেয়া হয়েছে। হকার ও বাম নেতাদের বিরুদ্ধে কোন মামলা হয়নি। এতে করে এই মামলাটি কার্যত অর্থে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। তাছাড়া আইভী মেরুর সাথে ওসমান বলয়ের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীতা রয়েছে তা সবার জানা। অন্যদিকে হকার ইস্যুতে ওসমান বলয়ের সাথে আইভী বলয়ের বিরোধী আরো কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। এদিকে এক পক্ষকে বিবাদী করে এই মামলার বিষয়টি সেই প্রতিহিংসার বিষয়টিকে বাস্তবে রুপ দিচ্ছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও