নারায়ণগঞ্জে ফের উত্তেজনায় শহরের মার্কাজ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৫:২৪ পিএম, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার

নারায়ণগঞ্জে ফের উত্তেজনায় শহরের মার্কাজ

ফের উত্তেজনায় নারায়ণগঞ্জ শহরের মার্কাজ মসজিদে বয়ান দিয়েছে তাবলীগের জামায়াত এর একটি অংশ। বয়ান চলাকালে মসজিদের বাইরে এসময় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল। তবে অপ্রীতিকর কোন ঘটনা ঘটেনি।

বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যায় তাবলিগ জামায়াতের এই নিয়মিত বয়ান অনুষ্ঠিত হয় আমলাপাড়া মসজিদে। গত বছর ২০১৮ সালে নারায়ণগঞ্জে তাবলীগ ইস্যুতে উত্তাল ছিল। ভারতের দিল্লীর মাওলানা সাদ কান্দালভি তাবলীগ জামাতে এমন কিছু সংস্কারের কথা বলছেন যার কারণে বিভক্ত হয়ে যায় তাবলীগ জামায়াত। এর পর থেকেই উত্তেজনা ছড়াতে থাকে নারায়ণগঞ্জে। তার উপর মার্কাজের ভেতরে জেলা হেফাজতে ইসলামের আমীর ও শহরের অন্যতম বৃহৎ ডিআইটি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুল আউয়ালকে লাঞ্চিত করা হয়। মসজিদের ভেতরে দুই পক্ষের হাতাহাতি হয়।

১ নভেম্বর সন্ধ্যায় শহরের আমলাপাড়াতে স্বর্ণপট্টি সংলগ্ন অবস্থিত ছোট মার্কাজ মসজিদে তাবলীগ নিয়ে বিবাদমান দুটি গ্রুপের অবস্থানের সময়ে দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ওই সময়ে জেলা হেফাজতে ইসলামের আমীর ও শহরের অন্যতম বৃহৎ ডিআইটি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুল আউয়ালকে লাঞ্ছিত করা হয়। ওই সময়ে অন্যরা প্রতিবাদ করলে তাদের উপর চড়াও হয় লোকজন। এ নিয়ে মসজিদের ভেতরে যখন চরম উত্তেজনা চলছিল তখন পুলিশ সেখানে প্রবশ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এই ঘটনার রেশ ধরে ৬ নভেম্বর বিকেলে শহরের আমলাপাড়া ছোট মার্কাজ মসজিদে তাবলীগ ইস্যুতে হেফাজতে ইসলাম ও মার্কাজপন্থীদের মধ্যে তুমুল হাতাহাতি ও ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে। ওই সময়ে দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াতে সেখানে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ এসে তাদের শান্ত করে। দুই পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে বলে জানা যায়।

আগামী ইজতেমা নিয়ে দুইটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান থেকে সরে আসলেও ইজতেমা বয়কটের ঘোষণা দিয়েছে রাজধানীর পাশের নারায়ণগঞ্জ জেলা হেফাজতের আমীর মাওলানা আব্দুল আউয়াল। এতে করে উত্তেজনা থেকেই যায় নারায়ণগঞ্জে। প্রতি বছর জানুয়ারীতে এ ইজতেমা হলেও এবার তাবলীগ জামাতের দুটি গ্রুপের কারণে বড় ধরনের বিরোধ দেখা যায় যার জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে রক্তপাত এমনকি প্রাণহানির ঘটনাও ঘটে। এ অবস্থায় সেটা বয়কটের ঘোষণা দেয় নারায়ণগঞ্জ। মানুষের প্রাণ গেছে সেইসব ঘাতক দলের ক্ষমা প্রার্থনা বা ভুল স্বীকার ছাড়া নারায়ণগঞ্জের আলেম ওলামারা এ ইজতেমাকে মানবে না।

আবদুল আউয়াল ২৫ জানুয়ারী জুমআর খুতবার বয়ানের শেষে দিকে তুলে আনেন ইজতেমা প্রসঙ্গ। তিনি বলেন, ‘কয়েকদিন আগে যখন আলেম ওলামারা টঙ্গির ময়দানে গিয়েছিল তখন সাদপন্থীরা হামলা করে রক্তাক্ত করেছিল। অনেকে মারা গেছেন। অনেক তাজা যুবকের হাত পা ভেঙ্গে দিয়েছে। অনেকে এখনো হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জে আমাদের হুমকি দেওয়া হয়েছে। গুলি করারও হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি হাত পা ভেঙে দেওয়ার কথা বলা হয়। আমাদের ভয় দেখানো হয় সন্ত্রাসী কায়দায়। কিন্তু এ অবস্থায় কাকরাইলের বিবাদমান দুটি গ্রুপ মিলে গেছে। এখন আর আমাদের মত হুজুর আর আলেম ওলামাদের কোন দরকার নাই কদরও নাই। অথচ ইজতেমা আয়োজনে কওমি মাদ্রাসার ছাত্র সহ আমাদের মত আলেমদের প্রয়োজন হতো। কিন্তু এখন তারা মিলে গেছে তাই আমাদের দরকার নাই।’

‘‘বিষয়টি হয়েছে একটি গর্ত করে ভেতরে ইদুর ঢুকানো হয়েছে। এখন বাইরে দিয়ে সেই গর্ত বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু মনে রাখতে হবে ভেতরে ইদুর ঠিকই আছে। এ ইদুর এক সময়ে বান কেটে বেরিয়ে আসবে। পকেটে পিস্তল রেখে বুকে বুক মিলিয়ে দিলেই সব সমাধান না। যদি আলেম ওলামা আর হেফাজতকে বাদ দিয়ে ইজতেমা করা হবে তাহলে ভালো তোমরা গিয়ে করো। আমরা নারায়ণগঞ্জের আলেম ওলামারা সেই ইজতেমা বয়কট করবো বর্জন করবো যতদিন না হক্কানী পথে তাবলীগ না ফিরবে।’’ বয়ানে বেশ কড়া ভাষাতেই যোগ করেন আবদুল আউয়াল।

প্রসঙ্গত স¤প্রতি সচিবালয়ে তাবলীগ জামাতের বিবাদমান দুইপক্ষকে নিয়ে বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী যৌথভাবে জানিয়েছেন যে, এবার ইজতেমা একটাই হবে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ সভার সিদ্ধান্ত জানিয়ে বলেন, ইজতেমা একটাই হবে। কোনো বিভক্তি হবেনা। তাবলীগ জামাতের দুই গ্রুপের সাথে এটা বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বেশ কিছুদিন ধরেই কান্দালভি তাবলীগ জামাতে এমন কিছু সংস্কারের কথা বলছেন - যা এই আন্দোলনে বিভক্তি সৃষ্টি করেছে। সাদ কান্দালভি বলেন, ‘ধর্মীয় শিক্ষা বা ধর্মীয় প্রচারণা অর্থের বিনিময়ে করা উচিত না - যার মধ্যে মিলাদ বা ওয়াজ মাহফিলের মতো কর্মকান্ড পড়ে বলে মনে করা হয়।’’ কিন্তু তার বিরোধীরা বলছেন, সাদ কান্দালভি যা বলছেন - তা তাবলীগ জামাতের প্রতিষ্ঠাতা নেতাদের নির্দেশিত পন্থার বিরোধী।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও