‘ভূমির ডন’ গিয়াস নারায়ণগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহবায়ক

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৪ পিএম, ২০ ডিসেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

‘ভূমির ডন’ গিয়াস নারায়ণগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহবায়ক

নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির প্রস্তাবিত আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহবায়ক লিয়াকত হোসেন খোকা এমপি প্রস্তাবিত এ কমিটির অনুমোদন দেন।

তবে এ গিয়াসউদ্দিনকে নিয়ে রয়েছে নানা বিতর্ক। গত কয়েক বছরে তাকে ঘিরে অনেক ঘটনা ঘটেছে। বন্দর এলাকাতে গিয়াসউদ্দিন ভূমির তথা জমির ‘ডন’ হিসেবেই পরিচিত।

সম্প্রতি বন্দর সাব রেজিস্টার দলিল লিখক ও ভেন্ডার সমিতির সভাপতি গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে সমিতির ৩০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছিল। ওই ঘটনায় বন্দর সাব রেজিস্টার অফিসের সামনে সমিতির শতধিক দলিল লিখক প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভও করেন।

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ ছিল, গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী সভাপতির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে সমিতির কোন হিসাব না দিয়ে প্রায় ৩০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। সমিতির সদস্যরা আরও বলেন, সমিতির সভাপতি বিভিন্ন সদস্যকে সনদ বাতিল করে দেয়ার হুমকি দেয়। তার বাড়িতে সাব রেজিস্টার অফিস এনে সাব রেজিস্টারের সাথে মিলে অনেক সরকারি জমি আত্মসাৎ সহ অনেক অনিয়ম করেছে।

এর আগে গিয়াসউদ্দিন ভেন্ডারের বিরুদ্ধে এমপি সেলিম ওসমানের কাছে অভিযোগ করেছে বন্দরবাসী। তাদের অভিযোগ ছিল বন্দর জাতীয় পার্টি প্রভাবশালী নেতা গিয়াসউদ্দিন ভেন্ডার সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে তাদের বাড়ি ও জায়গা জমি হাতিয়ে নিচ্ছে।

বিগত দিনে বিএম স্কুল এন্ড কলেজের হলরুমে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে স্কুলের নিকট জমি বিক্রির নামে আত্মসাতকৃত টাকা উদ্ধারে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আমীরুল ইসলাম এবং জাতীয় পার্টির নেতা ও স্কুলের সাবেক সভাপতি গিয়াসউদ্দিন চৌধুরীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। দুজনের বর্ণনায় বেরিয়ে আসে স্কুলের ভেতরের ও বাইরের নানা দুর্নীতি অনিয়মের চিত্র।

বৈঠকে উপস্থিত একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, স্কুলের কোট টাকা লোপাট ও দুর্নীতির সাথে উভয়েই জড়িত। এজন্য আমিরুল ও গিয়াসউদ্দিন দুজনের কাছ থেকেই স্কুলের নামে চেক নেয়া হয়। ১০ দিনের মধ্যে এই চেকের টাকা স্কুলের একাউন্টে জমা হতে হবে। নইলে জমি জালিয়াতি, দলিল জালিয়াতি, স্কুলের অর্থ জালিয়াতি, সরকারের অর্ধকোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির ঘটনায় মামলা করা হবে।

অভিযোগে জানা গেছে, বন্দর ২২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম বিভিন্ন সময়ে বি এম স্কুলের কাছে বিক্রিকৃত ২২ দশমিক ৭১ শতাংশ জমির পুরোটাই ভুয়া। অর্থাৎ ভুয়া দলিলের মাধ্যমে মালিকানা জাহির করে স্কুলের কাছে জমি বিক্রি করে আমীরুল হাতিয়ে নিয়েছে কোটি টাকা।

ভূমি অফিস এবং বন্দর থানা পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। ‘স্কুলের টাকা আত্মসাতকারী রাজাকারের চেয়েও খারাপ’ এই ঘোষনা দিয়ে এমপি সেলিম ওসমান স্কুলের টাকা আদায়ে কঠোর হুশিয়ারী দেন এবং ৭ দিনের আলটিমেটাম দেন। টাকা আদায়ের জন্য আবুল জাহের, এম এ রশীদ ও বন্দর থানার ওসিকে দায়িত্ব প্রদান করেন। এমপির নির্দেশের ৪ দিনের মাথায় আত্মসাতকৃত কোটি টাকার চেক আদায় করে এমপি সেলিম ওসমান কর্তৃক গঠন করে দেয়া কমিটি।

বিক্ষুব্ধ দলিল লিখকরা জানায়, ২০১৫ সালে প্রথম নবীগঞ্জ হতে সাব রেজিস্ট্রি অফিসটি বন্দর খেয়াঘাটের কাছে গিয়াস ভেন্ডারের বাড়ীতে আনার চেষ্টা চালায়। সেসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে দলিল লিখক ও ভেন্ডাররা তীব্র আপত্তি জানিয়ে বিষয়টি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমানের সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি অবহিত করেন। শামীম ওসমানের হস্তক্ষেপে গিয়াস ভেন্ডারের বাড়ীতে রেজিস্ট্রি অফিস স্থানান্তর কার্যক্রম বন্ধ হয়। পরে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খতিব মাওলানা সালাউদ্দিন আহমেদের বাড়ীতে (কলাবাগ, চৌধুরী বাড়ী) রেজিস্ট্রি অফিস স্থানান্তর হয় এবং শান্তিপূর্নভাবে কার্যক্রম চলে আসছিলো। ২ বছর পর ২০১৭ সালে আবারও সেই গিয়াস ভেন্ডার পুনরায় সাব রেজিস্ট্রি অফিস তার বাড়ীতে আনার পাঁয়তারা শুরু করে। ওই বছরের ৪ এপ্রিল রেজিস্ট্রি অফিস গিয়াস ভেন্ডারের বাড়ীতে নেয়ার প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের কলম বিরতি শুরু করে বন্দর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লিখক ও ভেন্ডাররা।

এদিকে জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহবায়ক হয়ে গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী জানান, দলের সাংগঠনিক শক্তিশালী করা জন্য কাজ করে যাবা যেন আগামীতে দল রাষ্ট্রীয় পরিচালনা করতে পারে। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের হাতকে আরো শক্তিশালী করে মানুষের সেবা করতে পরি। দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই সব সময় যেন সবার পাশে থেকে কাজ করতে পারি।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও