জমকালো আলোকসজ্জায় সেজেছে সামসুজ্জোহা স্টেডিয়াম

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৮ পিএম, ৪ অক্টোবর ২০১৮ বৃহস্পতিবার



জমকালো আলোকসজ্জায় সেজেছে সামসুজ্জোহা স্টেডিয়াম

জমকালো আলোকসজ্জায় সাজানো হয়েছে ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলার প্রতিটি স্টল। যেন প্রতিযোগিতা করা হচ্ছে একটি স্টলের সাথে অন্য স্টলের। মেই সাথে মেলায় রয়েছে অসাধারণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। তাইতো মেলার সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসছেন ছেলে, বুড়ো, যুবকসহ সব বয়সের মানুষ।

নগরবাসী এমনিতেই খুব ব্যস্ত। বিশেষ কোনো উপলক্ষ ছাড়া ঘুরতে বেরোনো হয় না। আবার বিশেষ দিনগুলোতেও অনেকেই থাকেন নানান কাজে ব্যস্ত। তাই ঘুরার সামান্য সুযোগ পেলে হাত ছাড়া করেন না নগরবাসী। তাই বাড়ির কাছে ঘুরার সুযোগ পেয়ে একটু স্বস্তি পেতে, একটু ঘুরাঘুরি করতে অনেকেই পরিবার নিয়ে ছুটে এসেছেন এই মেলায়।

বৃহস্পতিবার ৪ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া উন্নয়ন মেলার প্রতিটি স্টল সাজানো হয়েছে নানান ধরনের লাইট, ফুল ও অন্যান্য সরঞ্জাম দিয়ে। তবে সব থেকে বেশি আকর্ষণীয় ভাবে সাজানো হয়েছে কর অঞ্চলের স্টলটি। লাইটিংয়ের পাশাপাশি স্টলটিতে বৈদ্যুতিক পাম্প দিয়ে বানানো হয়েছে ছোট একটি ঝরনা। যা মেলায় প্রবেশ করা প্রতিটি দর্শনার্থীদের দৃষ্টি কেড়েছে।

স্টল নিয়ে কথা হয় কর কমিশনারের কার্যালয়ের প্রধান সহকারী মিন্টু ঘোষের সাথে। তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, মেলায় এসেছি স্টল একটু সুন্দর না করলে কি হয়? গতবার এসেছিলাম ওইবার একটু অন্যরকম ছিল। এবার একটু আলাদা করার ইচ্ছে ছিল। তাই এইবার একটু ভ্যারাইটি বাড়িয়েছি। একটু নতুনত্ব এনেছি। বিশেষ করে স্টলের সামনের ঝরনা এবং লাইটিংয়ের কম্বিনেশন অনেকের ভালো লেগেছে। মেলার এই দিকে যারাই এসেছে তারাই এটার প্রশংসা করেছে। অনেকেই ছেলফি তুলছে। ভালোই লাগছে দেখে। দর্শনার্থীরে জন্য একটি খাতা আছে যেখানে সবাই মন্তব্য করেছে। সবাই ডেকোরেশনের প্রশংসা করেছে।

একইভাবে একটু নতুনত্ব আনার চেষ্টা করা হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারের স্টলে। সেখানে শুধু স্টলের সৌন্দর্য নয়, কারাবন্দীদের হাতে তৈরী বিভিন্ন সামগ্রী বিক্রি করা হচ্ছে। সেখানে হাতে তৈরী জামদানি শাড়, ব্যাগ, পুথির তৈরী বিভিন্ন শো-পিস বিক্রি করা হচ্ছে। যা মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীদের ভলো আকর্ষণ করেছে।

স্টলের দায়িত্বে থাকা কারা পুলিশ শাহ জালাল জানান, আজ (বৃহস্পতিবার) প্রথম দিন হিসেবে ভালো বিক্রি হয়েছে। শাড়িগুলো প্রশংসা সবাই করেছে। সেই সাথে কারাবন্দীদের হাতে তৈরী কাথাও অনেকেই পছন্দ করেছে। পাথর শো-পিস বিক্রি হয়েছে কয়েকটি। তবে শুক্রবার বিক্রি আরো বাড়বে আশা করি।

মেলায় ঘুরতে আসা কাজী সালাউদ্দিন তার স্ত্রীর সাথে এখানে ঘুরতে এসেছেন। তার বাসা স্টেডিয়ামের পাশেই অবস্থিত। সন্ধায় বসা থেকে বেরিয়ে মেলার আলোকসয্যা দেখে স্ত্রীকে নিয়ে ঘুরতে এসেছেন। স্ত্রীর পছন্দের একটি পাটের তৈরী ব্যাগ কিনেছেন। সেই সাথে কিনেছেন কারাবন্দীদের তৈরী পুথির স্ট্রবেরি।

কোচিং শেষে বাড়ি ফেরার পথে মায়ের সাথে মেলায় ঘুরতে এসেছে ফিলোসোফিয়া বাংলা মিডিয়াম স্কুলের ৪র্থ শ্রেনির ছাত্র ইভান। এখানে ঘুরতে এসে পছন্দ হয়েছে কারাবন্দীদের তৈরী একটি শো-পিস। কিন্তু মায়ের কাছে টাকা নেই। তাই বাবাকে ফোন করেছি আসলেই কিনে ফেলবো।

মেলার সার্বিক ব্যবস্থা নিয়ে খুশি দর্শনার্থী ও স্টল কর্তৃপক্ষ। মেলা আরো দুই দিন থাকবে। তাই আগামি দুই দিন দর্শনার্থী আরো বাড়বে বলে জানান সবাই। মেলায় দুি দিন আরো আয়োজন থাকবে। ৬ অক্টোবর সমাপনী অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে শেষ হবে ৪র্থ জাতীয উন্নয়ন মেলা।


বিভাগ : খেলাধুলা


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও