হতাশ করলো নারায়ণগঞ্জ বিএনপি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৬ পিএম, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ রবিবার

হতাশ করলো নারায়ণগঞ্জ বিএনপি

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরেই কারাগারে দিনযাপন করছেন। একই সাথে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াও দীর্ঘদিন ধরে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। বারবার বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন দেয়ার কথা শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত তার আর জামিন হচ্ছে না। একের পর এক শুনানীর তারিখ ঘুরিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার কারাবরণ আরও দীর্ঘ করা হচ্ছে।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে বিএনপিও জোরালো কোন আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তুলতে পারছেন না। তবে এবার সকল বাধা বিপত্তির মোকাবেলা করে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে জোড়ালো আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তুলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। আন্দোলনের মাধ্যমেই তারা খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চি করতে চায়। কিন্তু এই প্রস্তুতির প্রথমদিকেই নেতাকর্মীদের হতাশ করলো নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা। দেশের বিভিন্ন জায়গায় কর্মসূচি পালিত নারায়ণগঞ্জে কোন কর্মসূচি পালিত হয়নি।

জানা যায়, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদ- দেন আদালত। পরবর্তীতে একই বছরের ৩০ অক্টোবর সেই সাঁজা বেড়ে ১০ বছর কারাদ- দেন আদালত। এরপর থেকই বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে দিনযাপন করছেন। তার কারামুক্তিতে বিএনপি একের পর এক কর্মসূচি পালন করে আসলেও শেষ পর্যন্ত কোন কর্মসূচিই জমজমাটভাবে পালিত হয়নি।

সাম্প্রতিক সময়ে কয়েক দফায় বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন শুনানী পিছানো হয়েছে। ফলশ্রুতিতে বিএনপি নেতারা মনে করছেন, সরকার অথবা সরকার প্রধানের বাধাই খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রধান অন্তরায়। আর তাই বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে বিএনপি কঠোর কর্মসূচি সিদ্ধান্ত দিয়েছে। তবে আপাতত কঠোর কোন কর্মসূচিতে যাবে না বিএনপি।

খালেদা জিয়ার জামিন শুনানির জন্য সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ যে ১২ ডিসেম্বর ধার্য তারিখ রেখেছেন ওইদিন পর্যন্ত বিএনপি দেখবেন। জামিন না হলেই কেবল স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কর্মসূচি দেবে। তবে তার আগ পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চালিয়ে যাবে বিএনপি।

তারই ধারাবাহিকতায় কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আগামী ১২ ডিসেম্বরের পূর্ব পর্যন্ত বিক্ষোভসহ শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। এর অংশ হিসেবে খালেদা জিয়ার জামিনের শুনানি পেছানোর প্রতিবাদে ৮ ডিসেম্বর রবিবার ঢাকাসহ বিভাগীয় শহর ও জেলায় বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দেয় বিএনপি। ঢাকা মহানগরীসহ সব মহানগরের থানায় থানায় ও সব জেলা সদরে এ কর্মসূচি পালিত হবে।

গত ৭ ডিসেম্বর যৌথসভা শেষে এ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তবে কেন্দ্রীয় ঘোষিত এই কর্মসূচিতে সাড়া দেয়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবী নিয়ে জেলা ও মহানগরের কোথাও কোন কর্মসূচি পালিত হয়নি।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীদের এই ভূমিকায় হতাশ হয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। আন্দোলনের প্রথম দিকেই রাজধানীর পার্শ্ববর্তী জেলা হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির এই ব্যর্থতা কাম্য ছিল না নেতাকর্মীদের। কেউ কেউ আবার বরাবরের মতোই জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষ নেতাদের দায়িত্ব পালনের যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন।

সূত্র বলছে, গত ২৩ মার্চ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান এবং সেক্রেটারী অধ্যাপক মামুন মাহমুদ সহ ২০৫ জনের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ঘোষণা দিয়েছেন। এর আগে ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ২৬ জনের আংশিক কমিটির ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। সেই সাথে এর একদিন আগে ১৩ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক তিনবারের এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালামকে সভাপতি ও বিলুপ্ত নগর বিএনপির সেক্রেটারী এটিএম কামালকে সাধারন সম্পাদক করে মহানগর বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। এরপর সেই কমিটিতে অনেক যোজন বিয়োজন করে ৩০ অক্টোবর বুধবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল আলমগীর স্বাক্ষরিত নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও