৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১২:৫১ পূর্বাহ্ণ

অবশেষে অপু বিশ্বাসকে ‘তালাক’ দিল নারায়ণগঞ্জের অভিনেতা শাকিব খান


সূত্র : বিডি নিউজ ও জাগো নিউজ || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১২:০০ এএম, ৫ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৬:০০ পিএম, ৪ ডিসেম্বর ২০১৭ সোমবার


অবশেষে অপু বিশ্বাসকে ‘তালাক’ দিল নারায়ণগঞ্জের অভিনেতা শাকিব খান

চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় জুটি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিচ্ছেদ ঘটছে। শাকিব খানের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের গোদনাইল এলাকাতে। যদিও এখন তিনি ঢাকাতে বসবাস করেন। শাকিব খানের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত প্রযোজক মোহাম্মদ ইকবাল সোমবার দুপুরে বলেন, গত শুক্রবারই আইনজীবীর মাধ্যমে তালাকনামা পাঠিয়েছেন এই চিত্রনায়ক।

ইকবাল জানান, সকাল থেকে সাংবাদিকদের একের পর এক ফোন পেয়েই তিনি শাকিবকে ফোন করেছিলেন।“আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম ঘটনা আসলে সত্য কি না? শাকিব বলেছে, ঘটনা সত্য।”

তবে শাকিবের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেছেন, “গত ২২ নভেম্বর ডিভোর্স লেটার পাঠানো হয়েছে। তাকে আইনগত পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।”

এই তারকা জুটির বিচ্ছেদ নিয়ে গত দুই মাসে একাধিকবার প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে পত্রিকায়। কিন্তু অপু সেসব খবর উড়িয়েই দিয়েছিলেন।

গৃহিনী হয়ে থাকেননি, তাই অপুকে তালাক!
মুসলিম রীতি মেনে বিয়ের পর গৃহিনী হয়ে না থাকার কারণ দেখিয়ে অপু বিশ্বাসকে তালাকনামা পাঠিয়েছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। ২২ নভেম্বর অপুর ঠিকানায় পাঠানো তালাকনামায় শাকিব খান এ কারণ দেখিয়েছেন বলে জানান তার আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম।

সোমবার সন্ধ্যায় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “বিয়ের সময় ধর্মান্তরিত হয়ে অপু বিশ্বাস শাকিব খানকে বিয়ে করেছিলেন। কথা ছিল তিনি মুসলিম রীতিনীতি মেনে চলবেন ও গৃহিনী হয়ে থাকবেন। কিন্তু অপু বিশ্বাস সে কথা রাখেননি।”

তালাকনামায় শাকিব অভিযোগ তোলেন, পুত্রসন্তান জয়কে বাড়িতে গৃহকর্মীর সঙ্গে তালাবন্ধ রেখে ‘ছেলেবন্ধুকে নিয়ে’ দেশের বাইরে যান অপু।

গতমাসের মাঝামাঝিতে ওই ঘটনার পর একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তোলেন।

শাকিবের তালাকের নোটিসে বলা হয়েছে, ছেলেকে তালাবন্ধ করে রাখার খবর শুনেই অপুর বাসায় ছুটে যান তিনি। কিন্তু সন্তানকে উদ্ধার করতে না পেরে পরে থানায় জিডি করেন।

তবে অপু বিশ্বাস বিষয়টি অস্বীকার করে সে সময় গণমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, তিনি চিকিৎসা করাতে কলকাতায় গিয়েছিলেন। ছেলে জয়কে কাজের মেয়ের কাছে নয়, বড়বোনের কাছে রেখে গিয়েছিলেন। ছেলেকে ভারতে না নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জানিয়েছিলেন, কলকাতার শীতের কারণেই ছেলেকে রেখে গিয়েছিলেন।

আইনজীবী বলেন, এসব ঘটনার কারণেই শাকিব খান অপুকে তালাক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। গত ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসের ঢাকার বাসা ও বগুড়ার ঠিকানায় রেজিস্ট্রি করা হলফনামা আকারে তালাকনামা পাঠানো হয়।

পরবর্তী প্রক্রিয়া জানতে চাইলে আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম বলেন, “নিয়ম হলো ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সালিশি পরিষদ দুজনকে ডেকে নিয়ে বসবে যেন সংসারটি ভেঙে না যায়। যদি শাকিব খান তারপরও মনে করেন এটাই তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত, তবে ৯০ দিন পর তালাকনামা স্বয়ংক্রিয়ভাবে কার্যকর হয়ে যাবে।

সন্তানের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব সম্পর্কে তিনি বলেন, “ছেলের জন্মদিনে পাঁচ লাখ টাকা দিয়েছিলেন শাকিব খান। এছাড়া প্রতিমাসে ছেলের ভরণ-পোষণ বাবদ কমপক্ষে তিন লাখ টাকা দেন।”

দেন মোহরের সাত লাখ টাকা অপু বিশ্বাস চাইলে যে কোনো সময় দিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানান এই আইনজীবী।

২০০৬ সালে ‘কোটি টাকার কাবিন’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে শাকিব-অপুর জুটি গড়ে ওঠে। ২০০৮ সালে তাদের বিয়ে হয়। গতবছরের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতায় তাদের পুত্রসন্তানের জন্ম হয়। কিন্তু সেসব তারা আড়ালেই রেখেছিলেন।

অপু গত এপ্রিলে সন্তান কোলে টেলিভিশন লাইভে এসে সেই খবর প্রকাশ করলে বিষয়টি নাটকীয়তার জন্ম দেয়। শাকিব খান এ নিয়ে শুরুতে বিভিন্ন রকম কথা বললেও পরে তাদের মধ্যে মিটমাট হয়ে যায়। তার মাস দুয়েকের ব্যবধানে দু’জনের দূরত্ব বাড়তে থাকে। পুত্র জয়ের জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে শাকিব খানের ছবি না থাকা ও অনুষ্ঠানে শাকিবের অনুপস্থিতির কারণে বিষয়টি আরো স্পষ্ট হয়।

ডিভোর্সের ব্যাপারে শাকিবকে জিজ্ঞেস করুন : অপু বিশ্বাস
নানা কারণে স্ত্রী অপু বিশ্বাসের ওপর বিরক্ত শাকিব খান। সে কারণে স্ত্রীকে ডিভোর্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দেশসেরা এই নায়ক। গেল কয়েকদিন ধরে এমন খবর ঘুরে বেড়াচ্ছে ঢালিউডপাড়ায়। তবে এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন অপু বিশ্বাস।

সোমবার (৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর বেইলি রোডে অবস্থিত ক্যাফে থার্টি থ্রিতে একটি প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হন অপু। তারই আনুষ্ঠানিকতা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

ডিভোর্সের ব্যাপারে জানতে চাইলে অপু বলেন, ‘আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। কিছু পত্রিকায় নিউজ দেখে জানতে পেরেছি।’

ডিভোর্সের বিষয়ে শাকিব আপনাকে কোনো কিছু বলেননি? এমন প্রশ্নের জবাবে অপু বলেন, ‘না। সে ব্যস্ত অভিনেতা। ছবির কাজ নিয়ে দেশের বাইরে আছে। আমার মনে হয় পুরো বিষয়টাই গুজব ছড়ানো হয়েছে। কারণ ডিভোর্স আগেভাগে ঘোষণা দিয়ে করার কোনো বিষয় নয়। আর তার কোনো নির্দিষ্ট কারণও দেখি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডিভোর্সের খবর প্রকাশের পর থেকে সবাই আমার কাছে তথ্য জানতে চাইছেন। কিন্তু কেন? আমি তো ডিভোর্সের কথা বলিনি। যেহেতু খবরটা ছড়ানো হয়েছে শাকিব ডিভোর্স দেবে সেহেতু তার কাছেই সবার জানতে চাওয়া উচিত। পুত্র-সংসার নিয়ে আমি খুশি। আমার এ ধরনের কোনো ভাবনা নেই। আর শাকিবের আছে বলেও আমি বিশ্বাস করি না। সেও ছেলেকে অনেক ভালোবাসে।’

স্ত্রী হয়েও স্বামীর অপছন্দের লোকদের সঙ্গে ওঠাবসা করেন অপু, এমন অভিযোগ শাকিবের। পাশাপাশি আলোচনা উঠেছে শাকিবের অনুমতি ছাড়া সিনেমা করার কারণেই অপুর ওপর চটেছেন শাকিব খান। এই ব্যাপারে অভিমত জানতে চাইলে অপু বললেন, ‘এখানে চটে যাবার কিছু দেখছি না। বিশ্বের অনেক তারকাই বিয়ের পর তার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে সফলভাবেই। শাকিব নিজেও তো কাজ করছে। বিয়ে করলেই অভিনয় করা যাবে না- এমন তো কোনো নিয়ম নেই। তাছাড়া আপনার যদি চাহিদা না থাকে আপনি চাইলেও কাজ করতে পারবেন না। দর্শক চায় আমি ফিল্মে ব্যাক করি। সে জন্যই আমাকে নিয়ে নির্মাতারা আগ্রহী হয়েছেন। এটা তো শাকিবের খুশি হবার বিষয়। আমার মনে হয় শাকিবের দেশে ফেরা পর্যন্ত সবার অপেক্ষা করা উচিত। তার আগে এই বিষয়টি নিয়ে মুখরোচক কোনো কিছু না ছড়ালেই খুশি হবো।’

অপু আরও বলেন, ‘শাকিবের বক্তব্য ছাড়াই গোপন সূত্রের বরাতে খবর ছাপছেন সবাই। সেই গোপন সূত্রটা কী আমি জানি না। হয়তো আপনারা সাংবাদিকরাই ভালো বলতে পারবেন। আমি অভিনেত্রী, অভিনয় দিয়ে অপু বিশ্বাস হয়েছি; অভিনয়টাই করতে চাই।’

এদিকে সবুজ ছায়া হাউজিং গ্রুপের শুভেচ্ছা দূত নিয়োজিত হয়েছেন অপু বিশ্বাস। আজ চুক্তি স্বাক্ষর করে আনুষ্ঠানিকভাবে সেই দায়িত্ব বুঝে নিলেন তিনি। পাশাপাশি এই অভিনেত্রী শিগগিরই ফিরছেন চলচ্চিত্রে। এরইমধ্যে ‘কাঙ্গাল’ ও ‘কানাগলি’ নামে দুটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধও হয়েছেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

স্যোশাল মিডিয়া -এর সর্বশেষ