ষষ্ঠ রোজা : দীনের জ্ঞান অর্জন মুমিনের ইবাদত

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৭ পিএম, ১১ মে ২০১৯ শনিবার

ষষ্ঠ রোজা : দীনের জ্ঞান অর্জন মুমিনের ইবাদত

নামাজ-রোজা-হজ-জাকাতের মতো ‘ইলম’ বা দীনের জ্ঞান অর্জনও প্রতিটি মুমিন মুসলমানের জন্য ফরজ ইবাদত। সালাতের আগে অবশ্যই ইমান আনতে হয়। আর ইমান আনার পূর্বশর্ত হচ্ছে জ্ঞান। ইবনে মাজাহ শরিফের হাদিসে হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর ওপর জ্ঞান অর্জন করা ফরজ।’

জ্ঞান শব্দের আরবি হচ্ছে ‘ইলম’ যা কুরআনের একটি পরিভাষা। ‘ইলম’ শব্দটি আরবি ‘আলামত’ শব্দ থেকে নির্গত হয়েছে। ‘আলামত’ শব্দের অর্থ হচ্ছে, প্রত্যক্ষ দর্শন বা বাস্তবে বোঝানো অথবা কোনো নির্দিষ্ট জিনিসের প্রতি ইঙ্গিত বা ইশারা করা। আল কোরআনের ভাষায় প্রত্যক্ষ জ্ঞান বা প্রত্যক্ষ দর্শনকে ‘য়াইনুল ইয়াক্কিন’ বা নিজ চোখে দর্শন অথবা প্রত্যক্ষ জ্ঞান বলা হয়েছে।

যুগে যুগে যত নবী-রাসূল দুনিয়ায় এসেছেন আল্লাহতায়ালা তাদের সবাইকে ওহির মাধ্যমে জ্ঞান দান করেছিলেন। পৃথিবীর সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ ও নবী মুহাম্মদ সা.-এর ওপর আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে সর্বপ্রথম যে ওহি বা নির্দেশ নাজিল হয়েছিল তাও ছিল জ্ঞান অর্জনসংক্রান্ত। আল্লাহতায়ালা হজরত জিবরাইল আ.-এর মাধ্যমে নবী মুহাম্মদ সা.-কে সর্বপ্রথম নির্দেশ করেছিলেন বা ওহি পাঠিয়েছিলেন, এই বলে যে, ‘(হে নবী! আপনি) পাঠ করুন আপনার ‘রব’ বা প্রতিপালকের নামে যিনি আপনাকে সৃষ্টি করেছেন’, যা আল কোরআনের সূরা আল আলাকের প্রথম আয়াতে উল্লেখ আছে।

জ্ঞান অর্জনের হাকিকত সম্পর্কে আল্লাহতায়ালা সূরা আল বাকারার ২৬৯ নম্বর আয়াতে ঘোষণা করছেন, ‘আল্লাহতায়ালা যাকে চান তাকে (একান্তভাবে) তার পক্ষ থেকে (ওহির বা কোরআন-সুন্নাহর) বিশেষ জ্ঞান দান করেন, আর যে ব্যক্তিকে আল্লাহতায়ালার এই (ওহির বা কোরআন-সুন্নাহর) বিশেষ জ্ঞান দেয়া হলো সে যেন মনে করে তাকে সত্যিকার অর্থেই প্রচুর কল্যাণ দান করা হয়েছে, আর প্রজ্ঞাসম্পন্ন ব্যক্তি ছাড়া আল্লাহতায়ালার এসব কথা থেকে অন্য কেউ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না।’

আল্লাহতায়ালা সূরা আল ফাতির-এর ২৮ নম্বর আয়াতে বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই জ্ঞানী লোকেরাই আমাকে বেশি ভয় করে চলে আর আল্লাহতায়ালা মহাপরাক্রমশালী ও ক্ষমাশীল`। আল্লাহতায়ালা সূরা আঝ ঝুমারের ৯ নম্বর আয়াতে বলেছেন, ‘(হে নবী!) আপনি বলুন, যারা জানে আর যারা জানে না তারা কি সমান হতে পারে? বুদ্ধিমান লোকেরাই তো আল্লাহতায়ালার নসিহত গ্রহণ করে থাকে।’

জ্ঞান অর্জনের ফজিলত সম্পর্কে আল্লাহতায়ালা সূরা মুজাদালার ১১ নম্বর আয়াতে বলেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা ঈমান এনেছে আর যাদের জ্ঞান দান করা হয়েছে আল্লাহ তাদের উচ্চ মর্যাদা দেবেন আর তোমরা যা কিছু করো না কেন আল্লাহতায়ালা সে বিষয়ে পূর্ণ অবহিত।’ তিরমিজি শরিফের হাদিসে হজরত আবু হুরায়রাহ রা. থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, ‘রাসূল সা. বলেছেন, মুনাফিকের মধ্যে দুটি চরিত্রের সমাবেশ ঘটতে পারে না, এর একটি হচ্ছে নৈতিকতা ও সৎ চরিত্র আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, দীনের সুষ্ঠু জ্ঞান।’ তিরমিজি ও ইবনে মাজাহ শরিফের হাদিসে হজরত ছাখবারা আজদি রা. থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূল সা. বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি দীনী-ইলম অন্বেষণ করে এটা তার পূর্বকৃত গুনাহের জন্য কাফফারা স্বরূপ।`

জ্ঞান অর্জন না করার পরিণতি সম্পর্কে আল্লাহতায়ালা সূরা ত্বাহার ১২৪ থেকে ১২৬ নম্বর আয়াতে বলছেন, `আর যে ব্যক্তি আমার স্মরণ (আর কোরআন) থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে তার জন্য (জীবনে) বাঁচার সামগ্রী সঙ্কুচিত হয়ে যাবে, সর্বোপরি তাকে কিয়ামতের দিন অন্ধ বানিয়ে ওঠানো হবে। সে তখন বলবে, হে আমার মালিক, তুমি আজ কেন আমাকে অন্ধ বানিয়ে উঠালে? আমি তো দুনিয়াতে চক্ষুষ্মান ছিলাম! আল্লাহ বলবেন, আসলে তুমি এমনিই অন্ধ ছিলে! (দুনিয়াতে) আমার আয়াত তোমার কাছে পৌঁছে ছিল, কিন্তু তুমি তা ভুলে গিয়েছিলে, তাই আজ আমি তোমাকে ভুলে গেলাম।’

হাশরের দিন আল্লাহতায়ালা সব মানুষকে একত্র করে তাদের হাতে প্রত্যেকের আমলনামা দিয়ে বলবেন, ‘আজ তুমি তোমার আমলনামা পাঠ করো, তোমার হিসাব করার জন্য তুমিই যথেষ্ট।’ যারা দুনিয়াতে আল কোরআন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবে না, আল কোরআনের আদেশ-নিষেধ মেনে চলবে না তারা যখন অন্ধভাবে হাশরের মাঠে উঠবে, তখন কী অবস্থা হতে পারে তা সহজেই অনুমেয়।

অতএব, আল্লাহতায়ালাকে জানার জন্য, আল্লাহর পথে চলার জন্য, তার প্রতিনিধির বা খলিফার দায়িত্ব পালন করার জন্য, ঈমানের দাবি পূরণের জন্য, মুনাফিকি থেকে বাঁচার জন্য অবশ্যই আমাদের জ্ঞান অর্জন করতে হবে। কেননা জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে একজন মুসলমান ইসলামের সীমারেখা, হালাল, হারাম, হক-বাতিল, আল্লহতায়ালার বিধিবিধান বা আইন-কানুন সম্পর্কে জানতে পারি। মূলত দুনিয়া ও আখিরাতের সব কল্যাণের মূল হচ্ছে জ্ঞান।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও