৭ শ্রাবণ ১৪২৫, রবিবার ২২ জুলাই ২০১৮ , ৮:৩১ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জে ঐহিত্য হারাচ্ছে ক্রীড়াঙ্গন, চলছে রাজনীতিকরণ (ভিডিও)


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:২৫ পিএম, ২২ নভেম্বর ২০১৭ বুধবার | আপডেট: ০৩:২৫ পিএম, ২২ নভেম্বর ২০১৭ বুধবার


নারায়ণগঞ্জে ঐহিত্য হারাচ্ছে ক্রীড়াঙ্গন, চলছে রাজনীতিকরণ (ভিডিও)

‘‘নারায়ণগঞ্জ শিল্পঘন এলাকা হিসেবে পরিচিত। এখানকার ব্যবসায়ীদের পয়সা থাকলেও মন নেই। তাদের থেকে আদায় করতে হবে। চাইতে হবে। কী করবো, কী হবে তা তাদের বুঝিয়ে বলে রাজি করতে হবে। তাবেই তারা এগিয়ে আসবে। তবে এক্ষেত্রে রাজনীতিকরন করলে হবে না। কে কোন দল, কোন মত তা দেখলে হবে না। অপরদিকে ক্লাব সমিতিকেও উদার হতে হবে। তাদের চাওয়া পাওয়ার হিসেব কষতে হবে খুব সাবধানে। কারণ তাদের কারণেও খেলাধুলায় নারায়ণগঞ্জে পিছিয়ে পড়েছে’’ একমত হয়েছেন ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব ও আওয়ামীলীগ নেতা ইব্রাহীম চেঙ্গিস ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর বিএ যোবায়ের নিপু।

২১ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে নিউজ নারায়ণগঞ্জের বিশেষ লাইভ টক শো ‘নারায়ণগঞ্জ কথন’ এর আলোচনায় মতামত ব্যাক্ত করতে গিয়ে এসব কথা বলেন তারা। অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন সংবাদকর্মী আবুল হাসান।

’নারায়ণগঞ্জ কথনে’ এবারের বিষয় ছিল নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যের ক্রীড়াঙ্গন। এ বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে ইব্রাহীম চেঙ্গিস ও বিএ যোবায়ের নিপু খোলামেলা আলোচনা করেন।

এসময় উভয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, জিয়া হলটি খেলার মাঠ ছিল, বালু মাঠে তিনটি মাঠ ছিল, ২০০ শয্যা হাসপাতালের জায়গাটা মাঠ ছিল, বাটা মাঠ ছিল। এখন সবই মুছে যাচ্ছে। খেলার মাঠ নাই। কী ভাবে খেলোয়ার গড়ে উঠবে। আগে যারা ছিল সবাই নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। ঘরের বাজারের টাকা দিয়ে বিভিন্ন টুর্নামেন্টে এন্টি করে দিতেন। এখন তেমন নিবেদিত প্রাণ নাই। কোথা থেকে খেলোয়ার গড়ে উঠবে।

আক্ষেপ করে বলেন, আট বছর ধরে নারায়ণগঞ্জে কোন লীগ টুর্নামেন্ট নাই। ডোনারের অভাবতো আছেই তার চেয়ে বেশি হচ্ছে ইচ্ছা শক্তির অভাব। কয়েক বছর আগে রিয়াজউদ্দিন আল মামুন তিন বছরের জন্য এক কোটি টাকা দিতে চেয়েছিলেন। অদৃশ্য এক সুতার টানে তা আটকে যায়। কে কী দল করলো, কে কোন দলের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত সেটা ভাবা ঠিক নয়। খেলাধুলার সঙ্গে রাজনীতি ঢুকানো ঠিক না। রিয়াজউদ্দিন একজন সফল ব্যবসায়ী। নারায়ণগঞ্জের ছেলে। কোথাও কোন প্রতিযোগীতা নাই। জেলা পর্যায়ে এথেলেটিকস হচ্ছে না। ব্যবসায়ীরা যে কী চায় তা জানতে হবে। দাতাদের কাছে চাইতে হবে। কনভেন্স করতে হবে। লীগ করতে বছরে ৩০-৪০ লাখ টাকা খরচ হয়। নারায়ণগঞ্জের মত জায়গায় যা একজনের পক্ষেই মেটানো সম্ভব। আমাদের আবেদনটা ভালভাবে ব্যবসায়িদের কাছে তুলে ধরতে হবে বলে মত দেন তারা।

বর্তমান পরিবেশ তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, বাচ্চারা সবাই ভিডিও গেমস খেলতে ব্যাস্ত। ক্রিকেট একটা ক্রেইজে পরিণত হয়েছে। এই হবে, সেই হবে, অনেক টাকা পাওয়া যায়। আবার অন্যদিকে মাদকের বিস্তার ভয়াবহ। অনেক উদীয়মান প্রতিভা ঝড়ে পড়ছে। আগে ছিল খেলাধুলা নেশা। প্রাকটিসের জন্য ঢাকা যেতাম। আন্তঃস্কুল, আন্তঃক্লাস খেলা হতো। আন্তঃজেলা খেলা হতো এখন আর তা দেখা যায় না। তাই খেলাধুলায় এগিয়ে আসতে হলে আমাদের সচেতন হতে হবে। বাচ্চাদের গড়ে তুলতে হবে। সুযোগ দিতে হবে বলে মন্তব্য করেন সুনামধন্য এই দুই খেলোয়াড়।

বিসিবি নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সেক্রেটারী তানভীর আহমেদ টিটুর যে পরজিত হয়েছেন তার জন্য হতাশ নয় নারায়ণগঞ্জের এই দুই তারকা। তরা বলেন, টিটুর চেয়ে বিজ্ঞ সিনিয়ররা নির্বাচন করেছেন। তারা সবাই দেশের খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব। আগামীতে টিটু বেরিয়ে আসবে। তার দেশব্যাপী একটি পরিচয় দরকার ছিল। সমনে সময় আছে। আমারা আশাবাদি।

দুই আলোচক নিউজ নারায়ণগঞ্জের কাছে প্রত্যাশা রাখেন। যাতে খেলাধুলাকে আরো উন্নত করার জন্য সামনে ক্রীড়া ব্যক্তিদের আমন্ত্রন জানাবেন। সমস্যা সম্ভবনাগুলো আলোচনায় উঠায়ে নিয়ে আসবেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

টক শো -এর সর্বশেষ