তীব্র শীত উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জে লাখো জনতায় মিজানুর আজহারী

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১২:১৫ এএম, ২০ ডিসেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

তীব্র শীত উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জে লাখো জনতায় মিজানুর আজহারী

দুইদিন ধরে টান টান উত্তেজনার মধ্যে যখন প্রশাসন নারায়ণগঞ্জের বন্দর পূর্ব নির্ধারিত ওয়াজ মাহফিলে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন আলেম মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল তখন হাজার হাজার মানুষের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে সর্বত্র এসব ক্ষুব্ধ মানুষ তাদের অভিব্যক্তি জানান। তবে শেষ সময়ে শর্ত সাপেক্ষে আজহারীর উপর নিষেধাজ্ঞা যখন তুলে নেওয়া হয় তখন মাহফিলের দিকে বয়ে যায় জন স্রোত।

বৃহস্পতিবার ১৯ ডিসেম্বর রাতে বন্দরের মুছাপুর এলাকার ওই মাহফিলস্থলে অন্তত এক লাখেরও বেশী লোকের সমাগম ছিল।

তীব্র শীত উপেক্ষা করে রাত সাড়ে ৯টা হতে প্রায় দেড় ঘণ্টারও বেশী সময়ে ধরে ইসলামী বয়ানে সকলকে উজ্জীবিত রাখেন। বয়ানের মাঝে মাঝে ইসলামী স্লোগানে শীতেও লোকজন ছিল উদ্দীপ্ত চাঙ্গা। বার বার দুই হাত তুলে আল্লাহর কৃপা আদায় আর স্লোগানে প্রকম্পিত করেন যেমন ময়দানস্থল তেমনি এ মাহফিল ঘিরে চক্রান্তকারীদেরও কঠিন জবাব দেওয়া হয়।

ওই মাহফিলে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন মাওলানা মিজানুর রহমান আজাহারী বলেন, এই ওয়াজ মাহফিলে জন্য পুলিশ ভাইয়েরা অনেক কষ্ট করেছে। এ থানার ওসি সাহেব উনি ওনার প্রটোকল দিয়ে আমাকে এখানে নিয়ে এসেছে। এছাড়া আপনাদের এলাকার চেয়ারম্যান সারা দিন অনেক কষ্ট এই প্রোগ্রামটা এনসিউর (নিশ্চিত) করেছে। বিশেষ করে এই আসনের এমপি সেলিম ওসমান খুব খোঁজ খবর নিয়েছে এই প্রোগ্রামের ব্যাপারে। এরকম কোরআনের মাহফিল চলার দরকার আছে কিনা। এরকম কোরআনের মাহফিল করার জন্য আমাদের ময়দানে থাকার দরকার হলে আমরা থাকতে রাজি আছি কিনা। এজন্য আমাদের ত্যাগ স্বীকার করতে হলে আমরা রাজি আছি কিনা। এসময় উপস্থিত সবাই উচ্চস্বরে বলে উঠে, ‘আমরা রাজি আছি।’

বন্দরের মুছাপুর ইউনিয়নে পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদ যুব সংগঠন ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে তাফসিরুল কোরআন মাহফিলটিতে প্রধান বক্তা হিসেবে তিনি এ কথা ওয়াজ মাহফিলে বলেন।

মুসাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাকসুদের প্রশংসা করে তিনি বলেন, মাকসুদ চেয়ারম্যান সারা দিন কষ্ট করছে এখনো যোগাযোগ মেইনটেন করে যাচ্ছেন। এরকম নেতা আমাদের এলাকাগুলোতে থাকুক আমরা চাই কি চাইনা। যারা কোরআনের মাহফিল বন্ধ করেনা, এরেঞ্জ (আয়োজন) করে দেয়, সারাদিন গাধার মত খাটুনি খেটে রাতে উপস্থিত থেকে মাহফিল স্বার্থক করে দেয়। আমরা এরকম নেতাদের চাই যারা সব সময় কোরআনের পক্ষে থাকবে।

উল্লেখ্য, আজহারীর এই ওয়াজ মাহফিলকে কেন্দ্র করে বিতর্কিত তামিম বিল্লাহ সহ অনুগামীরা আজহারীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এতে দুই গ্রুপের মধ্যেকার উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থাকে কেন্দ্র করে পুলিশ প্রশাসন আজহারীর অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা জারী করে। তবে একদিনের ব্যবধানে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। যার ধারাবাহিকতায় এই মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কিছুদিন পূর্বে ওয়াজ মাহফিলকে কেন্দ্র করে বিতর্কিত তামিম বিল্লাহ সহ অনুগামীরা আজহারীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এতে দুই গ্রুপের মধ্যেকার উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থাকে কেন্দ্র করে পুলিশ প্রশাসন আজহারীর অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা জারী করে। তবে একদিনের ব্যবধানে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।

যুবকের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ
ওয়াজ মাহফিলে সনাতন ধর্মাবলম্বী (হিন্দু) এক যুবক ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে। ইসলাম ধর্মগ্রহণ করা নূর মোহাম্মদের পূর্ব নাম ছিল রাজু চন্দ্র সরকার। তার বাবার নাম নকুল চন্দ্র সরকার।

নূর মোহাম্মদ সবাইকে অনুরোধ করে বলেন, আমি রিসার্চ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছি। কিন্তু আমি চাইনা আমার কারণে আমার পিতামাতা কষ্ট পাক। আমি চাইনা কেউ আমার বাবা-মা কে এ ব্যাপারে কিছু বলুক। অর্থাৎ আমি কেন ইসলাম গ্রহণ করেছি। আমি এমনি এমনি আসিনি ইসলাম সম্পর্কে রিসার্চ করে এসেছি। আমি মিজানুর রহমান স্যারের অনেক বড় ভক্ত। আমি তার হাতে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছি। আমি আজকে অনেক রিস্ক (ঝুঁকি) নিয়ে এখানে এসেছি।

এসময় ফিরোজ মিয়া নামের আইনজীবী নূর হোসেনের দায়িত্ব নেয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, আমি নূর হোসেনের দায়িত্ব নিলাম। আমি আমার সহযোগি মুহুরি হিসেবে তাকে নিলাম।

উল্লেখ্য, আজহারীর এই ওয়াজ মাহফিলকে কেন্দ্র করে বিতর্কিত তামিম বিল্লাহ সহ অনুগামীরা আজহারীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এতে দুই গ্রুপের মধ্যেকার উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থাকে কেন্দ্র করে পুলিশ প্রশাসন আজহারীর অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা জারী করে। তবে একদিনের ব্যবধানে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। যার ধারাবাহিকতায় এই মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও