রূপগঞ্জে মন্দিরের আধিপত্য নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

রূপগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৬:১২ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯ বৃহস্পতিবার

রূপগঞ্জে মন্দিরের আধিপত্য নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে একটি মন্দিরের নেতৃত্ব নেয়াকে কেন্দ্র করে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।

২২ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভিংরাবো এলাকার শ্রী শ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরে ঘটে এ ঘটনা। বর্তমানে সে এলাকার হিন্দুপল্লীতে উত্তেজনা চলমান রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্র জানায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভিংরাবো এলাকায় অবস্থিত শ্রী শ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরটি আন্তজার্তিক কৃষ্ণ ভাবনা মিত্র সংঘ (ইসকন) এর অন্তভুক্ত রয়েছে। গত কয়েক বছর যাবত এ মন্দিরকে ঘিরে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়েরের মাঝে দুটি পক্ষ তৈরী হয়।

একটি পক্ষ ভিংরাবো এলাকার প্রাণ কুমারের অন্যটি পংকজ দেবনাথ প্রাণ বন্ধু প্রভুর পক্ষ। শ্রী শ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরে ধর্মীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানকে ঘিরে তাদের দুই পক্ষের মাঝে প্রায়-ই নানা বিরোধ দেখা দেয়। এতে করে উভয় পক্ষই হুমকি ধামকি থেকে শুরু করে মারপিটের ঘটনা পর্যন্ত ঘটেছে। তাদের বিরোধ সমাধান করতে প্রশাসন একাধিকবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।

এ অবস্থায় আগামী শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসবের আয়োজন করেন পংকজ দেবনাথ প্রাণ বন্ধু প্রভুর পক্ষের কাজল, অভিলাস, রঞ্জিত, সারুতি মধুসুদন দাস, মনোরঞ্জন সরকার।

তারা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শ্রী শ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরে উৎসবের আয়োজন শুরু করেন। পরে দুপুরের দিকে হরিসংঘ কমিটির প্রাণ কুমারের পক্ষের রাজকুমার, গোপাল, মাহেন্দ্র, সম্ভুনাথ চৌকিদার, যোগেস চন্দ্র সরকারসহ তাদের লোকজন একই মন্দিরেই আলাদা ভাবে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উৎসবের আয়োজনের লক্ষ্যে প্যান্ডেল স্থাপন শুরু করেন।

পরে পংকজ দেবনাথ প্রাণ বন্ধু প্রভুর পক্ষের লোকজন প্যান্ডেল করতে প্রাণ কুমারের পক্ষের লোকজনকে বাধা প্রদান করেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মাঝে তর্কবিতর্ক, বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতি শুরু হয়।

এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন ধারালো ও দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের পংকজ দেবনাথ প্রাণ বন্ধু, রতন সাধু নয়ন, রিতু, আদিত্ব, শ্রী শুভ আতমা দাস, শারথী দাস, বেনু মোহন, জরু ঠাকুর, প্রান কুমার বিশ্বাস, মধু সুদন দাস, শ্যামল, বাবুল, কিশোর, অজয় রানীসহ ১৫ জন আহত হয়।

এদের মধ্যে পংকজ দেবনাথ প্রাণ বন্ধু, জরু ঠাকুর ও কিশোরকে অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ঘটনার পর থেকে উভয় পক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। সে এলাকার হিন্দুপল্লীতে এখনো উত্তেজনা চলমান রয়েছে।

ভিংরাবো রাধাগোবিন্দ মন্দিরের অধ্যক্ষ হরিপদ সরকার বলেন, ইসকন মন্দির নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। কিন্তু প্রতিপক্ষের লোকজন কোন কারন ছাড়া ইসকন মন্দিরের ভিতরে প্রবেশ করে আমাদের লোকজনের উপর হামলা চালায় ও মন্দিরে ভাংচুর করে।

হরিসংঘ কমিটির সম্পাদক গোপাল গোস্বামী বলেন, আমরা রাধাগোবিন্দ মন্দিরে শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্ঠমী উদযাপনের জন্য রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে আয়োজন শুরু করি। কিন্ত তারা দাঙ্গা তৈরীর জন্য সন্ত্রাসীদের সংঘবদ্ধ করে আমাদের প্রভুভক্ত লোকজনের উপড় হামলা চালিয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বতর্মানে অতিরিক্ত পুলিম মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও