হঠাৎ আলোচনায় তৈমূর

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:০৩ পিএম, ৩ জুন ২০২০ বুধবার

হঠাৎ আলোচনায় তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ বিএনপির একজন প্রভাবশালী নেতা হলেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। তবে মাঝখানে কয়েক বছর তার অবস্থান কিছুটা ডাউন থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে তার অবস্থান উন্নতির দিকে যাচ্ছে। তাকে নিয়ে একটু বেশি আলাপ আলোচনা করা হচ্ছে। সেই সাথে তিনি নিজেও আগের থেকে অনেক সরব হয়েছেন। বিশেষ করে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় তৈমূর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জ বিএনপির অন্য সকলের থেকে এগিয়ে রয়েছেন।

সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জে বিএনপির রাজনীতিতে একজন অপরিহার্য নেতা ছিলেন বিএনপির চেয়ারপার্র্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। কিন্তু জেলা বিএনপির একটি পক্ষের বিরোধীতায় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি থেকে মাইনাস করা হয়। কিন্তু এই মাইনাসের মধ্যে দিয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে বিএনপিকেই মাইনাস করা হয়েছে যা বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিএনপির নেতাকর্মীরা হারে হারে টের পাচ্ছেন। কারণ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগের বছর ও পরের বছর নারায়ণগঞ্জ বিএনপি যেভাবে রাজপথে নাড়িয়েছিল সেই আন্দোলনের ধারে কাছেও যেতে পারেনি বর্তমান জেলা ও মহানগর বিএনপি।

আর সেটা উপলব্ধি করতে পেরেছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি। আর তাই এতদিন তৈমূর আলম খন্দকারকে অবজ্ঞা করে এবার তাকে মূল্যায়ণের উদ্যোগ নিয়েছেন। যার ধারাবাহিকতায় অবজ্ঞার পরে এবার জেলা বিএনপির হিরো হিসেবে রুপ নিয়েছেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। যদিও তৈমূর আলম খন্দকার এ জেলার দায়িত্বে না থাকলেও তার অনুগত নেতাকর্মীরাই প্রায় প্রতিটি কর্মসূচিতেই রাজপথ সরব করার চেষ্টা চালিয়ে থাকেন। ফলশ্রুতিতে তৈমূরের অনুসারীরা মামলারও শিকার হয়েছেন বহুবার।

মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বক্তব্য অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় বিএনপি এখন হারে হারে টের পাচ্ছে এ জেলার বিএনপির রাজনীতি থেকে তৈমূর আলমের দায়িত্ব কেড়ে নিয়ে বিএনপির কতটা ক্ষতি করা হয়েছে। ২০০৯ সালে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি পদের দায়িত্ব পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জের রাজপথের আন্দোলনে অগ্রনী ভূমিকা ছিল তৈমূর আলম খন্দকারের।

যার ধারাবাহিকতায় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে ফের জেলা বিএনপির দায়িত্ব দেয়ার চিন্তা করা হয়। সেই সাথে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারও নতুন করে নারায়ণগঞ্জে সরবতায় ফিরে এসেছেন। পুরো জেলাজুড়েই তার কর্মী সমর্থকরাও নতুন উদ্যোমে জেগে উঠেছেন। বিশেষ করে সাম্প্রতিক সময়ে প্রত্যেকদিনই তার কোনো না কোনো কর্মসূচি পরিলক্ষিত হয়ে উঠছে।

জানা যায়, বর্তমানের সময়ে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের দুর্যোগকালিন সময়ে নেতাকর্মীদের নানা সহযোগিতায় এগিয়ে আসছেন অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। নেতাকর্মীদের প্রকাশ্যে সহযোগিতা করার পাশাপাশি গোপনেও অনেক নেতাকর্মীদের সহযোগিতা করে আসছেন তৈমূর আলম খন্দকার। যারা লোকলজ্জার ভয়ে কারও কাছে কিছু বলতে পারছেন তাদের তালিকা করে খুঁজে বের করে গোপনে গোপনে ঘরে ঘরে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী কিংবা নগদ অর্থ পৌছিয়ে দিয়ে আসছেন তাঁর কর্মী সমর্থকরা। সেই সাথে যারা সরাসরি তৈমূর আলম খন্দকারের কাছে ম্যাসেজ করছেন তাদেরকে তিনি নিজেই সহযোগিতা করছেন।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হলে পরিস্থিতি মোকাবেলায় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে মাঠে নামেন অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে প্রথম দফায় ১০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। পরবর্তীতে এসকল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষ হলে দ্বিতীয় দফায় ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের উদ্যোগ নেন তৈমূর আলম খন্দকার।

১৫ রমজান পর্যন্ত এসকল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ১৫ রমজানের পর থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করার উদোগ গ্রহণ করা হয় তার পক্ষ থেকে। যা বর্তমানে চলমান চয়েছে এবং ঈদ পর্যন্ত চলমান থাকবে বলে বলা হচ্ছে। একই সাথে নারায়ণগঞ্জে প্রত্যেকটি থানা এলাকায় নেতাকর্মীদের নিয়ে কৃষকদের সহযোগিতায় ধান কাটা টিম গঠন করছেন। প্রায় প্রতিদিনই ধান কাটা টিমের সদস্যরা কোনো না কোনো এলাকায় কৃষকের ধান কেটে ফসল ঘরে তুলে দিয়ে আসছেন।

পাশাপাশি মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আর এসকল কাজ করার জন্য ২’শ জনের স্বেচ্ছাসেবী টিম গঠন করা হয়েছে। যারা অ্যাডভোকেট তৈমূরের পক্ষে প্রত্যেকটি থানায় বিভিন্ন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন। আর এভাবেই একের পর এক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার নতুন করে আলোচনায় জায়গা করে নিয়েছেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও