শামীম ওসমানের পাশে সেলিম ওসমানের ‘লেতা’

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:২৬ পিএম, ১৩ জুলাই ২০২০ সোমবার

শামীম ওসমানের পাশে সেলিম ওসমানের ‘লেতা’

সাম্প্রতিক সময়ে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আলোচিত সমালোচিত নাম হলো নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ বাদল। অতি নিকটবর্তী সময়ে তার একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান তাকে ‘লেতা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। এবার সেই ‘লেতা’ আবু হাসনাত শহিদ বাদলকেই দেখা গেলো সাংসদ সেলিম ওসমানের ছোট ভাই ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের পাশে। একই অনুষ্ঠানে দুইজন একসাথে উপস্থিত হয়েছেন এবং পাশাপাশি আসনে বসে নিজেদের মধ্যে নানা কথাবার্তা বলেছেন।

দলীয় সূত্র বলছে, প্রায় সময়ে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় আসা স্বভাবে পরিনত হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ বাদলের। তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে ফরাজিকান্দা গুডলাক ক্লাবের আয়োজনে গত ২৯ জুন বৃক্ষরোপণ ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। আর এই কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এক পর্যায়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল বলেন, ‘বন্দরে আওয়ামী লীগের কোনো এমপি নেই। বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রশিদ ভাই বন্দরের এমপি।’

আর এর জবাব দিতে গিয়ে সেলিম ওসমানও বাদলকে ছাড় দিয়ে কথা বলেননি। গত ২ জুলাই দুপুরে শহরের খানপুর এলাকায় ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউ ইউনিট উদ্বোধন উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি সেলিম ওসমান বলেন, ‘আজকে একটি পত্রিকায় দেখলাম আমার ছবি সহ একটি সংবাদ প্রকাশ হয়েছে বন্দরের একটি ঘটনায়। তিনি চাষাঢ়া রেলওয়ে হেড কোয়ার্টারে থাকতেন। একজন এমপি সাহেবের আশীর্বাদে ওনি বলে এখন লেতা (নেতা)। ওনি নাকি এখন লেতা। এ লেতা বন্দরে গিয়ে বললো, ‘সেলিম ওসমান বন্দরের এমপি না। বন্দরের উপজেলা চেয়ারম্যান বন্দরের এমপি। প্রশ্ন থাকবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে, এমপি সিট বদলায় দিতে পারে এটি কি করে সম্ভব হতে পারে। দুই দিনের যোগি না ভাতেরে অন্য বইলেন না। আমরা দেশটা স্বাধীন করেছি। আমরা মুক্তিযোদ্ধা। হাজার বার বলি সেলিম ওসমানের থাবা বাঘের চেয়েও ভয়ংকর। বাঘের চেয়েও ভয়ংকর সেলিম ওসমানের থাবা।’

তিনি আরও বলেন, মতলব থেকে থেকে এসে নেতা হয়েছেন। ধানমন্ডিতে অট্টালিকা করেছেন। দুই নাম্বার স্কুল বানিয়েছেন। কত টাকার মালিক হয়েছেন সেলিম ওসমান দেখিয়ে দিবে। দেখবো আপনি আমাকে সরাতে পারেন কি না। ওনাকে আবার মতলব ফিরে যেতে হবে। আপনি আওয়ামী লীগ করেন যাই করেন সেটা দেখার বিষয় না।

এবার সেই আবু হাসনাত শহিদ বাদলকে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের ছোট ভাই ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের পাশে দেখা গেছে।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ১২ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা মিলনায়তনে করোনাকালে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের স্মরণে দোয়া মাহফিল ও বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আর এই অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। তাদের সাথে সাংসদ সেলিম ওসমানের ভাষায় ‘লেতা’ খ্যাত আবু হাসনাত শহিদ বাদলও উপস্থিত ছিলেন এবং শামীম ওসমানের পাশেই বসেছিলেন।

প্রসঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা হলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। আর তার এই প্রভাবশালী হওয়ার পিছনে রয়েছেন কয়েকজন ঘনিষ্ট সহযোগী। তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল। এর আগে তিনি জেলা যুবলীগেরও সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হয়েছিলেন। আর এই দুটি পদই পেয়েছিলেন শামীম ওসমানের বদৌলতে। সেই সাথে বাদল নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিতিও হয়েছেন শামীম ওসমানের বদৌলতেই। কিন্তু এবার সেই বাদলই শামীম ওসমান ও পরিবারের সদস্যদের সাথে বার বার বিরোধে জড়াচ্ছেন। যা বিভিন্ন সময় নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে আলোচিত বিষয় হিসেবে পরিণত হচ্ছে। আর এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান নিজেও বিব্রত হতে হচ্ছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও