আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় পেটায় রাজাকারের বাচ্চা,আত্মহত্যা করা উচিত:মালা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০০ পিএম, ৩১ জানুয়ারি ২০২০ শুক্রবার

আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় পেটায় রাজাকারের বাচ্চা,আত্মহত্যা করা উচিত:মালা

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহামুদা আক্তার মালার ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাস আবারো আলোচনায় এসেছে। ওই স্ট্যাটাসে মালায় আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন। এতে নারায়ণগঞ্জ চেম্বারের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজলেরও বিরুদ্ধচারণ করা হয়েছে।

৩১ জানুয়ারী শুক্রবার বিকেল ৪টায় ফেসবুকে ওই পোস্টে মালা লিখেন, ‘মাননীয় সংসদ সদস্য শ্রদ্ধেয় নেতা একেএম শামীম ওসমান মহোদয়। আপনার কাছে বিনীত নিবেদন, যদি আপনার আমার কোন কাজ পছন্দ না হয় আমাকে আপনি ধমক দিতে পারেন চাইলে চড় দিতে পারেন। কিন্তু কুখ্যাত রাজাকার গোলাম রাব্বানীর ছেলে কাজল আমাকে তার ভাগনীকে ও তার সহযোগীকে দিয়ে ২৮/১/২০২০ তারিখে আদালতের দোতলায় আমাকে অপদস্থ করার চেষ্টা করে কিন্তু আমার সিনিয়র ও অন্যান্য আইনজীবীর কারনে দৌড়ে সে পালিয়ে যায়। রাজাকারের বাচ্চা প্রকাশ্যে আদালতে আমাকে পিটানোর হুমকি দেয়। পিপির রুমে ২৯/১ তারিখে দুপুর ১.৩০ মিনিটে সে আমার নাম ধরে কাজল ভাই বলে সে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে দুটা মেয়ে এনেছে মেঘলা আর মনিএবং তল্লার বিপ্লবকে এনেছে আমাকে পিটানো জন্য। যদিও বিপ্লবের সাথে আমার দেখা হয়েছে সে আমার পিছনে পিছনে এসেছে কিন্তু কোন কথা বলেনি।এর আগে ২০১৭ সালে এই কাজল রাইফেল ক্লাবের ভিতরে শিউলি নামে একটি মেয়েকে ঠিক করে আমাকে পিটানোর জন্য। মেয়েটি আমাকে পরে বলে দিয়েছে। তার জোড় সে আপনার বন্ধু। আওয়ামীলীগের মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক আমি, আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আর পিটায় রাজাকারের বাচ্চা। আমার আত্মহত্যা করা উচিত।

মালা আরো লিখেন, ‘আপনি বঙ্গবন্ধুর সহোচর, ভাষা সৈনিক মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শামসুজ্জোহা সাহেবের সন্তান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আদরের ছোট ভাই, আপনি থাকতে আমি রাজাকারের ছেলের হুমকী খাচ্ছি যেটা আমি মানতে পারছিনা, আপনি হয়তো জানেননা মুনতাসির মামুন, রীতা ভৌমিকের বইসহ অনেক বইতে এই রাজাকারের নাম লিপিবদ্ধ আছে। আমি একজন আইনজীবী আমি তার জন্য আদালতে যেতে পারছিনা, আমি জানি আপনি এর বিহিত করবেন। কারণ আপনি একজন দেশপ্রেমিক মানুষ।’

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির এবারের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আদালতপাড়ায় অনেক উত্তাপ ছড়িয়েছে। নির্বাচনের আলাপ আলোচনার শুরু থেকেই নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় বিরাজ করে আসছিল টানটান উত্তেজনা। যা এখনও চলমান রয়েছে। সেই সাথে এই উত্তাপ এখন হাতাহাতিতে পরিণত হয়েছে। আইনজীবীরা পরস্পরের সাথে হতাহাতিতে লিপ্ত হচ্ছেন। সবশেষ আওয়ামী লীগপন্থী দুই মহিলা আইনজীবীর মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। যা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় নানা আলোচনা সমালোচনার জন্ম দেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মতই ২৮ জানুয়ারী দুপুরে বিচার কার্র্য সম্পন্ন হচ্ছিল জেলা ও দায়রা জজ আদালতে। আইনজীবীরা যার যার মতো করে মামলার শুনানিতে অংশগ্রহণ করে আসছিলেন। এরই মধ্যে হঠাৎ করে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আইনজীবীদের মধ্যে হুলস্থূল পড়ে যায়। আদালতের বারান্দায় গিয়ে দেখা যায় নারাণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহমুদা মালা ও মহানগর যুব মহিলা লীগের আহবায়ক সুইটি ইয়াসমিন চরম বাকবিতন্ডায় জড়িয়েছেন। একে অপরের দিকে তেড়ে যাওয়ার উপক্রম। পরে অ্যাডভোকেট খোকন সাহা ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহমুদা মালা জানান, এবারের নির্বাচনে আমি আনিসুর রহমান দিপু ও হাবিব আল মুজাহিদ পলুর প্যানেলকে সমর্থন করেছিলাম। আর এজন্যই পূর্ব পরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রথমে সুইটি ও পরে সুবর্না আমার উপর এসে ঝাপিরে পড়ে। তবে তেমন একটা আঘাত করতে পারেনি। আঘাত করতে এসে উল্টে আমার প্রতিহতের মুখে পড়ে যায়। পরে অন্যান্য সিনিয়র আইনজীবীরা এসে সুইটিকে সড়িয়ে নিয়েয় যায়। তবে এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজী হননি মহানগর যুব মহিলা লীগের আহবায়ক সুইটি ইয়াসমিন।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও