লাঙ্গলবন্দ স্নানে বৃষ্টির বাগড়া (ভিডিও)

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৪ পিএম, ১২ এপ্রিল ২০১৯ শুক্রবার

লাঙ্গলবন্দ স্নানে বৃষ্টির বাগড়া (ভিডিও)

‘হে মহাভাগ ব্রহ্মপুত্র, হে লৌহিত্য আমার পাপ হরণ কর’ এ মন্ত্র উচ্চারণের মধ্য দিয়ে জীবন থেকে পাপমুক্তির বাসনায় হিন্দু পূণ্যার্থীরা নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দের ব্রহ্মপুত্র নদে দু’দিন ব্যাপী অষ্টমী স্নানোৎসব শুরু হয়েছে। তবে স্নানের শুরুতেই বৃষ্টির কারণে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হয়ে পূণ্যার্থীদের। অনেকেই বৃষ্টিতে ভিজে স্নান করলেও নারীদের ছিল চরম দুর্ভোগ।

১২ এপ্রিল শুক্রবার সকাল ১১টা ৫ মিনিটে তিথি অনুযায়ী লগ্ন শুরুর পর থেকে পুণ্যার্থীদের স্নান শুরু হয়। যা চলবে শনিবার সকাল ৮টা ৫৫মিনিট ২২ সেকেন্ড পর্যন্ত।

সরেজমিনে দেখা যায়, হিন্দু পূণ্যার্থীদের মতে পবিত্র নদ ব্রহ্মপুত্রে স্নানমন্ত্র পাঠপূর্বক নিজ নিজ ইচ্ছা অনুযায়ী ফুল, বেলপাতা, ধান, দুর্বা, হরতকী, ডাব, আম্রপল্লব ইত্যাদি দিয়ে পিতৃকূলের উদ্দেশ্যে তর্পণ করে ভক্তরা। স্নান শুরুর পরে আশেপাশের মন্দিরগুলোতে সাধু সন্যাসীরা সমবেত হয়ে ভক্তিমূলক গান, বাজনা শুরু করে। তবে এবার বৃষ্টি ও আকাশে মেঘ থাকায় পুণ্যার্থীদের ভীড় ছিল কম। তবে দুইদিন ব্যাপী হওয়ায় ভক্তদের আগমন বাড়বে বলে প্রত্যাশা করছেন আয়োজকরা।

স্নান উপলক্ষ্যে ব্রহ্মপুত্র নদে বাশ দিয়ে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। নদীতে বিআইডব্লিউটিএ এর উদ্যোগে নিরাপত্তা ও পানির গভীরতার মাপ দিয়ে সংকেত দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড, পুলিশের নিরাপত্তা ছিল কঠোর। স্নান উপলক্ষ্যে লাঙ্গলবন্দের কয়েক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বসেছে মেলা। নিরাপত্তার জন্য ঘাটের পাশের সড়কে সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ হিন্দু কল্যাণ সংস্থার কেন্দ্রীয় সদস্য রনজিৎ মোদক জানান, এবার ললিত সাধুর ঘাট, অন্নপূর্ণা ঘাট, রাজ ঘাট, কালীগঞ্জ ঘাট, মা কুঁড়ি সাধুর ঘাট, মহাত্মা গান্ধী ঘাট, বড় দেশ্বরী ঘাট, জয়কালি ঘাট, রক্ষাকালী ঘাট, প্রেম তলা ঘাট, চর শ্রীরাম ঘাট, সাবদি ঘাট, বাসনকালী ও জগৎবন্ধু ঘাট এই ১৪টি ঘাটে স্নান করা হচ্ছে।

সীমা রানী সাহা বলেন, মীনার বাজার থেকে যানবাহন বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। বৃষ্টির মধ্যে আড়াই থেকে তিন কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে লাঙ্গলবন্দে আসতে হয়েছে। যারা বয়স্ক আছে এমন অনেকেই স্নান না করে সেখান থেকে ফিরে গেছে।

লাঙ্গলবন্ধ স্নান উৎসব উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার সাহা বলেন, দুই দিনে ¯œানের তিথি হওয়ায় পূণ্যার্থীদের ভীড় কম। তিথি শুরু থেকে শান্তিপূর্ণ ভাবে স্নান করতে পারছে। এখন পর্যন্ত কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলসহ ভারত ও নেপাল থেকে পূণ্যার্থীরা এসেছে। শনিবার সকালেও ঢল নামবে।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, পূণ্যার্থীদের নিরাপত্তা ও যানজটের ভোগান্তি থেকে রক্ষার জন্য মিনারবাজার থেকে যানবাহন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এটা কমিটির সকলের সিদ্ধান্ত ক্রমে হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ ভাবে স্নান উৎসব চলছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর খবর পাওয়া যায়নি।

বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী জানান, সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে চলছে স্নানোৎসব। অষ্টমী স্নানকে কেন্দ্র করে নেয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পুলিশ, র‌্যাব ও আনসারের দেড় হাজারে বেশী নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন। বসানো হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার ও নিরাপত্তা চেকপোস্ট। সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে তীর্থস্থানের ৩ কিলোমিটার এলাকা। ২টি অস্থায়ী হাসপাতালসহ বেশ কটি মেডিক্যাল টিম স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত আছে।

উল্লেখ্য লাঙ্গলবন্দে পূণ্যার্থীদের উৎসব যাতে নিরাপদ হয় সেজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ১৬ শ সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। ৩ শিফটে তারা তাদের দায়িত্ব পালন করবে। মোবাইল টিম, ওয়াচ টাওয়ার, মহিলা পুলিশ, আনসার বাহিনী নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে। ১৪টি স্নান ঘাটসহ পুরো লাঙ্গলবন্দ সিসি ক্যামেরায় আওতাভুক্ত থাকবে।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও