১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, শুক্রবার ২৫ মে ২০১৮ , ৪:৫৪ অপরাহ্ণ

রমজানের প্রস্তুতি নিচ্ছে নারায়ণগঞ্জবাসী


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:১৫ পিএম, ১২ মে ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ০২:১৫ পিএম, ১২ মে ২০১৮ শনিবার


রমজানের প্রস্তুতি নিচ্ছে নারায়ণগঞ্জবাসী

সমাজ ও ব্যক্তি জীবনে বছর এবং মাসের মর্যাদা অনেক। বিশেষ মাস এবং দিনের উদযাপন করা  হয়ে থাকে ঘটা করে। ঠিক তেমনি আরবি মাসের নবম মাস ‘রমজান’ আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে। সেই মাসটিও উদযাপন করার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে নারায়ণগঞ্জেবাসী।

আর এই প্রস্তুতি নেয়ার জন্য শুরু করেছে মসজিদের ইমাম থেকে গৃহীনি পর্যন্ত। তাদের প্রস্তুতির মধ্যে রয়েছে নিজের এবং আশপাশের পরিবেশের। মহল্লার যুবকরা শুরু করেছে সেহারীতে এলাকাবাসীকে ডাকার জন্য প্রস্তুতি। ধোয়া-মোছা থেকে রমজানের সময় সূচী ছাপানোর জন্য কাজ শেষ অনেকটাই শেষ পর্যায়ে। ইফতার মাহফিলের দিন তারিখ নির্ধারণের কাজ এবং দাওয়াত কার্ড প্রস্তুত হয়ে যাচ্ছে। তবে এসব কাজে ছেদ পড়ছে লাগমহীন দাম এবং যানজট। তবে সে সমস্যা দ্রুত শেষ কারার ঘোষণা দিয়ায় অনেকটাই খুশি নারায়ণগঞ্জবাসী।

ডনচেম্বারের তুর্জ তেমনি এক যুবক। কলেজের এ যুবক মনে করেন, রমজানের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে সব জায়গায়। মসজিদগুলো ধোয়া মোছার কাজ শেষ করেছে। কোন কোন মসজিদের টুকিটাকি নির্মাণের কাজও শেষ করে ফেলেছে। তারাবিহ নামাজের জন্য ইমাম নির্বাচনের কাজ শেষ পর্যায়ে। বাসার কাজগুলো শেষ করা হচ্ছে। ধোয়া মোছার কাজ শেষ। বাজার সদাই করা হয়েছে তবে কিছু বাকি রয়েছে। পড়ালেখা এবং টিউশনির সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

ঘরের কিছু তৈজসপত্র কেনা বাকী রয়েছে যা দু-একদিনের মধ্যে শেষ করা হবে। এর মধ্যে পরিবারের কিছু ইফতার মাহফিল নির্ধারণ করা হয়েছে। যার দাওয়াত দেয়া শুরু হবে রোজার প্রথমদিন থেকে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেরর জন্য একদিন ইফতার মাহফিলের ব্যবস্থা হয়েছে। যাতে অংশ নিবেন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

সিদ্ধিরগঞ্জের ব্যবসায়ী রহিমুদ্দিন বলেন, রমজানের প্রথম রোজা থেকেই মার্কেট রাত ১০ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। যা একটানা চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত। প্রতিদিন মার্কেট মসজিদে মুসল্লিদের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ এর জন্য জেনারেটর মেরামত কয়েকদিন আগেই করানো হয়েছে। দোকানিরা তাদের মালামাল উঠানো শুরু করেছে।

শিবুমার্কেট এলাকার মসজিদের ইমাম আব্দুর রহমান বলেছেন, মসজিদের ধোয়া-মোছার মূল কাজ শেষ হয়েছে। অজুখানার কিছু কাজ ছিল যা ইতোমধ্যে করা হয়েছে। বাতি এবং ফ্যান পর্যাপ্ত লাগানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। সারা বছরের অনেক কাজ জমা ছিল যা এই মাসেই শেষ হয়েছে। এখন শুধু ইফতারীর ব্যবস্থাপনা শেষ হয়নি। তবে তা দুএকদিনের মধ্যেই শেষ করা হবে ইনশাল্লাহ। দুটি নতুন মাইকের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যা আগামীকাল লাগানো হবে। এক কথায় প্রস্তুতি একেবারেই শেষ পর্যায়ে। আল্লাহ রমজান মাসটি ভালভাবে যাতে শেষ করায় তার জন্য বিশেষ মুনাজাতে ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তবে সবারই শেষ কথা দ্রব্যমূল্যের বাজার এবং যানজটের বিষয়ে। তাদের অভিযোগ সরকার দ্রব্যমূল্য কোন ভাবেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। কদিনের ভেতরে পেঁয়াজের ঝাঁজে জীবন থেমে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। রমজানতো এখনো কয়েকদিন বাকী আছে। এখনই যদি এই অবস্থা হয় তাহলে রমজানে কী অবস্থা হবে। ভাবতেই অনেকের কপালেই ভাঁজ লক্ষ্য করা গেছে।

এমনই একজন রিক্সাচালক মহিউদ্দিন। তিনি বলেন, বাজারে গেছি রমজানের বাজার করতে। গিয়ে দেখি সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। ভাবতেই অবাক লাগে। যেখানে রমজানকে সামনে রেখে দাম সঠিক থাকবে সেখানে সবকিছুর দাম বাড়ছে। এর নিয়ন্ত্রণে সরকারের উচিৎ ভর্তুকির ব্যবস্থা করে মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ধর্ম -এর সর্বশেষ