৯ আশ্বিন ১৪২৫, সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৮:১৫ অপরাহ্ণ

আমেরিকায় নাইট ক্লাব ক্যাসিনোতে যাই না : এটিএম কামাল


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৬ পিএম, ২৭ মে ২০১৮ রবিবার


আমেরিকায় নাইট ক্লাব ক্যাসিনোতে যাই না : এটিএম কামাল

নারায়ণগঞ্জ বিএনপির আন্দোলনের পুরোধা হিসেবে পরিচিত এটিএম কামাল দেশ ছেড়েছেন। পাড়ি জমিয়েছেন আমেরিকাতে। ৮ এপ্রিল দিনগত রাত ১টায় তিনি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ত্যাগ করেন। এর পর থেকেই তিনি আমেরিকাতে বসবাস করেন।

এ অবস্থায় ২৬ মে এটিএম কামাল ফেসবুকে নিজ অবস্থান ব্যক্ত করে স্ট্যাটাস দেন। এতে তিনি লিখেন, ‘দেশনেত্রী জেলে, দেশের মানুষ কষ্টে আছে, এমন সময় হঠাৎ আমেরিকা চলে এলাম, এতে আপনজন অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন, ফেসবুকে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। বিভিন্ন গনমাধ্যম এনিয়ে সংবাদও হয়েছে, এটা আমার প্রতি সবার ভালোবাসা ও আগ্রহেরই বহিঃপ্রকাশ। আমি এনিয়ে ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমার অবস্থান তুলে ধরার চেষ্টা করেছি এবং আজও সবার অনুভূতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে একটি কথা বলতে চাই। আপনারা আমাকে ক্ষমা করবেন, আমিও রক্ত মাংসে গড়া একজন সাধারন মানুষ, জীবন সংগ্রামে যুদ্ধরত কারোর সন্তান, পিতা, ভাই বা স্বামী। এখানে এসেছি ৬ সপ্তাহ হলো, চিকিৎসা, বিশ্রাম আর নাতিনের সাথে খুনসুটি এই নিয়েই আমার দিনকাল। দেশের জন্য মনটা সব সময় ব্যকুল থাকে। তাইতো অনেক আমন্ত্রন ও অনুরোধ স্ববিনয়ে প্রত্যাখান করি। কোন আনন্দ উৎসবে যোগ দেইনা। শুধু মাঝে মাঝে এদেশের প্রাকৃতিকভাবে সমৃদ্ধ উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থানগুলোতে যাই এবং সবার সাথে শেয়ার করি। প্রবাস জীবন বিলাসিতার নয়। এখানে সবাকেই প্রচন্ড পরিশ্রম করেই সারভাইভ করতে হয়। সারা সপ্তাহ কাজ করে ছুটির দিনে স্বপরিবারে একটু ঘুরতে বের হয়।আমাকেও সাথে নিয়ে যায়। এর মাঝে আমার ছেলে সোহান ফোন করে বললো, আব্বু তুমি আমেরিকার কোন ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিওনা, অনেকে সমালোচনা করে। আমি তাকে বললাম, ছবি দেখে যারা সমালোচনা করে, তারাতো পুলিশের হাতে মার খেলে বলতো ফটোসেশন, গ্রেফতার হলে বলতো নাটক, পুলিশের গুলিকে তুচ্ছ করে হরতালে রাজপথে অবস্থান নিলেও বলতো নেতা হওয়ার জন্য এমন করে। এগুলো দেখতে দেখতে, শুনতে শুনতেই এ পর্যন্ত আসলাম। এনিয়ে মন খারাপ করোনা, এখানে আমি কোন নাইট ক্লাব বা ক্যাসিনোতে যাইনা। সপ্তাহে এ সবার সাথে হয়তো একদিন কোথাও ড্রাইভ এ বের হই। দূরে কোথাও.....পাহাড়ে , ঝর্নায় বা কোন সবুজ অরণ্যে।

কামালের পারিবারিক সূত্র মতে, আমেরিকাতে কামালের এক মেয়ে বসবাস করেন। মূলত কামাল সেখানে মেয়ের কাছেই অবস্থান করবেন। পাশাপাশি তিনি শারীরিক চিকিৎসা করাবেন। গত কয়েকদিন ধরেই কামাল বেশ অসুস্থবোধ করছিলেন। এরই মধ্যে তিনি শহরের ইসলাম হার্ট সেন্টারে ভর্তি ছিলেন। এর পরে অনেকটা দৃষ্টির অগোচরে চলে যান রাজপথে সর্বদা আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়া বার বার কারাভোগী এ নেতা।

বিএনপির একাধিক নেতা জানান, গত কয়েকদিন ধরেই এটিএম কামাল বিভিন্নজনের কাছে দোয়া চাচ্ছিলেন। এর মধ্যে ৮ এপ্রিল কামাল আদালতে কয়েকটি মামলায় হাজিরা দেন। তাছাড়া কামালের বিরুদ্ধে অন্তত ৩৬টি মামলা চলমান। এর মধ্যে কয়েকটি মামলার বিচার শুরু হয়েছে।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের আন্দোলনকারী নেতাদের টার্গেট করে একের পর এক গ্রেফতার করা হচ্ছে। ওই তালিকার শীর্ষে ছিলেন এটিএম কামালও। তবে সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ প্রেক্ষাপটের উপর নির্ভর করবে কামালের দেশে ফেরা।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

স্যোশাল মিডিয়া -এর সর্বশেষ