নারায়ণগঞ্জ সিটিতে বিভা ও অসিত ছাড়া কাউন্সিলররা অবমূল্যায়িত!

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৪:৫৯ পিএম, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯ বুধবার

নারায়ণগঞ্জ সিটিতে বিভা ও অসিত ছাড়া কাউন্সিলররা অবমূল্যায়িত!

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের অনেক কর্মকান্ডের খবর পাচ্ছেন না অভিযোগ তুলেছেন অনেক কাউন্সিলর। তারা ক্ষুব্ধ মনোভাব প্রকাশ করে বলেন, সিটি করপোরেশনের সকল কাজের খবর প্যানেল মেয়র আফরোজা আফরোজ বিভা ও কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস ছাড়া অন্যদের তেমন জানানো হয় না। এমনকি অপর প্যানেল মেয়র সিদ্ধিরগঞ্জের মতিউর রহমান মতিকেও না জানানোর অভিযোগ রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে বর্তমানে ২৭টি ওয়ার্ডে ২৭জন কাউন্সিলর ও ৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৯জন নারী কাউন্সিলর রয়েছে।

এর মধ্যে কাউন্সিলরদের ভোটে নির্বাচনে প্যানেল মেয়র-১ আফরোজা হাসান বিভা, প্যানেল মেয়র-২ মতিউর রহমান মতি ও প্যানেল মেয়র-৩ মিনোয়ারা বেগম মিনু নির্বাচিত হয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কাউন্সিলর জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের অনেক খবর সকল কাউন্সিলরদের কাছে জানানো হয় না। এ ক্ষেত্রে মেয়র আইভীর প্রতি অবিচল এবং যাদের উপর আইভীর বিশ্বাস রাখছেন তাদেরকেই জানানো হয়। শহরের মধ্যে ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কবির হোসাইন, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস হলেন আইভীর কাছে বেশ বিশ্বস্ত।

এর আগে আইভী আস্থা বেশী রাখতেন সাবেক কাউন্সিলর ওবায়েদউল্লাহর প্রতি। এবার সেটা বর্তাচ্ছে আফরোজা বিভা হাসানের উপর। তিনি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর হলেও প্যানেল মেয়র-১ নির্বাচিত হয়েছেন। এ ক্ষেত্রে আইভীর পরোক্ষ সমর্থন ছিল এমন কথা জানান অনেক কাউন্সিলর। প্যানেল মেয়র-২ পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা নির্বাচিত হন মতিউর রহমান মতি যিনি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের সভাপতি। সেই সঙ্গে তিনি এমপি শামীম ওসমানের অনুগামীদের একজন।

২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরের বছর ২০১৭ সালে প্যানেল মেয়রের ভোট হয়।

সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ, সিটি করপোরেশনের অনেক কর্মকান্ড, বিদেশীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ থেকে শুরু করে অনেক প্রকল্পের খবরও পান না কাউন্সিলরদের একটি বড় অংশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কাউন্সিলর বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর পর অগ্রাধিকার পাচ্ছেন ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস। তার পরে প্যানেল মেয়র বিভা হাসান। অপর প্যানেল মেয়র মতিউর রহমান মতিকেও অনেক বিষয় অবহিত করা হয় না।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সাথে ওয়াসার পানি সরবরাহের হস্তান্তরে ঢাকা ওয়াসার সঙ্গে চুক্তি করা হয়। এ ঘটনায় সিটি করপোরেশনের অধিবাসীদের মধ্যে স্বস্তি ফিরলেও কাউন্সিলরদের একটি বড় অংশের নেতাদের মধ্যে আছে ক্ষোভ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর জানিয়েছেন, ওয়াসার ওই চুক্তির খবর তারা পরে গণমাধ্যম ও অনলাইন পোর্টালে জেনেছেন। চুক্তির খবর আগে জানানো হয়নি। এটা বেশ হতাশাজনক।

গত ৩১ অক্টোবর ঢাকা সোনারগাঁ হোটেল সুরমা হল রুমে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম ও স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের উপস্থিতিতে ঢাকা ওয়াসা থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের হস্তান্তরে চুক্তি করা হয়। এতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান একে অপরের কাগজপত্রে স্বাক্ষর করেন।

ওই অনুষ্ঠানে সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী এহতেশামুল হক, প্যানেল মেয়র আফরোজা হাসান বিভা, কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, কবির হোসেন, মিনোয়ারা বেগম মিনু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কাউন্সিলর জানান, সিটি করপোরেশনের অনেক অনুষ্ঠানেই তাদের জানানো হয় না। সবশেষ ওয়াসার সঙ্গে চুক্তির ঘটনাটি ঐতিহাসিক। কিন্তু বিষয়টি জানানো হয়নি অনেক কাউন্সিলরকে। ফলে ভোটার ও এলাকাবাসীর কাছে তাদের প্রশ্নবাণের সম্মুখীন হতে হয়।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও