৬ কার্তিক ১৪২৫, রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ , ৫:২০ অপরাহ্ণ

UMo

জলমগ্ন ফতুল্লার ওসমানী স্টেডিয়াম


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৪ পিএম, ১৩ মে ২০১৮ রবিবার


জলমগ্ন ফতুল্লার ওসমানী স্টেডিয়াম

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের চারপাশে জলাবদ্ধতার কারণে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। আন্তর্জাতিক থেকে শুরু করে টেস্ট পর্যন্ত সকল ফরমেটে ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে এই স্টেডিয়ামে। কিন্তু বর্ষা মৌসুম আসলেই পানিতে ভাসতে থাকে এই স্টেডিয়াম। যদিও এখন পর্যন্ত মাঠের ভেতরের ইনডোর শুকনো রয়েছে কিন্তু আউটডোর অর্থাৎ বাইরের অংশ ডুবে গেছে। তবে গত বছর এই মৌসুমে মাঠের ইনডোর পর্যন্ত পানিতে তলিয়ে যায়। এ বছর মাঠের ইনডোর এখন পর্যন্ত শুকনো থাকলেও বাহিরে চলাচলের পথ প্রায় সবগুলো পথ পানিতে তলিয়ে গিয়ে স্টেডিয়ামটি জলাবদ্ধতায় আবদ্ধ হয়ে পড়ে।

১৩ মে রোববার দুপুরে ফতুল্লা এলাকায় অবস্থিত খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম ঘুরে জলাবদ্ধতার এ দৃশ্য দেখা যায়।

জানা গেছে, স্টেডিয়ামের মূল ফটকের পরে আউটডোর মাঠ ও চলাচলের পথ পানিতে তলিয়ে রয়েছে। তবে স্টেডিয়ামের ভেতরের মাঠে এখনো পানি জমেনি। কিন্তু ভিতরের মাঠের পাশে কিছুটা কর্দমাক্ত পরিবেশ লক্ষ্য করা গেছে। এদিকে স্টেডিয়ামের বাইরের আউটডোর মাঠ পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে সেখানকার খেলাধুলা ও প্রশিক্ষন সব কিছুই এখন বন্ধ রয়েছে।

স্থানীয় সূত্র বলছে, ‘বিভিন্ন ক্লাবের ক্রিকেটাররা স্টেডিয়ামের আউটডোরে ক্রিকেট প্র্যাকটিস (চর্চা) করতো। এছাড়া বিভিন্ন ক্লাবের খেলাও এখানে অনুষ্ঠিত হতো। আর স্থানীয় ক্রিকেট প্রেমিরাও ব্যাট বল নিয়ে খেলতে আসতো। কিন্তু এখন বৃষ্টির পানি সহ বর্ষার পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে; যেকারণে এখানে খেলাধুলা তো দূরের কথা হাটা-চলাফেরা করা যায়না।’

ফয়সাল নামের এক ক্রিকেট প্রেমি তরুণ জানায়, ‘প্রতিদিন বিকেলে বন্ধুদের নিয়ে স্টেডিয়ামের পাশের খালি জায়গাটাতে ক্রিকেট খেলতাম। কিন্তু এখনতো জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে; তাই খেলাধুলা সম্ভব হচ্ছেনা। প্রতি বর্ষা মৌসুম আসলেই এসব মাঠ পানিতে তলিয়ে যায়। গত বছরতো স্টেডিয়ামের ভিতরের মাঠ পানিতে তালিয়ে গিয়েছিল। এই মাঠে আন্তর্জাতিক থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের টুর্নামেন্ট খেলা হয়েছে। অনেক বড় আসরের খেলা হয়েছে এই মাঠে। কিন্তু বর্ষা মৌসুম আসলে পানিতে তলিয়ে যায়। এতে আমার মত ক্রিকেট প্রেমিরা সত্যিই ব্যথিত। আমি সরকার সহ সংশ্লিষ্টদের কাছে দাবি জানাবো যাতে করে এই স্টেডিয়ামের মাঠ ও তার চারপাশ বর্ষ মৌসুমে পানিতে না তলিয়ে যায়।

আরেক ক্রিকেট প্রেমি রাসেল জানায়, ‘আমাদের দেশ ক্রিকেটে অনেকটা এগিয়ে গেছে। তাই ক্রিকেটকে ঘিরে বাঙালিদের স্বপ্নটাও বিশাল। কিন্তু স্টেডিয়ামের পাশে জলাবদ্ধতার মত পরিবেশ ক্রিকেট প্রেমিদের সেই স্বপ্নে কাল বৈশাখীর ঝড় তুলে। জলাবদ্ধতার মত কোন বিষয় যেন আমাদের স্বপ্নের ক্রিকেটে কোন বাধা সৃষ্টি করতে না পারে এই বিয়ষটা সংশ্লিষ্টদের তদারকিতে থাকা দরকার।

জানা গেছে, খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে ২০০৬ সালে প্রথমবারের মত টেস্ট ক্রিকেট আয়োজন করা হয়। এছাড়া ওয়ান্ডে ও টি-টোয়েন্টি ফরমেটের ক্রিটেক খেলাও অনুষ্ঠিত হয়। আর ২০১১ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলার একটি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ এখানে অনুষ্ঠিত হয়। ২০০৪ সালে অনুষ্ঠিত অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে এই স্টেডিয়ামটি ব্যবহৃত হয়েছিল।

নারায়ণগঞ্জ জেলাতে আন্তর্জাতিক ফরমেটের ক্রিকেট খেলার মত একটিমাত্র ভেনু রয়েছে। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামটি সেই একমাত্র ভেনু। এখন সেই স্টেডিয়ামটি জলাবদ্ধতায় আবদ্ধ হয়ে পড়েছে। এর আগে গত বছরের বর্ষা মৌসুমে এই স্টেডিয়ামের ইনডোরের ভিতরের মাঠের একাংশ পানিতে ডুবে যায়। আর আউটডোরের পুরোটাই পানিতে তলিয়ে যায়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

খেলাধুলা -এর সর্বশেষ