লিপি ও অয়ন ওসমানের সংবাদে সাদরিলের ব্যাখা : কোথাও যুক্ত হচ্ছি না

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৮ পিএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার

লিপি ও অয়ন ওসমানের সংবাদে সাদরিলের ব্যাখা : কোথাও যুক্ত হচ্ছি না

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম সাদরিল মূলত বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিনের ছেলে। সম্প্রতি কয়েকটি ছবি ও ঘটনায় তিনি বেশ আলোচিত। গিয়াসউদ্দিনের বাড়িতে গিয়েছেন শামীম ওসমানের পত্মী সালমা ওসমান লিপি ও ছেলে অয়ন ওসমান। দুইজন যখনই বাসায় গিয়েছেন প্রচার হয়েছে সাদরিলও নৌকার পক্ষে ভোট চাইবেন চেয়েছেন।

এ অবস্থায় ১৭ ডিসেম্বর সাদরিল তাঁর নিজের ফেসবুক আইডিতে এ বিষয়টি খোলাসা করেছেন। তিনি লিখেছেন, আসালামুআলাইকুম সবার প্রতি পরম শ্রদ্ধা ও ভালবাসা নিয়ে কিছু কথা বলছি। আমি গোলাম মুহাম্মাদ সাদরিল নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। আমার পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ মুহম্মদ গিয়াস উদ্দিন, সাবেক সংসদ সদস্য নারায়ণগঞ্জ-৪। আমি প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাসী নই, নতুন প্রজন্মকে প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করে গঠন মূলক রাজনীতির পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। এলাকার জনগন দলমত নির্বিশেষে আমাকে সেবামূলক কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য আমাকে কাউন্সিলর হিসাবে নির্বাচিত করেন। আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং সফল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বে আদর্শবান পিতার সন্তান। প্রতিহিংসার রাজনীতি আমার পরিবারের শিক্ষা নয়, মানুষকে সম্মান দিলে সম্মান পাওয়া যায় এ শিক্ষা আমার পরিবারের। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বিভিন্ন সমর্থিত প্রার্থীর লোকজন আমার এলাকায় ভোট চাইতে এবং জনসংযোগ করতে আসবে এটা স্বাভাবিক বিষয়ৃতাই সকল ছোট মনের মানুষদের প্রতি আমার আহবান আসুন আমরা প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করে আগামী প্রজন্মকে একটি সুন্দর সমাজ উপহার দেই।

তিনি লিখেন, গত কিছুদিন ধরেই একটি বিষয় নিয়ে গুঞ্জন চলছিল, তা নিয়ে আমি আমার বক্তব্য তুলে ধরলাম। বর্তমানে নির্বাচন চলছে সারাদেশেই আমার বাসায় নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্যের ছেলে জনাব অয়ন ওসমান সাহেব এসেছিল উনার বাবার জন্য ভোট চাইতে। উনি আমার বাসায় আসার পর আমি তার সাথে কুশল বিনিময় করি। পারিবারিক ঐতিহ্য মোতাবেক তাকে আপ্যায়িত করি। এরপর আজকে (১৭ ডিসেম্বর) বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমান সাহেবের সহধর্মিণী লিপি ওসমান আমাদের বাসায় আসেন উনার স্বামীর জন্য ভোট চাইতে। উনি বাসা থেকে যাওয়ার সময় আমি উনাকে এগিয়ে দেই। যেহেতু আমার পারিবারিক রেওয়াজ অনুযায়ী মানুষকে সম্মান করা আমার দায়িত্ব। তাছাড়া আমি নিজে একজন জনপ্রতিনিধি এই ওয়ার্ডের। এ বিষয়গুলি নিয়ে অনেকে নোংরা রাজনীতি করছেন যা দুঃখজনক ও বিভ্রান্তিকর। আমি কোন রাজনৈতিক দলের পদে নেই বর্তমানে। আমি এই দল ওই দলে চলে যাচ্ছি বলে যেইসব গুঞ্জন চলছে তা নিছক গুজব ও মিথ্যাচার। আমি কোথাও যোগদান করিনি, আপাতত কোন ইচ্ছে ও নেই। আমি আমার ওয়ার্ডবাসীর সেবা করতে চাই, সর্বসাধারণের মাঝেই থাকতে চাই। আমি আমার পারিবারিক রাজনৈতিক ঐতিহ্যের মধ্যে আছি থাকব ইনশাল্লাহ। সবাইকে অনুরোধ করব এই ধরনের কোন বিভ্রান্তিকর কথা না বলার জন্য আমার সম্পর্কে, যা আমার জন্য বিব্রতকর। আমাদের বাসা মুক্তিযোদ্ধা নিবাসে যে কেউ আসতে পারে ভোট চাইতে। সকল সর্বসাধারণের জন্য আমাদের বাসা উন্মুক্ত।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও