মুক্তিযুদ্ধের সেই মঞ্চ গুড়িয়ে দেওয়া হেফাজতীদের বোধোদয়

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০১:৩০ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার

মুক্তিযুদ্ধের সেই মঞ্চ গুড়িয়ে দেওয়া হেফাজতীদের বোধোদয়

স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত শহীদদের প্রতি ৪৭ বছর পর শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেছে জমিয়তে উলামায়ে বাংলাদেশ ও আলোচিত হেফাজতের ইসলামের নেতারা। রোববার ১৬ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে জমিয়তে উলামায়ে ও ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মনির হোসাইন কাসেমীর নেতৃত্বে চাষাঢ়ায় বিজয় স্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা অর্পণ করেছেন তারা। এসময় তারা ব্যানারে আয়োজক হিসেবে ২৩ দলীয় ঐক্যজোট লেখা থাকলেও নারায়ণগঞ্জ জমিয়তে উলামায়ের নেতৃবৃন্দ ব্যতিত অন্য কোনো দলের নেতাকর্মীকে দেখা যায়নি তার পাশে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জমিয়তের একজন নেতা জানান, আগামী ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখেই মূলত হেফাজত ও জমিয়তের নেতারা চাষাঢ়ায় বিজয় স্তম্ভে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

জানা গেছে, বিগত ৪৭ বছরে এ দেশে মুক্তিযুদ্ধের অনেক দিবস আছে। যেমন একুশে ফেব্রুয়ারী মাতৃভাষা দিবস, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ, ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস, ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস, ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস, ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবি হত্যা দিবস, ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস সহ এ ধরনের কোন দিবসের অনুষ্ঠানে হেফাজতের অংশগ্রহণ নাই। বিগত দিনে কোন সময়ে এসব অনুষ্ঠান পালন করা হয়নি। যদিও এসব দিবসে কদাচিৎ মাদ্রাসাও খোলা রাখে হেফাজত নেতারা। তাদের যুক্তি এসব দিবসে কোন অনুষ্ঠান করা হারাম।

এখানে উল্লেখ্য যে, ২০১৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী দুপুরে জুমআর নামাজের পর মুসল্লীদের একটি মিছিল থেকে শহরের চাষাঢ়ায় মানবতা বিরোধীদের ফাঁসির দাবীতে চলা আন্দোলনের একটি মঞ্চ ভাংচুর করা হয়েছে। এসময় মিছিলকারীরা শহরের চাষাঢ়া এলাকা অবরুদ্ধ করে প্রায় ২০ মিনিটি ধরে তান্ডব চালায়। এক পর্যায়ে পুলিশ অ্যাকশনে গেলে মিছিলকারীরা পিছু হটে।

সেদিন জুমআর নামাজ শেষে  ডিআইটি সমাবেশ শেষে একটি মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলটি শহরের ২নং রেল গেট এলাকায় আসলে পুলিশ বাধা দেয়। তখন অন্তত ৭ থেকে ৮হাজার মুসল্লী পুলিশের বাধা উপেক্ষা করেই মিছিল নিয়ে চাষাঢ়ার দিকে আসতে থাকে। তখন পুলিশ মিছিলে বাধা দেয়নি। হাজারো মুসল্লীর মিছিল চাষাঢ়া গোল চত্বর এসেই সেখানে সান্তনা মার্কেটের সামনে নির্মিত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মঞ্চে হামলা চালায়। তারা মঞ্চ ও এর আশেপাশে থাকা মাইক ভেঙ্গে ফেলে। সেখানে থাকা সাবেক এমপি শামীম ওসমানের বেশ কয়েকটি ফেস্টুনও ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও